আর মাত্রই কয়েকটা মাস। তারপরই বিলেতের মাটিতে বসতে চলেছে ক্রিকেটের বিশ্বযুদ্ধ। ২০১৯ সালের মে-জুন মাসে বাইশ গজের আসন্ন লড়াই ঘিরে ইতিমধ্যেই ক্রিকেট অনুরাগীমহলে উন্মাদনার পারদ চড়তে শুরু করেছে।

কারা কোথায় এগিয়ে, কোথায়ই বা পিছিয়ে তা নিয়ে ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের মধ্যে চর্চাও চলছে। এরইমধ্যে বিশ্বত্রাস ইংরেজ পেস বোলার জেমস অ্যান্ডারসন সটান বলে দিলেন, আসন্ন বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ট্রফিজয়ের লড়াইয়ে তাঁর চোখে অন্য কোনও দেশ নয়, ফেভারিট আয়োজক ইংল্যান্ডই। ইয়ন মর্গানের দলের সাম্প্রতিক যা ফর্ম তাতে অন্য প্রতিপক্ষ দেশগুলোকে ইংল্যান্ডের ধারেকাছেও রাখতে পারছেন না তিনি। টেস্ট ক্রিকেটে পাঁচশোরও বেশি উইকেটের মালিক অ্যান্ডারসনের কথায়, “এই মুহুর্তে ইংল্যান্ডের যা ফর্ম তাতে বাকি দেশগুলোকে দাবিদার বলে ধরতে পারছি না।”

এটুকু বলার পরই অবশ্য ইংল্যান্ডের টেস্ট দলের অপরিহার্য সদস্য যোগ করেছেন, “একমাত্র ভারতই এ ব্যাপারে খানিকটা কাছাকাছি থাকবে। তবে, মনে রাখতে হবে খেলাটা আমাদের দেশেই। তাই ইংল্যান্ডের পরিবেশ, আবহ এসবগুলোরও একটা বড় ভূমিকা থেকে যাবে।আমার তো মনে হয় প্রতিপক্ষরা আমাদের সঙ্গে এঁটে উঠতে পারবে না। এ বারও যদি ইংল্যান্ড কাপ জিততে না পারে, তা হলে গন্ডগোলটা কোথায় সেটা বার করতে নতুন করে বসতে হবে।”

আরও পড়ুন: ব্যাডমিন্টনের ‘ম্যাচ অব দ্য ইয়ার’, সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড়

আরও পড়ুন: পার্‌থে বুমরার ডেলিভারিতে হতভম্ব টিম পেন, দেখুন ভিডিয়ো​

অ্যান্ডারসন একদিনের ক্রিকেট থেকে আগেই সরে এসেছেন। তবে, টেস্ট ক্রিকেটে এখনও ইংরেজ বোলিংয়ের সেরা মুখ তিনিই। তাই এটাও স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে, আগেভাগেই ইংল্যান্ডকে ফেভারিটের তকমা দিয়ে তিনি দলের উপর চাপ বাড়াতে চাইছেন না। তাঁর কথায়,“ইংল্যান্ডকে কাপ জয়ের ক্ষেত্রে ফেভারিট বলে সতীর্থদের ওপর চাপ বাড়াতে চাইছি না। তবে, এটাও ঘটনা এবার ইংল্যান্ডের দলটা দুর্দান্ত। দলে প্রচুর প্রতিভা। সবচেয়ে বড় কথা, দলটা এককাট্টা হয়ে যে ভাবে লড়াই করছে তাতে মনে হচ্ছে ইংল্যান্ড এবার সত্যিই বেশ তৈরি।”

(আইসিসি বিশ্বকাপ হোক বা আইপিএল, টেস্ট ক্রিকেট, ওয়ান ডে কিংবা টি-টোয়েন্টি। ক্রিকেট খেলার সব আপডেট আমাদের খেলা বিভাগে।)