সোমবার কলকাতার এক পাঁচতারা হোটেলে টিএসকে ২৫কে দৌড়ের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসে সৌরভকে ভারতীয় দলের কোচ হওয়ার ইচ্ছা নিয়ে প্রশ্ন করা হয়। তিনি  বলেন, ‘‘ভারতের কোচ হিসেবে একজন কাজ করছেন। আগে তাঁর মেয়াদ শেষ হতে দিন, আগামী কোচ নিয়ে এখন থেকে ভাবার কোনও কারণ দেখছি না।’’ সঙ্গে যোগ করেন, ‘‘ভারতীয় দলের কোচ না হলেও, আমার কিন্তু কোচিং করানোর অভিজ্ঞতা রয়েছে। দিল্লি ক্যাপিটালসের ব্যাটিং উপদেষ্টা হিসেবে দলকে আইপিএল সেমিফাইনালে তুলেছি। দিল্লির এই দলটিই কিন্তু গত সাত বছরে পয়েন্ট টেবলের নীচের দিকে শেষ করত।’’ 

আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে কাজ করার সঙ্গে দেশের কোচ হিসেবে কাজ করার কতটা তফাত, তা সৌরভ নিজেও জানেন। তবুও তাঁর এই ইঙ্গিতই স্পষ্ট বুঝিয়ে দিচ্ছে, প্রস্তাব আসলে তিনি হয়তো না করবেন না। ভারতের কোচ হওয়ার তাগিদ কি এখনও আগের মতোই? সৌরভের উত্তর, ‘‘না বললে ভুল হবে।’’ 

ক্রিকেটবিশ্বে আলোচনার অন্যতম বিষয় এখন স্মিথ-কোহালি দ্বৈরথ। কে এগিয়ে, কে পিছিয়ে তা নিয়ে বেশির ভাগ দিনই ঝড় ওঠে সোশ্যাল মিডিয়ায়। সৌরভকেও সেই প্রশ্ন করা হয়। তাঁর জবাব, ‘‘স্মিথ ও কোহালির মধ্যে কোনও তুলনা করতে চাই না। কে এগিয়ে, কে পিছিয়ে তা কি সত্যি যায় আসে? পারফরম্যান্সই আসল।’’ সৌরভ যোগ করেন,  ‘‘বর্তমানে ক্রিকেটবিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান যে বিরাট তা নিয়ে সন্দেহ নেই। আমাদের খুশি হওয়ার এর চেয়ে বড় কারণ আর কী-ই হতে পারে!’’

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ভারতের চলতি সিরিজে কাদের এগিয়ে রাখবেন? ‘‘অবশ্যই ভারত। দেশের মাটিতে ওরা ভয়ঙ্কর। ভারতের এই দলকে হারানো খুবই কঠিন। অনেক বছর ধরেই ভারতকে দেশের মাটিতে হারানো কঠিন হয়ে গিয়েছে।’’

সদ্য সমাপ্ত অ্যাশেজে স্মিথের ব্যাটিংয়েও মুগ্ধ সৌরভ। সিরিজে এক ম্যাচ কম খেলে ৭৭৪ রান করেছেন স্মিথ। তিনি স্পর্শ করেছেন সুনীল গাওস্করকে। ১৯৭১ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজে অভিষেক টেস্ট সিরিজে ৭৭৪ রান করেছিলেন কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান। সৌরভের কথায়, ‘‘৬৮ টেস্টে যে ২৬টি সেঞ্চুরি করেছে, তাকে নিয়ে আমি আর কী বলব। ওর রেকর্ডই সব বলে দিচ্ছে। অসাধারণ।’’