পোর্তোকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ কোয়ার্টার ফাইনালে কার্যত উড়িয়ে দিল লিভারপুল। পোর্তোর মাঠ এস্তাদিয়ো দো দ্রাগাওয়ে বুধবার রাতে তারা জিতল ৪-১ গোলে। অ্যানফিল্ডে প্রথম লেগেও ২-০ জিতে থাকায় দুই ম্যাচ মিলে তাদের পক্ষে গোলের গড় দাঁড়াল ৬-১। এবং সেমিফাইনালে মুখোমুখি হল লিয়োনেল মেসির বার্সেলোনার। যে ম্যাচ নিয়ে লিভারপুল ম্যানেজার য়ুর্গেন ক্লপ বলে দিলেন, ‘‘বার্সার সঙ্গে খেলব ভেবে তর সইছে না। ভাবছি কখন ম্যাচটা হবে, আর খেলতে নামব।’’

হালফিলে যাঁরা বারবার জেতাচ্ছেন লিভারপুলকে বুধবারও তাঁরাই গোল করলেন। ২৬ মিনিটে প্রথম গোল সাদিয়ো মানের। এই গোলটা অবশ্য লিভারপুলকে দেওয়া হয় দীর্ঘ ক্ষণ ধরে ভিডিয়ো দেখে। লিভারপুলের অন্য তিনটি গোল করলেন মহম্মদ সালাহ (৬৫ মিনিট), রবের্তো ফির্মিনো (৭৭ মিনিট) ও ভার্জিল ফন দিক (৮৪ মিনিট)। পোর্তোর হয়ে সান্ত্বনা গোল এদার মিলিতায়োর। প্রসঙ্গত এক বছর আগে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এই লিভারপুলের কাছেই পোর্তো নিজেদের মাঠে 

০-৫ হারে।

লিভারপুল বনাম পোর্তো ম্যাচে কী হল তা নিয়ে অবশ্য আগ্রহ কম। এখন থেকে আলোচনা হচ্ছে, মেসিদের বিরুদ্ধে ‘দ্য রেডস’ কী করতে পারে তা নিয়ে। ২০০৬-২০০৭ মরসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শেষ বার বার্সা বনাম লিভারপুল লড়াই হয়। শেষ ষোলোর সেই লড়াইয়ে ইংল্যান্ডের ক্লাব জেতে বাইরে গোল করায়। এ বারের লড়াই নিয়ে ক্লপের কথা, ‘‘এই ম্যাচটার অপেক্ষায় আছি। নিশ্চিত ভাবেই আর একটা সত্যিকারের লড়াই দেখব। কে না জানে, বার্সেলোনা আর লিভারপুল— দু’টিই বিরাট দল।’’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘‘ছেলেদের জন্য আমি গর্বিত। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের মতো প্রতিযোগিতায় পরপর দু’বার সেমিফাইনাল খেলব ভাবতে পারছি না।’’ এই মুহূর্তে টানা ১৭ ম্যাচ অপরাজিত লিভারপুল। সঙ্গে টানা আট ম্যাচ জিতল। দু’দল প্রথম মুখোমুখি হবে ন্যু ক্যাম্পে। বার্সেলোনার বিরুদ্ধে কোনও প্রতিযোগিতায় প্রথম খেলবেন লিভারপুলের ভার্জিল ফন ডিক।