• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বন্ধু লিন ডানের জয়ে হাজির ক্যানসারজয়ী লি

Lin
তিনমূর্তি: এক ফ্রেমে ছয় অলিম্পিক্স পদক। চেন, লি ও লিন ডান। টুইটার

কোর্টে তাঁরা শত্রু। তাঁদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা ব্যাডমিন্টন বিশ্বে প্রবাদপ্রতিম। কিন্তু কোর্টের বাইরে তাঁদের বন্ধুত্বও তেমনই নজরকাড়া। তাঁরা— দুই কিংবদন্তি চিনের লিন ডান এবং মালয়েশিয়ার লি চং ওয়েই। কয়েক মাস আগে লি চং ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার পরে লিন ডান তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। তাঁর দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছিলেন। যে লিন ডানের কাছেই দু’বার অলিম্পিক্সের ফাইনালে হেরেছেন লি চং। ২০০৮ এবং ২০১২ অলিম্পিক্সে। ২০১৬ অলিম্পিক্স ফাইনালে লি হারেন চেন লং-এর বিরুদ্ধে। রবিবার মালয়েশিয়া ওপেনে তাই লিন ডান গত দু’বছরে কোনও বড় প্রতিযোগিতার ফাইনালে জেতার পরে তাঁকে অভিনন্দন জানাতে হাজির ছিলেন লি চং। ৩৫ বছর বয়সি লিন ডানকে ব্যাডমিন্টনের সর্বকালের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ধরা হয়। দুটি অলিম্পিক্স সোনার পাশাপাশি পাঁচটি বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের খেতাব এবং ছটি অল ইংল্যান্ড চ্যাম্পিয়নশিপের ট্রফিও রয়েছে তাঁর দখলে। তবে গত দু’বছরে বেশ কয়েকটি টুর্নামেন্টে নামলেও সাফল্য পাচ্ছিলেন না তিনি। তাই জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছিল তাঁর অবসরের। কিন্তু সে সব জল্পনা উড়িয়ে দিয়ে ফের তিনি দেখিয়ে দিলেন এখনও সেরাদের সঙ্গে টক্কর দিতে পারেন। কারণ, ফাইনালে তিনি হারান চেন লং-কে। তাও প্রথমে এক গেমে পিছিয়ে পড়ে। ফল ৯-২১, ২১-১৭, ২১-১১। এই প্রতিযোগিতাতেই চেন লং কোয়ার্টার ফাইনালে ছিটকে দিয়েছিলেন ভারতের কিদম্বি শ্রীকান্তকে।

শুধু দু’বছরের ট্রফি খরা কাটানোই নয়, গত ১৫ বছরে প্রথম অবাছাই খেলোয়াড় হিসেবে মালয়েশিয়া ওপেন জেতার নজির গড়লেন লিন ডান। ২০০৪ সালে এই নজির গড়েছিলেন লি চং-ই। বন্ধুর এত বড় সাফল্যে তাই অভিনন্দন জানাতে দেখা যায় লি চং-কে। মারণ রোগ থেকে সেরে উঠে এই প্রতিযোগিতায় নামার কথা ছিল তাঁরও। কিন্তু চিকিৎসকেরা আরও কিছুদিন লি চংকে বিশ্রাম দেওয়ার পরামর্শ দেন। তবে কোর্টে না নামলেও লিনের জয় দেখতে হাজির না হয়ে থাকতে পারেননি তিনি। পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে বন্ধু লিন ডানের সঙ্গে কিছুক্ষণ কথাও বলেন তিনি। এর পরে লিন এবং চেন লংকে দু’পাশে নিয়ে ছবি তোলার জন্য দাঁড়ান তিনি। 

ফাইনালে যদিও প্রথমে দাপট দেখাচ্ছিলেন চেন লং-ই। প্রথম গেমে দর্শকদের ভাল করে আসনে বসার আগেই জিতে যান চেন। দ্বিতীয় গেম থেকে ফিরে আসেন লিন। দর্শকরাও প্রবল ভাবে সমর্থন করছিলেন লিনকে। শেষ পর্যন্ত তাঁর বিখ্যাত স্ম্যাশে ম্যাচ জিতে নিয়ে আবেগে কোর্টেই বসে পড়েন লিন ডান। চোখে জল। স্টেডিয়াম তখন ফেটে যাচ্ছে দর্শকদের প্রবল চিৎকারে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন