• কৃষ্ণমাচারী শ্রীকান্ত
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

একটু হলেও এগিয়ে চাপমুক্ত হায়দরাবাদই

Rashid Khan
ভরসা: রশিদের স্পিনের সামনে আজ পরীক্ষা দিল্লির। ফাইল চিত্র

Advertisement

আইপিএল শুরুর আগে কেউ যদি সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে বলত, তোমরা ১২ পয়েন্ট নিয়ে প্লে-অফে যেতে পারবে, তা হলে ওদের মনোভাব কী রকম হত? যাই হোক, ১২ পয়েন্ট নিয়ে প্লে-অফে যাওয়ার পরে ওরা নিশ্চয়ই ভাগ্যকে ধন্যবাদ দিচ্ছে। কিন্তু প্লে-অফে উঠে যাওয়ার পরে হায়দরাবাদ পুরোপুরি চাপমুক্ত অবস্থায় খেলতে পারবে। এই রকম পরিস্থিতিতেই একটা দল খুব বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে। 

এই নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই যে, এ বারের আইপিএলে সব চেয়ে বেশি উন্নতি করেছে যে দলটা, তার নাম দিল্লি ক্যাপিটালস। কিন্তু তাও আমি বলব, আজ, বুধবারের এলিমিনেটরে হায়দরাবাদই ফেভারিট। যার অন্যতম কারণ, বিশাখাপত্তনমের পিচটা দিল্লির চেয়ে হায়দরাবাদের ক্রিকেটারেরা বেশি চেনে। ওরা এখানে প্রচুর ম্যাচ খেলেছে। জানে, এই উইকেট কী রকম আচরণ করবে। 

অন্য দিকে, কাগিসো রাবাডা দেশে ফিরে যাওয়ায় দিল্লির সমস্যা হয়ে যেতে পারে ওদের পেস আক্রমণ। আইপিএল জুড়ে ঠিক সময় উইকেট তুলে বিপক্ষের উপরে চাপ তৈরি করে গিয়েছিল রাবাডা। ও থাকায় দলের বাকি বোলারদেরও শক্তিশালী দেখিয়েছে। এও দেখার, দিল্লির ব্যাটসম্যানরা কী ভাবে হায়দরাবাদের বোলিং আক্রমণ সামলায়। দিল্লির ওপেনাররা ভাল খেললেও ওদের মিডল অর্ডার ব্যাটিং সমস্যা তৈরি করছে। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে, সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দিল্লির মিডল অর্ডার ব্যাটিং ভেঙে পড়েছে। 

হায়দরাবাদ-দিল্লি ম্যাচে টসটা কিন্তু খুব গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। হায়দরাবাদ যদি প্রথমে ব্যাট করে স্কোরবোর্ডে একটা ভাল রান তুলে দেয়, তা হলে কিন্তু চাপে পড়ে যাবে দিল্লি। দুটো ব্যাপার দিল্লির বিপক্ষে যেতে পারে। এক, নক-আউট ম্যাচের চাপ। দুই, দিল্লির রান তাড়া করার ইতিহাস। 

এই ম্যাচের ভাগ্য ঠিক করে দিতে পারে ছোট, ছোট কিছু দ্বৈরথ। যেমন দিল্লির ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের সঙ্গে চতুর এবং ধারাবাহিক ভাল খেলে আসা আফগানিস্তানের দুই স্পিনার—রশিদ খান এবং মহম্মহ নবির লড়াই। দিল্লির ব্যাটসম্যানরা হায়দরাবাদের বোলিং কী ভাবে সামলায়, তার উপরও ঠিক হতে পারে ম্যাচের ভাগ্য। 

দুটো দল দু’ধরনের রাস্তায় হেঁটে প্লে-অফে পৌঁছেছে। কিন্তু তা হলেও এই লড়াইটা উত্তেজক হবে বলেই মনে হয়। দুটো দলের ভারসাম্য মাথায় রেখে বিচার করতে হলে আমি হায়দরাবাদকেই একটু এগিয়ে রাখব। এই ম্যাচটা শ্রেয়স আইয়ারের অধিনায়কত্বেরও পরীক্ষা নেবে। কী ভাবে ও নিজের দলকে চালায়, সেটাও ম্যাচের ভাগ্য ঠিক করে দিতে পারে।

প্লে-অফে যে এই দুটো দলের দেখা হবে, তা বোধ হয় খুব বেশি লোক ভাবতে পারেননি। সে জন্যই এই লড়াইটা আরও আকর্ষণীয় হতে চলেছে। একটা ভাল উইকেটে দুটো সম্পূর্ণ বিপরীতধর্মী দলের ম্যাচ। আর কী চাই। (টিসিএম) 

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন