বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শেষ মুহূর্তে খোলস ছেড়ে বেরিয়ে এসেছে মহেন্দ্র সিংহ ধোনির চেন্নাই সুপার কিংস।

শুক্রবার দিল্লি ক্যাপিটালসের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে ফ্যাফ ডুপ্লেসি এবং শেন ওয়াটসনের ব্যাটিং দেখার পরে অনেকেই মনে করছেন, আজ ফাইনালে মুম্বইকে চাপে রাখতে পারেন দুই ওপেনার।

ডুপ্লেসি নিজেও মনে করছেন, সঠিক সময়েই ছন্দ ফিরে পেয়েছেন। বলেছেন, ‘‘বেশ কয়েকটা ম্যাচে রান না পেয়ে নিজের উপর বিরক্ত হয়ে পড়েছিলাম। তবে জানতাম, বড় রান পাওয়াটা সময়ের অপেক্ষা। দিল্লির বিরুদ্ধে ৩৯ বলে ৫০ রান আমার হারিয়ে যাওয়া আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে দিয়েছে। মনে হচ্ছে, ফাইনালেও ভাল একটা ইনিংস খেলতে পারব।’’

আরও পড়ুন: শেষ যুদ্ধে জিততে আজ কোন ১১ জন যোদ্ধাকে নামাতে পারেন ক্যাপ্টেন কুল

সেখানেই থামছেন না ডুপ্লেসি। মেনে নিয়েছেন, উল্টো প্রান্তে থাকা প্রাক্তন অস্ট্রেলীয় তারকা শেন ওয়াটসনের উপস্থিতি তাঁকে চাঙ্গা করে দিয়েছিল। তিনি বলেছেন, ‘‘দিল্লি ম্যাচ খেলতে নামার আগে আমার সঙ্গে ওয়াটোর ব্যাটিং নিয়ে অনেক ধরনের কথাবার্তা হয়েছিল। আমাদের দু’জনেরই মনে হয়েছিল, প্রথম ছয় ওভারকে যে ভাবেই হোক কাজে লাগাতে হবে। সেটা হলেই পরের দিকের ব্যাটসম্যাদের উপর চাপ কমে যাবে। সেই নীতি মেনেই  ব্যাটিং করেছি।’’ 

একই সুর শোনা গিয়েছে ওয়াটসনের গলাতেও। তিনি বলেছেন, ‘‘আমি শুরুতে বেশ চাপের মধ্যে ছিলাম। কিন্তু চাপটা কেটে গিয়েছিল ডুপ্লেসির ব্যাটিংয়ে। ও যে ভাবে ঝোড়ো ব্যাটিং শুরু করেছিল, সেটা দেখে আমার মনে হয়েছিল, নিজের স্বাভাবিক ক্রিকেট খেলতে পারলে বড় রান পেতে পারি।’’ তারই সঙ্গে প্রাক্তন অস্ট্রেলীয় অলরাউন্ডার আরও একবার কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন সিএসকে অধিনায়ক ধোনিকে। তিনি বলেছেন, ‘‘আমি সে ভাবে এ বার ভাল খেলতেই পারিনি আইপিএলে। কিন্তু ধোনি যে ভাবে আমার উপর আস্থা রেখেছে, তাতে আমি আপ্লুত। শেষ ম্যাচেও বড় ইনিংস খেলে সিএসকেকে ট্রফি তুলে দিতে চাই।’’

চলতি আইপিএলে ‘ড্যাডিস টিম’ নামে পরিচিত চেন্নাই সুপার কিংসের দুই অভিজ্ঞ ওপেনারের প্রতি আস্থা রাখছেন কোচ স্টিভন ফ্লেমিংও। সিএসকে ওয়েবসাইটে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ফ্লেমিং বলেছেন, ‘‘আমি বরাবর অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের প্রাধান্য দিয়ে থাকি। বড় মঞ্চে কী ভীবে নিজেদের মেলে ধরতে হয়, সেটা একজন অভিজ্ঞ ক্রিকেটারই ভাল জানেন। ডুপ্লেসি এবং ওয়াটসনের পাশে আমরা বরাবর ছিলাম। আশা করব, ফাইনালেও ওরা এই মেজাজ ধরে রাখতে পারবে। ফাইনালে নিখুঁত ক্রিকেট খেলতে হবে আমাদের।’’