ভারত ১         •          নেদারল্যান্ডস ২
 

স্বপ্নভঙ্গ! নেদারল্যান্ডসের কাছে হেরে বিশ্বকাপ হকির কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় ভারতের।

বৃহস্পতিবার ভুবনেশ্বরের কলিঙ্গ স্টেডিয়ামে ম্যাচ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হতাশায় মাঠের মধ্যে বসে পড়েন মনদীপ সিংহ। দু’হাতে মুখ ঢাকলেন অমিত রোহিদাস। আকাশের দিকে শূন্য দৃষ্টিতে তাকিয়েছিলেন আকাশদীপ সিংহ। গত জুলাইয়ে নেদারল্যান্ডসে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে টাইব্রেকারে হেরেছিল ভারত। মাস ছয়েকের মধ্যে ফের বিপর্যয়। এ বার ঘরের মাঠে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে।  

দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৫-০ চূর্ণ করে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করেছিলেন হরমনপ্রীত সিংহেরা। দ্বিতীয় ম্যাচে বেলজিয়ামের সঙ্গে ড্র করলেও দুর্দান্ত ভাবে ঘুরে দাঁড়ান তাঁরা। শেষ ম্যাচে কানাডাকে ৫-১ হারিয়ে শেষ আটে যোগ্যতা অর্জন করায় ভারতীয় দলকে নিয়ে প্রত্যাশা ছিল তুঙ্গে। তাই ভারত বনাম নেদারল্যান্ডস ম্যাচের টিকিটের জন্য বুধবার রাত সাড়ে তিনটে থেকেই স্টেডিয়ামের সামনে ভিড় করেছিলেন ক্রীড়াপ্রেমীরা। কলিঙ্গ স্টেডিয়ামে দর্শকাসন প্রায় পঁচিশ হাজার। কিন্তু এ দিন তার চেয়েও অনেক বেশি দর্শক ছিলেন। বসার আসন না পেয়ে অনেকেই দাঁড়িয়ে খেলা দেখেন। গ্যালারিতে ছিলেন প্রাক্তন ক্রিকেট তারকা বীরেন্দ্র সহবাগ, ইন্ডিয়ান অ্যারোজের ফুটবলারেরাও। 

উৎসবের আবহে ১২ মিনিটে পেনাল্টি কর্নার থেকে গোল করে ভারতকে এগিয়ে দেন আকাশদীপ। কিন্তু অমিত ও হরমনপ্রীতের ভুল বোঝাবুঝিতে তিন মিনিটের মধ্যে নেদারল্যান্ডসের থিয়েরি ব্রিকমান গোল করে সমতা ফেরান। স্তব্ধ হয়ে যায় গ্যালারি। প্রথম কোয়ার্টার শেষ হওয়ার পরে স্টেডিয়ামে ‘চক দে ইন্ডিয়া’ গান বাজানো হয়। তাতে দর্শকেরাই হতাশা ভুলে উদ্বুদ্ধ হয়ে ওঠেন, খেলোয়াড়রা নন! কারণ, ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণের ঝড় তুলতে শুরু করে নেদারল্যান্ডস। 

আরও পড়ুন: তাই জু-কে হারিয়ে বড় চমক সিন্ধুর

ভারতীয় দলের রণকৌশল ছিল, রক্ষণ সামলে প্রতিআক্রমণে গোল করা। কিন্তু নেদারল্যান্ডসের গতির বিরুদ্ধে ছন্দ হারিয়ে ফেলেন মনদীপেরা। এই পরিস্থিতিতে ফের গোল করে নেদারল্যান্ডসকে এগিয়ে দেন থিয়েরি। ভারতীয় দল প্রতিবাদ জানিয়ে ভিডিয়ো রেফারেলের আবেদন করে। আম্পায়ার গোল বাতিল করায় স্বস্তি ফিরলেও শেষরক্ষা হল না। অভিজ্ঞ গোলরক্ষক পি আর সৃজেশের ভুলে ৫০ মিনিটে ফের পিছিয়ে পড়ে ভারত। পেনাল্টি কর্নার থেকে নেওয়া ফান ডার ওয়ার্ডেনের শট তাঁর দু’পায়ের ফাঁক দিয়ে গোলে ঢুকে যায়! 

প্রত্যাবর্তনের লক্ষ্যে ম্যাচ শেষ হওয়ার মিনিট পাঁচেক আগে অভিনব সিদ্ধান্ত নেন হরেন্দ্র সিংহ। গোলরক্ষক সৃজেশকে তুলে নামান ডিফেন্ডার হরমনপ্রীতকে। শেষ পাঁচ মিনিট গোলরক্ষক ছাড়াই খেলল ভারতীয় দল! গোল অবশ্য অধরাই থাকল। 

আরও পড়ুন: সোলের আগে মনে হয়েছিল মরেই যাব

১৯৭৫ সালে কুয়ালা লামপুরে বিশ্বকাপে হকিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ভারত। তার পরে কখনও শেষ চারে পৌঁছতে পারেনি অলিম্পিক্সে আট বারের সোনাজয়ীরা। এ বারও ছবিটা বদলাল না। ম্যাচের পরে ভারতীয় দলের কোচ হরেন্দ্র সিংহ কাঠগড়ায় তুললেন আম্পায়ারকেই। তার দাবি,  ‘‘বিশ্বকাপের জন্য গত ছয় বছর ধরে আমরা পরিশ্রম করেছিলাম। আম্পায়ারের জন্য তা বিফলে গেল।’’

বিশ্বকাপ হকি সেমিফাইনাল: ইংল্যান্ড বনাম বেলজিয়াম। অস্ট্রেলিয়া বনাম নেদারল্যান্ডস।