বাঁ হাতের হাড়ে চিড় ধরায় শিখর ধওয়নের বিশ্বকাপ-ভবিষ্যৎ নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা। কমপক্ষে তিন সপ্তাহ তাঁকে মাঠের বাইরে থাকতে হতে পারে জানিয়ে দিয়েছে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট।

কিন্তু তারই সঙ্গে নতুন এক প্রশ্ন মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। শেষ পর্যন্ত যদি ধওয়ন খেলতেই না পারেন, তা হলে তাঁর পরিবর্ত কে হবেন? শুধু তাই নয়। পরিবর্ত হিসেবে যাঁকেই পাঠানো হোক, তাঁকে কি এখনই দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার জন্য নির্বাচকরা প্রস্তাব দেবেন বোর্ডের কাছে? যদিও ভারতীয় দল থেকে এখনও ধওয়নের কোনও পরিবর্ত চাওয়া হয়নি। এবং আইসিসি-র নিয়মানুযায়ী কোনও ক্রিকেটার আহত হয়ে না ফিরলে কোনও দলই পরিবর্ত চাইতে পারে না। সংবাদসংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, ধওয়নকে নিয়ে এখনও ‘ধীরে চলো’ নীতি নিয়েই এগোতে চাইছে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট।

এমনই এক জটিল পরিস্থিতির মধ্যে দাঁড়িয়ে থাকা ভারতীয় দলকে পরামর্শ দিতে এগিয়ে এলেন সুনীল গাওস্কর এবং কেভিন পিটারসেন। এবং দুই প্রাক্তন তারকাই মনে করেন, ধওয়ন যদি একান্তই ছিটকে যান, সে ক্ষেত্রে বিনা দ্বিধায় ঋষভ পন্থকে পরিবর্ত হিসেবে পাঠানো উচিত নির্বাচকদের। 

সংবাদসংস্থা পিটিআই জানাচ্ছে, ধওয়নের পরিবর্ত হিসেবে তিনটি নাম ঘোরাফেরা করছে নির্বাচকদের মনে। প্রথম নাম অবশ্যই ঋষভ পন্থ। তাঁর সঙ্গেই থাকছে শ্রেয়স আইয়ার এবং অম্বাতি রায়ডুর নাম। তবে প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক গাওস্কর সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, ধওয়নের সেরা পরিবর্তের নাম ঋষভ। তিনি বলেছেন, ‘‘আইপিএলে দুর্দান্ত ছন্দে ছিল ঋষভ। আমি বলব ও-ই সেরা পরিবর্ত। আর আমি মনে করি ঋষভও নিশ্চয়ই মুখিয়ে থাকবে এটা প্রমাণ করার জন্য যে, ওর প্রথম দলেই ডাক পাওয়ার যোগ্য ছিল।’’ তারই সঙ্গে গাওস্কর যোগ করেছেন, ‘‘ভারতীয় দলের ডাক্তাররা জানিয়েছেন, ১৮ দিনের মধ্যে ও সুস্থ হয়ে যাবে। তা হলে আমি বলব ধওয়নকে রেখে দেওয়া হোক। দরকারে ও ইংল্যান্ড ম্যাচে খেলবে না।’’ সানি আরও যোগ করেছেন, ‘‘দেশের জন্য এই যন্ত্রণা সহ্য করতেই হবে। তারই সঙ্গে মানসিক ভাবে নিজেকে আরও বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠতে হবে।’’

প্রাক্তন ইংল্যান্ড তারকা কেভিন পিটারসেনও মনে করেন, ধওয়নের পরিবর্ত হিসেবে ঋষভই তাঁর এক নম্বর পছন্দ। তিনি টুইট করেছেন, ‘‘শিখর বিশ্বকাপ থেকে সম্ভবত ছিটকে গেল। আমি মনে করি ঋষভকে এখনই বিমানে তুলে দাও। ওপেন করুক কে এল রাহুল। চার নম্বরে ব্যাট করুক ঋষভ।’’

যদিও এই প্রসঙ্গে উল্টো সুর শোনা গিয়েছে প্রাক্তন ভারতীয় ওপেনার গৌতম গম্ভীরের মুখে। তিনি জানিয়েছেন, অম্বাতি রায়ডুকেই পাঠানো হোক পরিবর্ত হিসেবে। তিনি বলেছেন, ‘‘ধওয়নের পরিবর্ত হিসেবে রায়ডুকে পাঠানোই যেতে পারে। তবে ও যদি ব্যর্থ হয়, তা হলে ওর ক্রিকেটজীবনই শেষ হয়ে যাবে। তখন শুধুমাত্র আইপিএলের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে।’’