একজন ভারতীয় ক্রিকেটের প্রথম বিশ্বকাপজয়ী। অপর জন আবার অধিনায়ক হিসেবে ভারতীয় ক্রিকেটকে উপহার দিয়েছেন জোড়া বিশ্বকাপ।

ভারতের হয়ে সেই জোড়া বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক মহেন্দ্র সিংহ ধোনিকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত কপিল দেব নিখাঞ্জ। বলে দিলেন, ‘‘মহেন্দ্র সিংহ ধোনির মতো কোনও ক্রিকেটার ভারতের মুখ গৌরবোজ্জ্বল করেনি।’’

এই মুহূর্তে তাঁর ক্রিকেটার জীবনের শেষ প্রান্তে এসে পৌঁছেছেন ধোনি। গত বছর সে ভাবে ছন্দে ছিলেন না। তাই অনেক সমালোচক ও প্রাক্তন ক্রিকেটারই ধোনিকে নিশানা বানিয়েছিলেন।  কিন্তু ১৯৮৩ সালে ভারতকে বিশ্বকাপ জেতানো অধিনায়ক কপিল সে পথে হাঁটতে নারাজ। বরং ধোনির প্রশংসা করে তিনি বলছেন, ‘‘ধোনি সম্পর্কে কিছু বলার নেই। দীর্ঘদিন ধরে দেশের হয়ে খেলে ভারতকে গৌরবোজ্জ্বল করেছে। আমাদের সকলের উচিত ধোনিকে সম্মান করা।’’

ইংল্যান্ডেই হয়তো জীবনের শেষ বিশ্বকাপ খেলতে নামবেন ধোনি। কপিল চান, এ বারের বিশ্বকাপ জিতেই দেশে ফিরুক এই ভারতীয় উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান। ‘হরিয়ানা হারিকেন’-এর কথায়, ‘‘ধোনি কত দিন খেলবে সেটা ও নিজেই জানে। বিশ্বকাপে ধোনির জন্য শুভেচ্ছা রইল। আশা করছি, ধোনি এ বারও বিশ্বকাপ নিয়েই ভারতে ফিরবে।’’

টেস্টে ভারতের হয়ে ৪০০ উইকেট  ও ৫০০০ রান রয়েছে কপিলের। বিশ্বকাপে ভারতের সম্ভাবনা সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে মঙ্গলবার তিনি বলে দেন, ‘‘ভারতের এই দলটা দুর্দান্ত। খুব সহজে এটা হওয়া সম্ভব হয়নি। তার পিছনে প্রচুর পরিশ্রম লুকিয়ে রয়েছে। বিশ্বকাপে দল হিসেবে খেলুক আমাদের ছেলেরা। দেখতে হবে চোট-আঘাত যেন হঠাৎ ঘনিয়ে না আসে। এর সঙ্গে যদি ভাগ্যও সঙ্গে থাকে, তা হলে নিশ্চিত এ বারও ভারত চ্যাম্পিয়ন হবে।

বিশ্বকাপে ভারতীয় দল নির্বাচন নিয়ে ইতিমধ্যেই বিতর্ক তৈরি হয়েছে। সুনীল গাওস্করের মতো কপিলের বেশ কয়েক জন সহযোদ্ধাও দলে ২২ বছরের দীনেশ কার্তিকের অন্তর্ভুক্তি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। কেন দিল্লির আগ্রাসী উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান ঋষভ পন্থকে দলভুক্ত করা হয়নি তা নিয়ে অনেক প্রাক্তন ক্রিকেটারই সরব। কপিল যদিও সেই বিতর্কে ঢুকতে চাননি। বলেন, ‘‘নির্বাচকরা ওদের কাজ করেছেন। আমরা বরং ওদের বাছা দলটাকে সম্মান ও উৎসাহ জোগাই। ওঁরা যদি কার্তিককে দলে নিয়ে মনে করেন, ঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তা হলে সেই সিদ্ধান্তকে সম্মান করা উচিত। আমাদের নির্বাচকদের প্রতি আস্থা রাখতে হবে।’’