ভারতের হয়ে বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন এখনও অনুপ্রাণিত করে ঝুলন গোস্বামীকে। বৃহস্পতিবার সকালে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে কলকাতায় ফেরার পরে সেই স্বপ্নের কথাই জানালেন ঝুলন। তিনি বলেছেন, ‘‘বিশ্বকাপ জেতার স্বপ্ন নিয়েই ক্রিকেট খেলা শুরু করেছিলাম। আজও সেই স্বপ্ন দেখি। তবে প্রত্যেক বছর এই সুযোগ আসে না। তাই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শুরু থেকেই সেমিফাইনালে যাওয়ার লক্ষ্য নিয়ে নামব।’’ 

গোড়ালির চোটের কারণে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে পারেননি তিনি। চোট সারাতে তাঁকে বেঙ্গালুরুর জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে রিহ্যাব করতে যেতে হবে। তবে ঝুলন মনে করেন যে, দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি সিরিজ দিয়েই বিশ্বকাপের প্রস্তুতি শুরু করেছে ভারত। তিনি বলেছেন, ‘‘ইতিমধ্যেই প্রস্তুতি শুরু হয়ে গিয়েছে। এক বছরও আর বাকি নেই। তাই এখন থেকেই তৈরি হতে হবে।’’

ঝুলন মনে করেন, বিশ্বকাপের আগে ভারতের সামনে তৈরি হওয়ার অনেক সুযোগ রয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের পরেই ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টির ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলবে ভারত। তবে ঝুলনের মতে, দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের আগে সচিন তেন্ডুলকরের ‘পেপটক’ তাঁদের ভাল খেলতে সাহায্য করেছে। ঝুলন বলেছেন, ‘‘আমাদের সঙ্গে দেড় ঘণ্টা ধরে কথা বলেছেন সচিন। প্রত্যেকের সমস্যার কথা আলাদা ভাবে শুনেছেন। দক্ষিণ আফ্রিকার পরিবেশের সঙ্গে কী ভাবে মানিয়ে নিতে হয়, সেটাও আমাদের ভাল করে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন সচিন।’’ প্রথম মহিলা ক্রিকেটার হিসেবে ২০০ উইকেটের মালকিন জানিয়েছেন যে, কখনওই মাইলস্টোনের পিছনে ছোটেননি তিনি। ভাল পারফর্ম করলে সাফল্য আসবেই। ঝুলন বলেছেন, ‘‘মাইলস্টোনের পিছনে আমি কখনওই ছুটিনি। তবে এই সম্মান পেয়ে খুবই ভাল লাগছে। কিন্তু আমি চাইব একজন পেসারই আমার রেকর্ড ভাঙুক।’’