চার দেশের প্রতিযোগিতা শেষ। এ বার আসল বিশ্বকাপ শুরু হবে! শেষ আটে ওঠার পরে মজা করে বলে দিলেন ভারতীয় হকি দলের কোচ হরেন্দ্র সিংহ।

লিগ পর্বের শেষ ম্যাচে কানাডাকে ৫-১ উড়িয়ে বিশ্বকাপে সরাসরি কোয়ার্টার ফাইনালে পৌছে গিয়েছেন মনপ্রীত সিংহরা। তাঁরা কোয়ার্টার ফাইনালে নামছে বৃহস্পতিবার। ৪৩ বছর পরে ভারতের বিশ্বকাপ জয়ের আশায় সারা দেশ যখন আশায় বুক বেঁধে বসে আছে। কিংবদন্তি অমিতাভ বচ্চন থেকে সচিন তেন্ডুলকর সোশ্যাল মিডিয়ায় যখন অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা বার্তা দিয়েছেন। সেখানে ভারতীয় দলের কোচের কপালে ভাঁজ দেখা যাচ্ছে। 

ভারতের প্রতিপক্ষ হিসেবে কোয়ার্টার ফাইনালে কারা খেলবে, তা অনেকটাই পরিষ্কার হয়ে গেল রবিবার। পাকিস্তানকে ৫-১ গোলে হারিয়ে গ্রুপ ‘ডি’-র দ্বিতীয় দল হিসেবে ক্রসওভার পর্বে প্রবেশ করেছে ডাচেরা। ক্রসওভার পর্বে নেদারল্যান্ডসের প্রতিপক্ষ সেই কানাডা, যাদের ৫-১ হারিয়ে শেষ আটের রাস্তা পাকা করেছিল ভারত। তাই বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, শেষ আটে ভারতের প্রতিপক্ষ হতে পারে নেদারল্যান্ডসই। মঙ্গলবারই ক্রসওভারের ম্যাচে ঠিক হয়ে যাবে ভারতের পরবর্তী প্রতিপক্ষ।

শেষ আটে প্রতিপক্ষ ডাচেদের কথা ভেবেই বোধহয় উদ্বেগ যাচ্ছে না হরেন্দ্রর। পরিষ্কার বলে দিলেন, ‘‘যে ভাবে আমরা কানাডাকে হারালাম তাতে আমি খুশি। কিন্তু যতটা খুশি হওয়ার কথা ততটা নই।’’ আসলে নেদারল্যান্ডসের বিরুদ্ধে লড়াইটা যে মোটেই সোজা  হবে না, তা আন্দাজ করতে পারছেন তিনি। বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে ভারতের ঠিক আগে, চতুর্থ স্থানে আছে নেদারল্যান্ডস। আগের ম্যাচেই জার্মানির কাছে হারা সত্ত্বেও রবিবার ডাচেরা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে যে দাপট দেখালেন, তা দেখেই বোধহয় হরেন্দ্র সিংহের কপালে ভাঁজ পড়ছে। শনিবার কানাডার বিরুদ্ধে গোল হজম করা, তৃতীয় কোয়ার্টারে গোল শোধের পরিস্থিতি তৈরি করে ভারতকে তাদের পাল্টা চাপে ফেলা— এ সবই যে নক-আউট পর্বে যাত্রা শুরুর আগে হরেন্দ্রর উদ্বেগের কারণ তাও স্পষ্ট করেছেন। কানাডা ম্যাচের বিশ্লেষণ করতে বসে তাঁর কথা, ‘‘প্রথমার্ধে আমার ছেলেরা দৌড়লো কোথায়? তা ছাড়া গোল করার ব্যাপারেও বড্ড তাড়াহুড়ো করছিল ওরা। এই ছেলেমানুষি ওদের বন্ধ করতে হবে।’’

কানাডার কাছে একটাও গোল না খাওয়া ছিল হরেন্দ্রর লক্ষ্য। সেটা না হওয়ায় কোচ বেশ হতাশ। বললেন, ‘‘গোল খেয়ে গেলাম। খুব খারাপ লেগেছে তাই। একটা গোল হজম করা মানে বিপক্ষ দলের বাড়তি উৎসাহ পেয়ে যাওয়া। আর এই ম্যাচটায় গোল না খেয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলতে পারলে এমনিই আমাদের প্রতিপক্ষ চাপে পড়ে যেত।’’ সঙ্গে অবশ্য যোগ করেছেন, ‘‘এই দলের আরও ভাল খেলার ক্ষমতা আছে। তাই আমি আত্মবিশ্বাসী। গত ৪-৫ বছর ধরে দলের প্রস্তুতি চলছে। লক্ষ্যে পৌঁছনোর সম্ভাবনা আমাদের আছে।’’

এ দিকে, ভারতের জন্য খারাপ খবর, অধিনায়ক মনপ্রীত সিংহের গলায় সংক্রমণ হয়েছে। সঙ্গে জ্বরও। তবে কোয়ার্টার ফাইনালে সুস্থ তরতাজা মনপ্রীতকে পাওয়া যাবে বলেই কোচের ধারণা। বলেছেন, ‘‘কাশি আর গলা ব্যথায় ভুগছে ছেলেটা। ওকে পুরো ম্যাচে ব্যবহারও করতে পারিনি। মনপ্রীত সুস্থ হয়ে গেলে এই সমস্যা থাকবে না।’’