সিএবি প্রেসিডেন্ট এবং আইপিএলে দিল্লি ক্যাপিটালসের উপদেষ্টা সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে নিয়ে স্বার্থ সঙ্ঘাতের যে প্রশ্ন উঠেছিল, তার শুনানি হল শনিবার। শুনানির পরে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের অম্বাডসমান বিচারপতি (অবসরপ্রাপ্ত) ডি কে জৈন সৌরভ ও তিন অভিযোগকারী— দু’পক্ষকেই তাঁদের বক্তব্য লিখিত ভাবে জানাতে বলেছেন। 

প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক ও সিএবি প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় দিল্লি ক্যাপিটালসের উপদেষ্টা হওয়ায় স্বার্থ সঙ্ঘাত ঘটছে বলে অভিযোগ জানিয়েছিলেন বাংলার তিন ক্রিকেটপ্রেমী। এ দিন নয়াদিল্লিতে বোর্ডের অম্বাডসমানের কাছে শুনানি চলে প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা। এই সময়ের মধ্যে তিনি সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী বিশ্বনাথ চট্টোপাধ্যায়, অন্যতম অভিযোগকারী রঞ্জিত শীল ও সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বক্তব্য শোনেন। পরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘‘দু’পক্ষ ও বোর্ডের বক্তব্য শুনেছি। খুব দ্রুতই এ ব্যাপারে রায় দেওয়া হবে।’’ সঙ্গে যোগ করেন, ‘‘শুনানি শেষ হলেও আইনি নিয়ম অনুযায়ী, দু’পক্ষকেই রায়দানের আগে লিখিত বক্তব্য জানাতে বলা হয়েছে।’’ এ দিন সৌরভ নির্দিষ্ট সময়ে হাজির হন অম্বাডসমানের কাছে। পরে বলে যান, ‘‘বৈঠক ভালই হয়েছে।’’

এ ছাড়াও, টিভি চ্যানেলের ‘টক শো’-তে গিয়ে মহিলাদের সম্পর্কে বিতর্কিত মন্তব্য করায় দুই ভারতীয় ক্রিকেটার হার্দিক পাণ্ড্য ও কে এল রাহুলকে মাথাপিছু ২০ লক্ষ টাকা করে এ দিন জরিমানা করেন অম্বাডসমান। যা এই দুই ক্রিকেটারকে দিতে হবে আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে।