ঘরের মাঠে রাজস্থান রয়্যালসকে হারিয়ে লিগ টেবিলে চার নম্বরে উঠে এল কিংস ইলেভেন পঞ্জাব ৯ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট)। যার ফলে কলকাতা নাইট রাইডার্স (৮ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট) নেমে গেল পাঁচ নম্বরে। 

পঞ্চাবের এই জয়ের পিছনে রয়েছে দলগত প্রচেষ্টা। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে আর অশ্বিনের দল তোলে ছয় উইকেটে ১৮২ রান। এর পরে রাজস্থানকে তারা আটকে রাখে সাত উইকেটে ১৬৮ রানে। দু’টো করে উইকেট পান নবাগত অর্শদীপ সিংহ, অশ্বিন এবং মহম্মদ শামি। রাজস্থানের সর্বোচ্চ রান রাহুল ত্রিপাঠীর (৫০)। এই দুই দলের শেষ লড়াইয়ে বাটলারকে করা অশ্বিনের ‘মাঁকড়ীয় আউট’ নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে উঠেছিল। এই ম্যাচে কোনও বিতর্ক না হলেও হাসি থাকল সেই অশ্বিনদের মুখেই। 

মোহালিতে অবশ্য বড় রান পেলেন না ক্রিস গেল। শুরুটা করেছিলেন সেই আগ্রাসী মেজাজেই। ঝড়ের গতিতে ২২ বলে ৩০ রান করেন ক্যারবিয়ান ওপেনার। তিনটে ছয়ও মারেন। তার পরেই অবশ্য আউট হয়ে যান গেল। 

গেল বড় রান না পেলেও পঞ্জাবকে টানলেন কে এল রাহুল। গত কালই বিশ্বকাপ দলে জায়গা পেয়েছেন এই ব্যাটসম্যান। এ বারের আইপিএলে দারুণ ছন্দে আছেন তিনি। মঙ্গলবারও ৪৭ বলে ৫২ করে গেলেন। শেষ ওভারে ব্যাট করতে নেমে চার বলে অপরাজিত ১৭ রান করে গেলেন অশ্বিন। শেষ ওভারে ১৮ রান তুলে ভাল জায়গায় চলে যায় পঞ্জাব।  

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

রাজস্থান এই ম্যাচে বাদ দেয় অস্ট্রেলিয়ার স্টিভ স্মিথকে। অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ দলে গত কালই সুযোগ পেয়েছেন স্মিথ। কিন্তু তাঁর ওপর আস্থা রাখতে পারল না রাজস্থান। স্মিথের জায়গায় এই ম্যাচে রাজস্থান খেলায় অস্ট্রেলিয়ারই অ্যাশটন টার্নারকে। যে টার্নার ভারতের বিরুদ্ধে একাই একটি ওয়ান ডে জিতিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়াকে। এই ম্যাচে অবশ্য তিনি প্রথম বলেই আউট হয়ে যান।  

রাজস্থানের সেরা বোলার অবশ্যই জোফ্রা আর্চার। চার ওভারে ১৫ রান দিয়ে তিন উইকেট তুলে নেন তিনি। যে তিন শিকারের মধ্যে রয়েছে গেলের উইকেটও। বিশ্বকাপে এই আর্চারকে ইংল্যান্ড তাদের দলে রাখে কি না, সেটাই দেখার। আর্চারের জন্ম বার্বেডোজে। তাঁর বাবা ব্রিটিশ। আর্চারেরও ব্রিটিশ পাসপোর্ট রয়েছে। এই বছরের শুরুর দিকেই ইংল্যান্ডের হয়ে খেলার ছাড়পত্র পেয়েছেন আর্চার। আজ, বুধবার ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ দল ঘোষণা হবে। সেখানে আর্চারকে রাখা ঠিক হবে কি না, তা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে। ইংল্যান্ড অলরাউন্ডার ক্রিস ওকস মনে করেন, এত দিন ধরে যাঁরা ইংল্যান্ডের হয়ে খেলছে, তাঁদের কাউকে বাদ দিয়ে জোফ্রাকে নেওয়া ঠিক হবে না।   

ম্যাচের সেরা অশ্বিন বলেন, ‘‘এই জয়টা খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। প্লে অফে ওঠার দৌড় এখন জমে উঠেছে।’’ এই ম্যাচে খেলার কথা ছিল না ডেভিড মিলারের। কিন্তু শেষ মুহূর্তে পায়ে চোট পেয়ে ছিটকে যান মোয়েস এনরিকে। যে কারণে দলে সুযোগ পান মিলার। যে সুযোগ কাজে লাগিয়ে ২৭ বলে ৪০ করেন তিনি।