আফগানিস্তান ও ওমানের বিরুদ্ধে খেলতে নামার আগে তিনটি জিনিস দলের ফুটবলারদের জন্য চাইছেন সুনীল ছেত্রী। ভারত অধিনায়ক বলে দিলেন, ‘‘ম্যাচে শুধু গোলের সুযোগ তৈরি করলেই চলবে না। তা থেকে গোলও করতে হবে।’’ বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বের ম্যাচ খেলতে তাজিকিস্তানের দুসানবেতে গিয়েছে ইগর স্তিমাচের ভারত। ১৪ নভেম্বর ভারতের খেলা আফগানিস্থানের সঙ্গে। ১৯ তারিখ প্রীতম কোটালদের খেলা ওমানে। 

ভারতীয় দলের অধিনায়ক বলেছেন, ‘‘ম্যাচে কত গোলের সুযোগ তৈরি করতে পেরেছি, তার উপরে কিছু নির্ভর করে না। দিনের শেষে গোল করে ম্যাচ জেতার ওপরই সমস্ত কিছু নির্ভর করে।’’ সোমবার রাতে নয়াদিল্লি থেকে দুবাই পৌঁছে এ দিন অনুশীলন করেন গুরপ্রীত সিংহ সাঁধুরা। সেখান থেকে মঙ্গলবার রাতে দুসানবে রওনা হন প্রণয় হালদাররা। কিন্তু মাঠে নামার আগেই তাজিকিস্তানের আবহাওয়া এবং মাঠ নিয়ে চিন্তায় ইগর। বলে দিয়েছেন, ‘‘আমরা যেখান থেকে যাচ্ছি, সেখানকার সঙ্গে দুসানবের আবহাওয়া আলাদা। শূন্য ডিগ্রির নীচে নেমে গিয়েছে তাপমাত্রা। শুধু তাই নয়, খেলতে হবে কৃত্রিম ঘাসের মাঠে। আমাদের প্রতিপক্ষ আফগানিস্তানের মতো শক্তশালী দল।’’

বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জনের জন্য পরপর গুরুত্বপূর্ণ দু’টি ম্যাচ। তিন ম্যাচ থেকে দু’পয়েন্ট নিয়ে এখনও পরের রাউন্ডে যাওয়ার আশা জাগিয়ে রেখেছেন সুনীলেরা। গ্রুপে চার নম্বরে রয়েছে ভারত। ইগর বলছেন, ‘‘আফগানিস্তান ম্যাচ জিতলে তবেই ওমান ম্যাচের গুরুত্ব থাকবে। অথচ আমাদের সেই ম্যাচ খেলতে হবে কৃত্রিম ঘাসের মাঠে। যে মাঠে আমাদের ছেলেদের প্রায় কেউই খেলতে এখন অভ্যস্ত নয়। কাজটা কঠিন।’’

ওমানের কাছে হেরেছিল ভারত। তারপর কাতারের সঙ্গে ড্র হয় ম্যাচ। বাংলাদেশের বিরুদ্ধেও ঘরের মাঠে জিততে পারেননি আশিক কুরুনিয়ানরা। আবার আফগানিস্তানের অস্থির পরিস্থিতির জন্য ম্যাচ খেলতে  হচ্ছে তাজিকিস্তানে। তাতে যে ভারতের ক্রোয়েশীয় কোচ খুশি নন, তা তাঁর কথাতেই স্পষ্ট, ‘‘সূচিটা এমন ভাবে হয়েছে এবং দলের বিমান সূচি যা আছে তাতে ম্যাচের আগের দিন খেলার জায়গায় পৌঁছব আমরা। পেশাদার কোনও দলের পক্ষে অবশ্য সব চ্যালেঞ্জই নিতে হয়। ফেডারেশন চেষ্টা করছে পরিস্থিতি যতটা সম্ভব সামাল দেওয়ার, দেখা যাক কী হয়।’’