আইপিএল শেষ হওয়ার পরে কিছু দিন বিশ্রামে ছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটারেরা। অধিনায়ক বিরাট কোহালি, সহ-অধিনায়ক রোহিত শর্মার মতো কেউ কেউ পরিবার নিয়ে চলে গিয়েছিলেন ছুটি কাটাতে। এখন আবার তাঁরা ধীরে ধীরে নেমে পড়ছেন চূড়ান্ত লক্ষ্যের প্রস্তুতিতে। শনিবার রাতে গোয়া থেকে মুম্বই ফিরেছেন কোহালি, অনুষ্কা শর্মা।

রবিবার ভারতীয় দলের বেশ কয়েক জন ক্রিকেটার টুইট করেছেন নিজেদের ছবি। সেখানে তাঁদের বক্তব্যের সুর এক: মিশন বিশ্বকাপের প্রস্তুতি শুরু এ বার। রোহিত যেমন মলদ্বীপের সমুদ্র সৈকতে নীল টি-শার্ট পরে ছবি টুইট করে লিখেছেন, ‘‘এই নীল পরে লক্ষ্যপূরণ করতে পারলাম। এ বার অন্য একটি নীল জার্সি পরে আর একটা অভিযানে নামব। আশা করি, সেখানেও লক্ষ্যটা পূরণ হবে।’’ 

অধিনায়ক কোহালির দুই অস্ত্র, বুমরা এবং হার্দিকের পোস্ট করা ছবি থেকে পরিষ্কার, দু’জনেই নেমে পড়েছেন ফিটনেস ঠিক রাখতে। টুইটারে হার্দিক যে ভিডিয়ো পোস্ট করেছেন, তাতে দেখা যাচ্ছে তিনি ওয়েট লিফটিংয়ে মগ্ন। জোর দিচ্ছেন কাঁধ আর পায়ের পেশি মজবুত করতে। যে ব্যায়ামের ভিডিয়ো পোস্ট করে হার্দিক লেখেন, ‘‘বিশ্বকাপ যখন কাছে এসে পড়েছে, তখন কোনও বিশ্রাম নয়।’’ জিমে নিজের ছবি পোস্ট করে বুমরা লিখেছেন, ‘‘কঠোর পরিশ্রমের কোনও বিকল্প হয় না।’’ একই রকম ভাবে জিম করার ছবি পোস্ট করেছেন কে এল রাহুলও। 

ইংল্যান্ডের মাটিতে বিশ্বকাপ শুরু হচ্ছে ৩০ মে থেকে। ভারতের প্রথম ম্যাচ ৫ জুন, দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে। সেই ১৯৯২ সালের পরে এ বারে আবার রাউন্ড রবিন লিগে হচ্ছে বিশ্বকাপ। অর্থাৎ প্রতিটা দলকে খেলতে হবে একে অপরের বিরুদ্ধে। এ বারের বিশ্বকাপে ভারত শুরু করছে ফেভারিট হিসেবে। ইংল্যান্ডের প্রাক্তন অধিনায়ক নাসের হুসেন ইতিমধ্যেই বাকি দলগুলোকে সতর্ক করে দিয়েছেন ভারত নিয়ে। ইংল্যান্ডের প্রচারমাধ্যমে হুসেন বলেছেন, ‘‘ভারতের সব দিক মজবুত। ওদের কাছে বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান বিরাট কোহালি আছে। এ ছাড়া আছে রোহিত শর্মা। যে কি না সর্বকালের সেরা ওয়ান ডে দলে ঢুকে যেতে পারবে। তা ছাড়া মহেন্দ্র সিংহ ধোনির মতো এক জন ফিনিশারও আছে।’’ হুসেন আরও বলেন, ‘‘ভারতের বোলিংও যথেষ্ট শক্তিশালী। বুমরা আছে, ভুবনেশ্বর কুমার আছে। এ ছাড়া ওদের হাতে ভাল স্পিনারও রয়েছে। ভারতকে এখন আর একমুখী দল বলা যাবে না। সবাইকে কিন্তু ভারত নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে।’’

ভারতের প্রাক্তন কোচ লালচাঁদ রাজপুত আবার বলেছেন, বিশ্বকাপে ভারতই সেরা বোলিং আক্রমণ নিয়ে যাচ্ছে। মুম্বইয়ে রবিবার রাজপুত বলেন, ‘‘আমাদের দলের ভারসাম্যটা খুব ভাল। সেরা বোলিং আক্রমণ নিয়ে বিশ্বকাপে যাচ্ছে ভারত। হাতে ভাল অলরাউন্ডারও আছে।’’ 

ধোনির উপস্থিতিও যে ভারতকে এগিয়ে রাখছে, তা জানিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রাক্তন অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাকালাম। তিনি বলেছেন, ‘‘ধোনির মাথায় সব সময় একটা নীল নকশা ছকা থাকে। যখনই ব্যাট করতে আসে, তখনই বিপক্ষকে চাপে ফেলে দিতে পারে ধোনি।’’ একই কথা শোনা যাচ্ছে ইংল্যান্ডের প্রাক্তন ব্যাটসম্যান কেভিন পিটারসেনের গলায়। কেপি মনে করেন,  সদ্য সমাপ্ত আইপিএলে পুনর্জন্ম ঘটেছে ধোনির।