যত কাণ্ড শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটে। বিশ্বকাপের ঠিক আগেই লসিথ মালিঙ্গা ব্যাট-প্যাড তুলে রাখার ইঙ্গিত দিলেন।

অভিজ্ঞ পেসারের এই ইঙ্গিত ছড়িয়ে পড়তেই শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটে আলোড়ন তৈরি হয়েছে। আগের বারের বিশ্বকাপে শেষ ওয়ানডে খেলেছিলেন দিমুথ করুণারত্নে। এ বারের বিশ্বকাপে দ্বীপরাষ্ট্রের অধিনায়ক তিনিই। মাঝের চার বছরে ওয়ানডে দলেই জায়গা হয়নি করুণারত্নের। বিশ্বকাপ দিয়েই প্রত্যাবর্তন ঘটতে চলেছে করুণারত্নের। তাও আবার অধিনায়ক হয়ে। ওয়ানডেতে না খেললেও করুণারত্নে গত মাসে দক্ষিণ আফ্রিকার  বিরুদ্ধে টেস্টে দেশকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। করুণারত্নের নেতৃত্বে টেস্ট সিরিজে জেতে শ্রীলঙ্কা। কিন্তু মালিঙ্গার নেতৃত্বাধীন শ্রীলঙ্কা দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ওয়ানডে সিরিজে নাকানিচোবানি খায়। তখনই দেওয়াললিখন স্পষ্ট হয়ে যায়, মালিঙ্গার হাতে নেতৃত্বের ব্যাটন থাকবে না।

গত দু’বছরে মালিঙ্গা, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজ,  দীনেশ চান্দিমাল, থিসারা পেরেরার মতো অভিজ্ঞ ক্রিকেটাররা শ্রীলঙ্কাকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। কিন্তু বিশ্বকাপে দেশের নেতা বাছতে বসে নির্বাচকরা করুণারত্নের হাতে ক্যাপ্টেনের আর্মব্যান্ড তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। নির্বাচকদের এই সিদ্ধান্তে অসন্তুষ্ট মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের পেসার। করুণারত্নের নেতা হওয়ার খবর তাঁর কানে পৌঁছতেই শ্রীলঙ্কার পেসার অবসর নেওয়ার সিদ্ধান্ত একপ্রকার নিয়েই ফেলেন। অধিনায়ক নির্বাচন করতে বসার ঠিক আগে শ্রীলঙ্কার মুখ্য নির্বাচক মালিঙ্গাকে ফোন করেন। দ্বীপরাষ্ট্রের বোলারের কাছে তিনি জানতে চান, অধিনায়ক না হলে তিনি বিশ্বকাপে খেলবেন কি না।

আরও খবর: ‘গো ড্যাডি’! মেয়ের লেখা ব্যানারই কি তাতিয়ে দিল ওয়ার্নারকে?

আরও খবর:  আইপিএল কাঁপানো তারকার জন্য দরজা খোলা রেখে বিশ্বকাপের দল ঘোষণা ইংল্যান্ডের

মুখ্য নির্বাচকের সঙ্গে কথা বলার এক ঘণ্টা পরেই শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটারদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে মেসেজ করেন মালিঙ্গা। সেখানে তিনি লেখেন, ‘‘মাঠে আমাদের আর হয়তো দেখা হবে না। আমার পাশে যারা ছিলেন, ঈশ্বর তাদের মঙ্গল করুন।’’ মালিঙ্গার অবসরের ইঙ্গিতের খবর প্রসঙ্গে শ্রীলঙ্কান বোর্ডের এক কর্তা জানান, ‘‘কিসের ইঙ্গিত দিচ্ছে মালিঙ্গা তা স্পষ্ট নয়। মনে হচ্ছে ও নিজেকে সরিয়ে নিতে চাইছে। তবে মালিঙ্গার বোঝা উচিত, দেশের হয়ে খেলা নেতৃত্বের থেকেও বেশি গুরুত্বপূর্ণ। ১৪টি ম্যাচের মধ্যে ১৩টিতেই শ্রীলঙ্কা হেরেছে মালিঙ্গার নেতৃত্বে।’’ মালিঙ্গাকে নিয়ে এখন চর্চা শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটে।