সোয়াই মান সিংহ স্টেডিয়ামে বিতর্কিত সেই ‘মাঁকড়ীয় আউটের’ পরে পেরিয়ে গিয়েছে তিন সপ্তাহ। কিন্তু আলোচনাটা রয়েই গিয়েছে। আজ, মঙ্গলবার মোহালিতে আবার মুখোমুখি হতে চলেছেন আর অশ্বিন এবং জস বাটলার। আবারও কি দেখা যেতে পারে সেই দৃশ্য?

সোমবার সাংবাদিক সম্মেলনে প্রশ্ন উড়ে এসেছিল শ্রেয়স গোপালের দিকে। রাজস্থান রয়্যালস দলের স্পিনারের সাফ জবাব, ‘‘অবশ্যই এই ব্যাপারে আমাদের এ বার বাড়তি সতর্ক থাকতে হবে। আমরা লক্ষ্য করে দেখেছি, অন্য দলের ব্যাটসম্যানেরা কিন্তু এই জায়গাতে সচেতন থাকছে। আমরা চাই না, সেই ঘটনার এ বারও পুনরাবৃত্তি হোক।’’ তিনি আরও বলেছেন, ‘‘ওই ঘটনা নিয়ে আমরা কেউ আর ভাবতে চাই না। মোহালিতে ফিরতি লড়াইটা হবে শূন্য থেকে।’’

এই মুহূর্তে পয়েন্ট টেবলে পাঁচ নম্বরে রয়েছে কিংস ইলেভেন পঞ্জাব। সাত নম্বরে রাজস্থান রয়্যালস। ফলে প্লে অফে খেলা নিশ্চিত করতে হলে মঙ্গলবার জয় প্রয়োজনীয় হয়ে পড়েছে পঞ্জাবের কাছে। সোমবারই বিশ্বকাপের দলে ডাক পাওয়া পঞ্জাব দলের ওপেনার কে এল রাহুল বলেছেন, ‘‘আমাদের বোলারদের আরও একটু সতর্ক থাকতে হবে। শেষ ম্যাচের প্রেক্ষিতে বলতে পারি, ডেথ ওভারে আমাদের বোলিংটা কার্যকরী ছিল না। সেটাই কিন্তু আরসিবিকে ম্যাচ জেতার রাস্তা তৈরি করে দিয়েছিল। এ বার কিন্তু সেই ভুল করা যাবে না।’’

একই সুর শোনা গিয়েছে অধিনায়ক আর অশ্বিনের গলাতেও। তিনি বলেছেন, ‘‘আগের ম্যাচ হারতে হয়েছে নিজেদের ভুলে। শুধু বাজে বোলিংই নয়। আমাদের ফিল্ডিংও মোটেও উচ্চমানের ছিল না। এই দুটো ব্যাপারে আমাদের সাবধানী থখাকতে হবে। এই পরিস্থিতিতে আর একটা হারে আমাদের প্লে অফে খেলার সম্ভাবনা ক্ষীণ হয়ে যেতে পারে। সেটা কোনও ভাবেই হতে দেওয়া যাবে না।’’ যোগ করেছেন, ‘‘রাজস্থান শেষ দুটো ম্যাচে খুব ভাল ক্রিকেট খেলেছে। ওদের উপেক্ষা করার প্রশ্ন ওঠেই না।’’

রাজস্থান শিবির আবার তাকিয়ে জোফ্রা আর্চারের দিকে। এই ক্যারিবিয়ান পেসার ক্রমশ ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছেন। গোপাল বলেছেন, ‘‘জোফ্রা প্রচণ্ড গতিতে বল করে। আমাদের বিশ্বাস, মোহালির উইকেট থেকে ও সাহায্য পাবে। সেটাকে কাজে লাগাতে হবে।’’