বিস্ফোরণটা ঘটল টুর্নামেন্ট শুরুর ঠিক দু’দিন পর।

আইএসএসএফ শ্যুটিং বিশ্বকাপে ভারতের শুরুটা ভাল হয়নি। দেশের সেরা শ্যুটাররা খেললেও আহামরি কোনও পারফরম্যান্স দেখাতে পারেনি ভারত গত দু’দিনে। কিন্তু সোমবার জোড়া পদকে ভারতীয় সমর্থকদের হতাশা বদলে গেল উচ্ছ্বাসে। প্রথমে পিস্তলের মিক্সড টিম ইভেন্টে জিতু রাই ও হিনা সিধু সোনা জিতলেন। পরে পুরুষদের ডাবল ট্র্যাপ ইভেন্টে রুপো জিতে নিলেন অঙ্কুর মিত্তল। তবে ভারতের পদক জেতার পাশাপাশি তৈরি হল বিতর্কও। হঠাৎ কার্নি সিংহ রেঞ্জের বিদ্যুৎ চলে যাওয়ায়।

রিও অলিম্পিক্সে ভারতীয় শ্যুটারদের ব্যর্থতার পর কম সমালোচনা হয়নি। তাই নয়াদিল্লিতে শ্যুটিং বিশ্বকাপে হিনা-জিতুদের উপর প্রত্যাশার চাপ ছিলই। তা ছাড়া ১০ মিটার এয়ার পিস্তলে নতুন ইভেন্টে নেমেছিলেন দু’জন। তাই চ্যালেঞ্জটা আরও কঠিন ছিল দু’জনের।

২০২০ টোকিও অলিম্পিক্সে আইওসি মিক্সড টিম ইভেন্ট আনার পরিকল্পনা নিয়েছে। তারই প্রস্তুতি হিসেবে শ্যুটিং বিশ্বকাপে এ বার মিক্সড টিম ইভেন্ট চালু হয়েছে। যে ইভেন্টে সাফল্য নির্ভর করে দুই শ্যুটারের বোঝাপড়ার উপর। তাতেই বাজিমাত হিনা ও জিতুর।

সেমিফাইনালে প্রথমে অবশ্য পিছিয়ে গিয়েছিলেন দু’জন। ঘরের মাঠে সমর্থকদের চিৎকারেই হোক বা নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়ার গুণে, ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে হঠাৎ জ্বলে ওঠে জিতু ও হিনার জুটি। সেই ফর্মটা চূড়ান্ত পর্বেও ধরে রেখে সোনা জিতে নেনে তাঁরা।

আরও পড়ুন:

কর্তারা যুদ্ধে যাচ্ছেন শ্রীনির মদতে, আইনি প্রত্যাঘাতে সৌরভরা

‘‘মিক্সড টিম ইভেন্টটা দারুণ। খুব মজার। সদ্য শুরু হয়েছে ইভেন্টটা। তাই এ নিয়ে মতভেদ থাকতেই পারে। তবে আমাদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই ইভেন্টটার প্রস্তুতি শুরু করে দিতে হবে। কারণ, শুনছি এই ইভেন্টটা অলিম্পিক্স আর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপেও অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে,’’ সোনা জেতার পরে বলেন উচ্ছ্বসিত হিনা।

বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ ও এশিয়ান গেমসে রুপোজয়ী জিতু আবার বললেন, ‘‘নতুন ইভেন্টের নিয়ম পরিষ্কার হয়ে গেলে বোঝাপড়া নিয়ে একটু আধটু যা সমস্যা আছে সেটাও মিটে যাবে।’’ হিনা-জিতুদের পর ভারতের আর এক সাফল্য আসে ২৪ বছর বয়সি অঙ্কুরের হাত ধরে। মাত্র এক পয়েন্টের জন্য সোনা হাতছাড়া হয় তাঁর। সব মিলিয়ে অঙ্কুরের পয়েন্ট দাঁড়ায় ৭৪।