চোটের জন্য কোপা আমেরিকা থেকে ছিটকে গিয়েছেন নেমার দা সিলভা স্যান্টোস জুনিয়র। এখন টুর্নামেন্টের আকর্ষণ বলতে লিয়োনেল মেসি। যিনি, একটি স্বপ্ন নিয়েই কোপায় খেলবেন। বহু বছর পরে মাতৃভূমিকে এই টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন করা। এক সাক্ষাৎকারে মেসি বললেন, ‘‘ফুটবল জীবন শেষ করতে চাই দেশকে অন্তত একটা ট্রফি দিয়ে। আর তার জন্য যতদিন পারব, চেষ্টা করে যাব।’’ আর্জেন্টিনার হয়ে চারটি ফাইনাল খেলে ট্রফি ধরতে ব্যর্থ মেসি। যার মধ্যে রয়েছে শেষ দু’টি কোপা আমেরিকা। ঘটনাচক্রে দু’বারই আর্জেন্টিনা টাইব্রেকারে হেরে যায় চিলির কাছে। তবে মেসি বলেছেন যে, তাঁর ফুটবল জীবনের সবচেয়ে বেদনাদায়ক হার ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপের ফাইনালে। 

বিশ্বকাপ ফাইনালের পরে সমালোচনায় বিদ্ধ হতে হয়েছে মেসিকে। যা নিয়ে বললেন, ‘‘দেশের মানুষ ক্রমাগত আক্রমণ করেছে। যেটা ভাবলে আজও হতাশ লাগে।’’ বার্সার হয়ে খেলার সময় যে জাদু তিনি নিজের ফুটবলে দেখান, রাশিয়া বিশ্বকাপে তা দেখাতে পারেননি। ফ্রান্সের কাছে হেরে আবার ছিটকে যায় আর্জেন্টিনা। মেসি এ বার আট মাস দেশের জার্সি পরেননি। বলেছেন, ‘‘এত কিছুর পরেও দেশের জন্য খেলার ডাক উপেক্ষা করতে পারি না। এমনকি ছেলে থিয়াগোও আমাকে আর্জেন্টিনার হয়ে খেলতে দেখতে ভালবাসে।’’

মেসির আরও কথা, ‘‘ব্রাজিল বিশ্বকাপ ফাইনালে হারটা ফুটবল জীবনের সবচেয়ে দুঃখজনক ঘটনা। জীবনে কখনও এত হতাশ হইনি।’’ মেসি তার খুব কাছে রাখবেন লিভারপুলের কাছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফিরতি ম্যাচে হারকে, ‘‘অতটা হতাশ হতাম না যদি প্রথম লেগ ০-৩ জেতা না থাকত। কিন্তু জীবন থেমে থাকে না। আবার নতুন করে সব শুরু করতে হয়।’’

মেসি নতুন ভাবে শুরু করার মঞ্চ হিসাবে আপাতত বেছেছেন কোপাকেই। ‘‘সব সময় দেশকে কাপ দিতে চেয়েছি। সেই আশা নিয়েই এ বার যাচ্ছি ব্রাজিলে। আর্জেন্টিনা দলে এখন নতুনদের ভিড়। অনেকেই এই প্রথম কোনও সরকারি টুর্নামেন্ট খেলবে। তার মধ্যেও চেষ্টা করতে হবে সব রকম ভাবে জুনিয়রদের সাহায্য করার। বহু দিন কোপাও জিতিনি। আমার মতোই দলের সবাই চায় চ্যাম্পিয়ন হয়ে টুর্নামেন্টটা উপভোগ করতে। একমাত্র সেটা পারলেই মনে করব দেশের জন্য কিছু করতে পারলাম,’’ বলেছেন কিংবদন্তি লিয়োনেল মেসি। এ বারের কোপায় আর্জেন্টিনা তাদের প্রথম ম্যাচ খেলবে বলিভিয়ার বিরুদ্ধে ১৬ জুন।