আইসিসি উইমেন্স চ্যাম্পিয়নশিপে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দ্বিপাক্ষিক সিরিজে ভারত খেলবে কি না তা সম্পূর্ণ নির্ভর করছে ভারতীয় বোর্ডের সিদ্ধান্তের উপর। বুধবার তা জানিয়ে দিলেন কিংবদন্তি পেসার ঝুলন গোস্বামী। 

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে দ্বিপাক্ষিক সিরিজে ইতিমধ্যেই ২-০ এগিয়ে রয়েছে ভারত। বৃহস্পতিবার সিরিজের তৃতীয় ম্যাচ। যে সিরিজ আইসিসি উইমেন্স চ্যাম্পিয়নশিপের আওতায় পড়ছে। এই প্রতিযোগিতায় যে দল ভাল পয়েন্ট সংগ্রহ করতে পারবে, তারা সরাসরি সুযোগ পাবে ২০২১ ক্রিকেট বিশ্বকাপে। যারা পারবে না, তাদের যোগ্যতা অর্জন পর্বের ম্যাচ খেলে ছাড়পত্র পেতে হবে। 

গত বার পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলতে রাজি হয়নি ভারত। সিরিজের পুরো পয়েন্ট পেয়েছিল পাকিস্তান। তাই শ্রীলঙ্কায় যোগ্যতা অর্জন পর্বে নিজেদের প্রমাণ করে বিশ্বকাপ খেলতে হয়েছিল মিতালি রাজদের। এখনও পর্যন্ত সূচি অনুযায়ী পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ নেই ভারতের। কিন্তু ভবিষ্যতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সিরিজ পড়তেই পারে। সে ক্ষেত্রে কী করবেন ঝুলনেরা? ভারতীয় পেসারের উত্তর, ‘‘আমরা এখনও জানি না আদৌ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আমাদের খেলতে হবে কি না। যদি সে রকম সূচি থাকে, তা হলে বোর্ড যা সিদ্ধান্ত নেবে সেই অনুযায়ী এগোব।’’ 

ঝুলন যদিও জানিয়ে গিয়েছেন, তাদের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর বিরুদ্ধে যখনই ম্যাচ হোক, তাঁরা ইতিবাচক মনোভাব নিয়েই মাঠে নামবেন। ‘‘যার বিরুদ্ধেই খেলি না কেন, প্রত্যেক ম্যাচই আমাদের কাছে সমান গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে নামতে হবে। এব‌ং ভাল ক্রিকেট উপহার দিতে হবে।’’ গত ম্যাচেই ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে চার উইকেট নিয়ে ম্যাচের সেরা হয়েছেন ঝুলন। শেষ কয়েকটি ওয়ান ডে সিরিজে দুরন্ত বোলিং করছেন তিনি। ভারতীয় পেসার জানিয়েছেন, দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকেই তাঁর বোলিংয়ে ছন্দ ফিরেছে। ঝুলনের কথায়, ‘‘দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে আমি ভাল বল করেছিলাম। সেই ছন্দই ধরে রেখেছিলাম ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে নাগপুরে। শ্রীলঙ্কায় গিয়েও ছন্দ হারাইনি। নিউজ়িল্যান্ড সফরেও খারাপ বল করিনি। ছন্দটা যে ধরে রাখতে পেরেছি সেটাই ভাল লাগছে।’’

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম ওয়ান ডে ম্যাচে ব্যাট হাতেও গুরুত্বপূর্ণ ৩০টি রান করেন ঝুলন। তাঁর জন্য ২০০ রানের গণ্ডি পেরোয় ভারত। ঝুলন তাঁর ব্যাটিংয়ে উন্নতির জন্য কৃতিত্ব দিচ্ছেন দলের কোচ ডব্লিউ ভি রামনকে। বলছিলেন, ‘‘রামন স্যর প্রথম দিন থেকে নিয়মিত নেটে ব্যাট করতে দিয়েছেন। সব সময়ে বলেছেন, ব্যাটিংয়ের উপরে নজর দাও। কারণ, স্লগ ওভারে দ্রুত রান তোলার মতো একজন প্রয়োজন। স্যর যে আমার উপর এই বিশ্বাস রেখেছেন, তার জন্য ওঁকে ধন্যবাদ জানাতে চাই।’’ ভারতীয় কোচের সঙ্গে ক্রিকেটের পাশাপাশি মানসিকতা নিয়েও চর্চা করেন ঝুলন। বলছিলেন, ‘‘মাঠের বাইরে থেকে সব সময় তিনি আমাদের দেখছেন। তাই বুঝতে পারছেন খেলার পাশাপাশি মানসিকতার প্রয়োজন কতটা। সে জন্যই তাঁর সঙ্গে মানসিকতা নিয়ে আলোচনা করার চেষ্টা করি।’’

বর্তমানে শুধুমাত্র একটি ফর্ম্যাটেই খেলছেন ঝুলন। গত বছরই টি-টোয়েন্টি থেকে অবসর নিয়েছেন। তাই আগের থেকে এখন অনেক বেশি সময় পাচ্ছেন তিনি। ঝুলন বলে গেলেন, ‘‘প্রস্তুতির সময়ও আমার কাছে এখন অনেক বেশি।’’