স্পেনীয় কোচ আন্তোনিয়ো লোপেজ হাবাসের কোচিংয়ে ফের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার রাস্তা খুঁজে পেতে চাইছে এটিকে।

পাহাড়ের দল নিয়ে ইন্ডিয়ান সুপার লিগের অন্যতম সফল কোচ নেদারল্যান্ডসের এলকো সতৌরির হাত ধরে তিন বছর পরে আবার কোচির স্টেডিয়ামে উচ্ছ্বাসের ঢেউ ফেরাতে চায় কেরল ব্লাস্টার্স।

দু’বছর আগে এই ম্যাচ ঘিরে একটা অন্য উন্মাদনা দেখা যেত ফুটবলপ্রেমীদের মধ্যে। কারণ লড়াইটাকে কলকাতা বনাম কেরলের বাইরে দেখা হত সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বনাম সচিন তেন্ডুলকরের দলের লড়াই হিসাবে। দু’দলের দুই অন্যতম অংশীদার গ্যালারিতে বসে নিজেদের দলের সমর্থনে চিৎকার করতেন। সচিনের সঙ্গে কেরলের এখন সম্পর্ক নেই। বোর্ডের নতুন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে এটিকের সম্পর্ক এখনও রয়েছে। আজ, রবিবার কোচির জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামে এটিকে বনাম কেরল ব্লাস্টার্সের উদ্বোধনী ম্যাচে তাই থাকবেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ও।

আইএসএলের এ বারের প্রতিযোগিতার সঙ্গে গত পাঁচ বারের বিশাল পার্থক্য। আই লিগকে সরিয়ে এই টুনার্মেন্টকেই দেশের সেরা টুনার্মেন্টের মর্যাদা দিয়েছে ফেডারেশন। ফলে যে দল লিগ শীর্ষে থাকবে, তারা এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলার সুযোগ পাবে। নতুন মোড়কে আসা লিগকে আরও আকর্ষণীয় করতে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে হাজির থাকবেন বলিউডের হার্টথ্রব টাইগার শ্রফ এবং দিশা পটানি। মঞ্চে দুই বলিউড তারকার নাচ অন্যতম সেরা আকর্ষণ। এ ছাড়াও ট্রফি প্রদর্শনের আগে ফুটবলের নানা ভিডিও ক্লিপিংসয়ের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করবেন কিংস ইউনাইটেড। বিশ্ব নৃত্য প্রতিযোগিতায় যে দল এ বার সেরার মুকুট পেয়েছিল।

কিন্তু হাবাসের হাত ধরে কী দু’বছর পরে আবার চ্যাম্পিয়নের তাজ ফিরে পাবে এটিকে? হাবাস বলেছেন, ‘‘কেরল কেন, কোনও দলের শক্তি সম্পর্কেই আমার ধারণা নেই। লিগ শীর্ষে থাকা দল এশিয়ার সেরা প্রতিযোগিতায় খেলার সুযোগ পাবে, এটা ফুটবলারদের আশাবাদী করেছে। চ্যাম্পিয়ন হওয়াই আমাদের লক্ষ্য। কিন্তু আমরা ম্যাচ ধরে ধরে এগোতে চাই।’’ খাতায় কলমে এ বারের এটিকে বেশ শক্তিশালী। দুই স্ট্রাইকার ডেভিড উইলিয়ামস এবং রয় কৃষ্ণ খেলতেন অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ডিভিশনের ক্লাব ওয়েলিংটন ফিনিক্সে। রয় কৃষ্ণ গতবার সোনার বুটও পেয়েছেন। দু’জনেই গোলের মধ্যে আছেন। হাবাস শনিবার যা অনুশীলন করিয়েছেন, তাতে জন জনসনের দলে সুযোগ পাওয়ার সম্ভবনা কম। তবে চার বঙ্গসন্তান সুযোগ পাচ্ছেন। প্রীতম কোটাল, প্রণয় হালদার, অরিন্দম ভট্টাচার্য এবং প্রবীর দাশ। জবি জাস্টিন তিন ম্যাচের জন্য সাসপেন্ড হয়ে আছেন। একই কারণে নেই ডিফেন্ডার আনাস এডাথোডিকাও। দুই ফুটবলারকে কলকাতায় রেখেই কোচি গিয়েছে এটিকে। হাবাসের সহকারী সঞ্জয় সেন ফোনে বললেন, ‘‘খাতায় কলমে ভাল হয়ে তো কোনও লাভ নেই। প্রথম ম্যাচ সবসময় কঠিন। আমরা কেরলের দল সম্পর্কে কিছুই জানি না। ওদের সব বিদেশিই বদলে গিয়েছে। শুনছি দু’একজনের চোট আছে। গরম থাকলেও রাতে ম্যাচ বলে সমস্যা নেই।’’

কোচিতে খেলা হলে মাঠ ভর্তি হয়ে যায়। হলুদ জার্সিতে ছেয়ে যায় মাঠ। গত বছর ফ্যানস অ্যাসোসিয়েশনের একাংশের বয়কটের জন্য অনেক ফুটবলপ্রেমী মাঠে আসেননি। এ বার অবশ্য টিকিটের চাহিদা রয়েছে। নতুন কোচ এলকো সতৌরি গত মরসুমে নর্থ ইস্ট ইউনাইটেডের কোচ হিসেবে সফল হয়েছিলেন। কলকাতায় দীর্ঘদিন কোচিং করিয়ে যাওয়া কোচ এ দিন বলেছেন, ‘‘এটা টমেটো স্যুপ বানানোর মতো ব্যাপার নয়। গত বার সফল হয়েছিলাম বলে এ বার সফল হব, তার কোনও অর্থ নেই। এটিকে অত্যন্ত শক্তিশালী দল। তবে ওদের সঙ্গে লড়াই করার জন্য দল তৈরি।’’  

দেশের হয়ে খেলতে গিয়ে চোট পেয়ে পাঁচ মাস মাঠের বাইরে চলে গিয়েছেন দলের রক্ষণের স্তম্ভ সন্দেশ ঝিঙ্ঘান। ফলে সমস্যায় এলকো। তাঁর জায়গায় রাজু গায়াকোয়াড়কে নিয়েছে কেরল। কিন্তু কেরল কোচ জানিয়েছেন, রাজু দলের সঙ্গে প্রাক-মরসুম অনুশীলন করেননি। ফলে তাঁর খেলা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। তবে জাতীয় দলের দুই ফুটবলার সাহাল আব্দুল সামাদ, হোলিচরণ নার্জারি, রাহুল কে পি, মহম্মদ রফিরা রয়েছেন। বিদেশিদের মধ্যে বার্থেলেমিউ ওগবেচে ভাল ফর্মে ছিলেন গত বছর। এ বারও তিনিই ভরসা এলকোর।

রবিবার আইএসএলে: কেরল ব্লাস্টার্স বনাম এটিকে (কোচি, সন্ধে ৭.৩০, স্টার স্পোর্টস থ্রি চ্যানেলে)।