অশ্বিনের বিশ্বাস, ভারতই শাসন করবে বিশ্বকাপ
মঙ্গলবার  চেন্নাইয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেছেন, ‘‘ভারত এই বিশ্বকাপ শাসন করবে, ঠিক যেমন ২০০৩ এবং ২০০৭ সালে সেটা দেখা গিয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার খেলায়।’’
India

ছবি এপি।

২০০৩ এবং ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া যে রকম আধিপত্য দেখিয়েছিল, এ বার ভারত সে ভাবেই টুর্নামেন্ট শাসন করবে।

বক্তার নাম? ভারতীয় অফস্পিনার আর অশ্বিন। মঙ্গলবার  চেন্নাইয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেছেন, ‘‘ভারত এই বিশ্বকাপ শাসন করবে, ঠিক যেমন ২০০৩ এবং ২০০৭ সালে সেটা দেখা গিয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার খেলায়।’’ দুই রিস্ট স্পিনার যুজবেন্দ্র চহাল এবং কুলদীপ যাদবের প্রতি অগাধ আস্থা রাখছেন তিনি, ‘‘গত কয়েক বছর ধরেই চহাল এবং কুলদীপ জুটি অসাধারণ বোলিং করছিল। এ বার তো চহাল অসাধারণ বোলিং করছে। ওরা ভারতীয় বোলিংয়ের বৈচিত্র অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে।’’

ঘটনা হল, এ বার ভারতীয় দলে কোনও অফস্পিনার নেই। তবে কি তাঁদের প্রয়োজনীয়তা কমছে? অশ্বিন তা মনে করেন না, ‘‘সময়ের সঙ্গে অনেক কিছুর বদল ঘটে। এখন তো সে ভাবে অফস্পিন দেখতেই পাওয়া যায় না। এটাকে পরিবর্তনের অঙ্গ হিসেবেই মেনে নিতে হবে।’’ আরও যোগ করেছেন, ‘‘এখন তো প্রায় সমস্ত দলে ডান হাতি ব্যাটসম্যানদের সংখ্যা বেড়ে গিয়েছে। ফলে তাদের সামলাতে বাঁ হাতি স্পিনারদের আধিক্যও বেড়েছে। তবে আমি খুব বিচলিত নই। ব্যাপারটা আবারও ঘুরে ফিরে আসবে।’’

অশ্বিন বরং মনে করেন, ছোট ফর্ম্যাটের ক্রিকেটে অফস্পিনারদের প্রয়োজনীয়তা কমে গেলেও আইপিএলের মতো প্রতিযোগিতায় তাঁর বা হরভজন সিংহের মতো অফস্পিনারদের গুরুত্ব কমেনি। ‘‘অনেকেই মনে করেন আমি অফস্পিন করি। কিন্তু সেটা পুরোপুরি ঠিক নয়। আমার বোলিং দর্শনেও অনেক পরিবর্তন এসেছে। আসলে নিজেকে যে কোনও সময়ের জন্যই তৈরি রাখা দরকার, যাতে সুযোগ এলে তাকে কাজে লাগানো যায়।’’

নিজের অ্যাকাডেমি নিয়ে অশ্বিন জানিয়েছেন, উন্নততর পরিকাঠামো এবং কোচিং ভাল মানের না হলে আগামী প্রজন্মে ভাল বোলার উঠে আসবে না। তিনি নতুন বোলার তৈরি করার চেষ্টা চালাবেন  নিজস্ব অ্যাকাডেমির মাধ্যমে।

ম্যাচের
Live
স্কোর