ফের আম্পায়ারিং নিয়ে বিতর্ক আইপিএলে। শনিবার কিংস ইলেভেন পঞ্জাব বনাম মুম্বই ইন্ডিয়ান্স ম্যাচের প্রথম ওভারেই ছয় বলের বদলে সাত বল করতে দিলেন আম্পায়ার। 

মোহালিতে পঞ্জাবের প্রথম ‘হোম ম্যাচে’ টস জিতে বল করার সিদ্ধান্ত নেন কিংস অধিনায়ক অশ্বিন। রোহিত শর্মাদের বিরুদ্ধে প্রথম ওভারেই বল করতে আসেন অশ্বিন। ছয় বলে তিন রান হওয়ার পরেও ওভার শেষ হল না। বরং অশ্বিনকে দেখা যায় রান-আপে ফিরে যেতে। সাত নম্বর বলে কুইন্টন ডি’কক চার মেরে ওভার শেষ করেন।

চলতি সপ্তাহেই রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর বনাম মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের ম্যাচে শেষ বলে ‘নো-বল’ না দেওয়ায় ম্যাচ হারেন বিরাট কোহালিরা। রিপ্লেতে দেখা যায় ক্রিজের অনেকটা বাইরে ছিল লাসিথ মালিঙ্গার পা। কিন্তু আম্পায়ার এস রবি তা ধরতে পারেননি। এমনকি, টিভি আম্পায়ারের সাহায্যও তিনি নেননি। ম্যাচ শেষে ক্ষুব্ধ কোহালি বলেছিলেন, ‘‘ক্লাব ক্রিকেট খেলছি না। এটা আইপিএল।’’

এ দিন যদিও সাত বলের মাশুল দিতে হয়নি অশ্বিনকে। মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে আট উইকেটে জেতে তাঁর দল। ২০ ওভারে সাত উইকেট হারিয়ে ১৭৬ রান করে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। জবাবে আট উইকেট বাকি থাকতেই ম্যাচ জেতে পঞ্জাব। ৫৭ বলে অপরাজিত ৭১ করেন ওপেনার কে এল রাহুল। ২১ বলে ৪৩ রান করে ম্যাচের সেরা মায়াঙ্ক আগরওয়াল। এ দিনও রান পেলেন ক্রিস গেল। ২৪ বলে তিনি করেন ৪০ রান। তিনটি চার ও চারটি ছক্কা মারেন তিনি। আইপিএলে ৩০০ ছক্কার রেকর্ডও গড়ে ফেলেন ক্যারিবিয়ান তারকা। আর গেলদের দাপট গ্যালারিতে বসে দেখলেন প্রীতি জিন্টা। তিনিই হয়ে ওঠেন সেরা আকর্ষণ। গেল ছাড়া এখনও পর্যন্ত কোনও ব্যাটসম্যান ২০০টি ছয়ের গণ্ডিও পেরোতে পারেননি। সেখানের গেলের ছয়ের সংখ্যা ৩০২। তার পরেই রয়েছেন এ বি ডিভিলিয়ার্স। ১৯২টি ছয় মেরেছেন তিনি। 

ম্যাচটি মুম্বই হারলেও মন জিতে নিলেন ক্রুণাল পাণ্ড্য। মাঁকড়ীয় আউট করার জন্য বিতর্কে জড়িয়েছিলেন অশ্বিন। তাঁর দলেরই মায়াঙ্ক আগরওয়ালকে মাঁকড়ীয় আউট করার সুযোগ পেয়েও তা না করে সতর্ক করে দেন ক্রুণাল। সেই দৃশ্য কি দেখলেন পঞ্জাব অধিনায়ক অশ্বিন?