• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ওয়াহাব-আমির জুটি স্বপ্ন দেখাচ্ছে পাকিস্তানকে

Sarfaraz
মহড়া: বৃহস্পতিবার ব্রিস্টলের নেটে প্রস্তুতি চলছে সরফরাজ়ের। এএফপি

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুর্দান্ত জয় আমূল পাল্টে দিয়েছে পাকিস্তান শিবিরের মেজাজ। কাল, শুক্রবার শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে খেলতে নামার আগে মিকি আর্থার জানিয়ে দিলেন, তাঁর দল ‘নির্মম ক্রিকেট’ খেলার জন্য তৈরি।

বৃহস্পতিবার সরফরাজ়দের কোচ বলে দিয়েছেন, ‘‘ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে যে ক্রিকেট খেলেছিল পাকিস্তান, সেই মানসিকতা ধরে রাখতে হবে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধেও। বরং আমি ওদের পরামর্শ দেব, তার চেয়েও নির্মম ক্রিকেট খেলে জয় নিশ্চিত করতে হবে।’’ আর্থার আরও বলেছেন, ‘‘টানা ১১টি ওয়ান ডে ম্যাচে হারের পরে ইংল্যান্ডের সঙ্গে জয় দলের মানসিকতায় বড় পরিবর্তন এনে দিয়েছে। সেটাকেই ধরে রাখতে হবে। বিশ্বকাপের বাকি ম্যাচগুলিতে পাকিস্তানকে দেখলে যেন প্রতিপক্ষ আতঙ্কে থাকে, সেই আগ্রাসী মেজাজই ছেলেদের খেলায় দেখতে চাই।’’

আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে বৃষ্টিবিঘ্নিত শেষ ম্যাচে জয়ের পরে স্বস্তি ফিরেছে শ্রীলঙ্কা শিবিরে। বিশেষ করে, লাসিথ মালিঙ্গার বিধ্বংসী বোলিং দলকে অনেকটাই চাঙ্গা করে দিয়েছে। যদিও তা নিয়ে মাথা ঘামাতে রাজি নন আর্থার। তিনি পাল্টা অস্ত্র হিসেবে দুই অভিজ্ঞ বাঁ হাতি পেসার ওয়াহাব রিয়াজ় ও মহম্মদ আমিরকে দিয়ে শ্রীলঙ্কা শিবিরে আতঙ্ক তৈরি করার পরিকল্পনা সেরে রেখেছেন। আর্থার বলেছেন, ‘‘সকলেই শেষ ম্যাচে বোধহয় ওয়াহাব এবং আমিরের ভয়ঙ্কর মেজাজটা দেখেছেন। যে কোনও শক্তিশালী দলের ব্যাটিং লাইন-আপকে ওরা অনায়াসে চাপে রেখে দিতে পারে। আমার মনে হচ্ছে, শুক্রবার ইংল্যান্ড ম্যাচেরই পুনরাবৃত্তি ঘটাতে চলেছে ওয়াহাব ও আমির।’’ 

শুধু তাই নয়। শেষ ম্যাচে মহম্মদ হাফিজ়, সরফরাজ় আহমেদ এবং বাবর আজ়মের ব্যাটিং দেখেও আশ্বস্ত আর্থার। তিনি বলেছেন, ‘‘ওরা প্রমাণ করে দিয়েছে, যে কোনও ভাল বোলিং সামলানোর ক্ষমতা রয়েছে। আমাদের শুরুটা ভাল করতে হবে। তা হলেই মাঝের সারির ব্যাটসম্যানেরা বড় ইনিংস গড়ার কাজ খুব সহজেই সেরে ফেলতে পারবে।’’ আরও যোগ করেছেন, ‘‘শ্রীলঙ্কা বোলিংকে খাটো করে দেখছি না। তবে এটাও জানিয়ে রাখা ভাল, ইংল্যান্ডের উইকেটের সঙ্গে আমাদের ব্যাটসম্যানরা খুব সুন্দর নিজেদের মানিয়ে নিয়েছে। ফলে আমরা আবার তিনশোর উপর রান তোলার ব্যাপারে আশাবাদী।’’

শ্রীলঙ্কা শিবির থেকে অবশ্য তেমন কোনও রণংদেহি ধ্বনি শোনা যায়নি। কোচ চণ্ডিকা হাতুরাসিংঘা বলেছেন, ‘‘আমার মনে হয় না, ক্রিকেটারদের নিজেদের দায়িত্ব কী, তা মনে করিয়ে দেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। শেষ ম্যাচে আমাদের ব্যাটিং মোটেও আশাব্যঞ্জক ছিল না। ফলে এই ম্যাচে সেই ঘাটতি দ্রুত পূরণ করতে হবে।’’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘‘শেষ ম্যাচে কুশল পেরেরা যে ভাবে ব্যাটিং করেছে, তা দেখে বাকি সকলের শিক্ষা নেওয়া উচিত। ৫০ ওভারের ম্যাচে উইকেটে দাঁড়িয়ে থাকা খুবই দরকার। তা হলেই বড় রান চলে আসে।’’ পাক বোলিং সম্পর্কে শ্রীলঙ্কা দলের কোচ জানিয়েছেন, ‘‘ওদের বোলিং বিভাগটা অনেক বেশি পরিণত। তা ছাড়া ইংল্যান্ড ম্যাচে জয় পাক বোলারদের আত্মবিশ্বাস অনেকটাই বাড়িয়ে রেখেছে। আমাদের তাই অনেক বেশি সতর্ক হয়ে খেলতে হবে।’’ 

এত কিছুর পরেও দুই শিবিরের কাছে অবশ্য চিন্তার বিষয় হয়ে উঠেছে ব্রিস্টলের আবহাওয়া। আকাশে মেঘ রয়েছে। আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস, শুক্রবার ভারী বৃষ্টিও হতে পারে। আর্থার বলেছেন, ‘‘মনেপ্রাণে প্রার্থনা করব যেন বৃষ্টিতে ম্যাচ বিঘ্নিত না হয়। যে কোনও মূল্যে এই ম্যাচ জিতে নিজেদের জায়গাটা পোক্ত করতে চাই।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন