বাবার মৃত্যুর পর দল থেকে ছিটকে গিয়েছিলেন, বিশ্বকাপে দুরন্ত প্রত্যাবর্তন এই পাক পেসারের
টুর্নামেন্টে এখনও পর্যন্ত সাতটি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। নিয়েছেন ১০টি উইকেট। তাঁর বোলিং গড় ৩৬.৭০।
pakistan

বিশ্বকাপে দুরন্ত ফর্মে আছেন এই পাক পেসার। ছবি: রয়টার্স।

একসময়ে ছিটকে গিয়েছিলেন পাকিস্তান জাতীয় দল থেকে। বিশ্বকাপে ওয়াহাব রিয়াজ ফিরে এলেন দারুণ ভাবে। একেই হয়তো বলে প্রত্যাবর্তন।  চলতি বিশ্বকাপে পাকিস্তানের হয়ে ভালই বল করেছেন ওয়াহাব। টুর্নামেন্টে এখনও পর্যন্ত সাতটি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। নিয়েছেন ১০টি উইকেট। তাঁর বোলিং গড় ৩৬.৭০। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে শেষ ম্যাচেও সরফরাজ আহমেদের অন্যতম ভরসা ওয়াহাব। বল হাতে দলের প্রয়োজনে উইকেট তুলে নিয়েছেন। আবার আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে মরণবাঁচন ম্যাচে ওয়াহাবের মারমুখী ব্যাটিং পাকিস্তানকে এনে দেয় ৩ উইকেটে জয়। চিড় ধরা আঙুল নিয়েও ওয়াহাব সাহসী ব্যাটিং করে গিয়েছেন আফগানদের বিরুদ্ধে। রশিদ খানের মতো স্পিনারকে হেলায় ছক্কা হাঁকান। অথচ এই ওয়াহাবই একসময়ে দলছুট হয়ে গিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন:  ২০ বছর আগের ইতিহাস কি ফিরবে? পাক-ম্যাচের আগে আত্মবিশ্বাসী শাকিব

২০১৭ সালে বাবাকে হারান এই বাঁ হাতি পেসার। বাবার মৃত্যু তাঁকে এতটাই ধাক্কা দিয়েছিল যে ক্রিকেট থেকে ক্রমশ দূরে সরে যেতে থাকেন ওয়াহাব। এক সময়ে পাকিস্তানের জাতীয় দল থেকেও বাদ পড়েন তিনি। ৩৪ বছর বয়সী এই পাক-পেসার বলেন, ‘‘বাবাকে আমি খুব ভালবাসতাম। পরিবারের সমস্ত দায়িত্বই ছিল বাবার কাঁধে। হঠাৎ করে বাবাকে হারানোয় সব দায়িত্ব আমার কাঁধে এসে পড়ে। আমি হতভম্ব হয়ে পড়ি।” এই মানসিক আঘাত কাটিয়ে উঠতে আট মাস সময়  লেগেছিল ওয়াহাবের। ক্রিকেটে আর মনোযোগ ছিল না তাঁর। এ কথা স্বীকারও করে নেন তিনি। বিশ্বকাপের প্রাথমিক দলে তাঁকে রাখেননি ইনজামাম উল হক। ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ওয়ানডে সিরিজে পাকিস্তানের নিরাশাজনক পারফরম্যান্সের পরে ওয়াহাব রিয়াজ ও মহম্মদ আমিরকে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত দলে নেওয়া হয়। চলতি টুর্নামেন্টে পাকিস্তানের পারফরম্যান্স ভাল না হলেও ওয়াহাব রিয়াজ কিন্তু নিয়মিত উইকেট পেয়ে চলেছেন।  

ম্যাচের
Live
স্কোর