বার্সেলোনা ৫    •    লিয়ঁ ১

• দুই পর্ব মিলিয়ে বার্সেলোনা জয়ী ৫- ১ গোলে

আতলেতিকো দে মাদ্রিদকে রোনাল্ডো-জাদুতে হারিয়ে জুভেন্তাসের শেষ আটে যাওয়ার চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যেই এ বার চ্যাম্পিয়ন্স লিগে মেসি-ম্যাজিক! 

বুধবার রাতে লিয়ঁকে ৫-১ হারিয়ে লিওনেল মেসিও জানিয়ে দিলেন, দুই তারকা ফুটবলারের দ্বৈরথে তিনিও কোনও অংশে কম যান না। 

মঙ্গলবার তুরিনে আতলেতিকো দে মাদ্রিদের বিরুদ্ধে রোনাল্ডো ঝলমলে হ্যাটট্রিক করেছিলেন। আর বুধবার রাতে লিয়ঁকে ৫-১ হারানোর পথে বার্সেলোনার ঘরের মাঠ ক্যাম্প ন্যুতে মেসি নিজে করলেন জোড়া গোল। আর জেরার পিকে ও উসমান দেম্বেলে-কে দিয়ে করালেন আরও দু’টি গোল। বার্সেলোনার ঘরের মাঠে মেসির এই দুরন্ত পারফরম্যান্সের পরে বার্সা ম্যানেজার আর্নেস্তো ভালভার্দেও বলেছেন, ‘‘অবিশ্বাস্য একটা ম্যাচ খেলে এল মেসি। ওর মতোই দলের সবাই মনোনিবেশ করছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতার ব্যাপারে।’’

বিশেষজ্ঞদের মতে, মেসি ও রোনাল্ডো দুই বিখ্যাত ফুটবলারের এই দ্বৈরথে কেবল ফুটবলের আকর্ষণই বাড়ছে না। তারই সঙ্গে সমৃদ্ধ হচ্ছে আক্রমণাত্মক ফুটবলও।

দু’জনের তফাৎ এটাই লিয়ো মেসির কাছে ট্রফি জয়টাই মোক্ষ। তাই অনেক সময় তিনি পেনাল্টি মারতে দেন সতীর্থকে। গোলের পরে যিনি পাস বাড়িয়েছিলেন, তাঁর সঙ্গে উৎসবে মেতে ওঠেন। অন্য দিকে, ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর কাছে পাখির চোখ হল নিজে গোল করা। যে কারণে, গোল না হলে রোনাল্ডোকে সব সময় মাঠে শান্ত মেজাজে দেখা যায় না। দুই সেরা ফুটবলারের এই দ্বৈরথে মেসি সব সময়েই শ্রদ্ধাশীল প্রতিপক্ষ সম্পর্কে। যার পরিচয় তিনি দিয়েছেন দলকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে তুলে। মেসির মতে, আতলেতিকো দে মাদ্রিদের বিরুদ্ধে ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর ‘হ্যাটট্রিক’ অসাধারণ কৃতিত্ব। পাশাপাশি, নিজের দল বার্সেলোনার সাফল্য প্রসঙ্গে এল এম টেনের ধারণা, খেতাব জিততে গেলে আরও অনেক কঠিন ম্যাচ জিততে হবে বার্সেলোনাকে।

 দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

রোনাল্ডোর হ্যাটট্রিক প্রসঙ্গে মেসির মন্তব্য, ‘‘ওই ম্যাচে ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো যা খেলেছে, তা সত্যিই মনে রাখার মতো। আমার মনে হয়েছিল, আতলেতিকো দে মাদ্রিদ অ্যাওয়ে ম্যাচে জুভেন্তাসের বিরুদ্ধে কঠিন প্রতিপক্ষ হয়ে উঠবে। কিন্তু আতলেতিকোর সব শক্তিকে পর্যুদস্ত করে ওই রাতে জাদু দেখিয়েছে রোনাল্ডোর জুভেন্তাস।’’

এর পরেই মেসির দিকে প্রশ্ন ছুটে গিয়েছিল, কোয়ার্টার ফাইনালেই যদি রোনাল্ডোর জুভেন্তাসের মুখোমুখি পড়ে বার্সেলোনা? যে প্রসঙ্গে মেসি বলছেন, ‘‘সবাই কঠিন প্রতিপক্ষ। আয়াখ্স (রিয়াল মাদ্রিদকে হারিয়েছে প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে) যেমন দেখিয়ে দিয়েছে, তাদের তারুণ্যের শক্তি। একই সঙ্গে ওরা প্রমাণ করেছে, কোনও প্রতিপক্ষকেই ওরা ভয় পায় না। তাই প্রতিপক্ষ যে দলই হোক না কেন, লড়াই বেশ কঠিন। আর সেই চ্যালেঞ্জ টপকানোর জন্য তৈরি রয়েছে বার্সেলোনা।’’

ফরাসি দল লিয়ঁ-র বিরুদ্ধে ১৭ মিনিটে পানেনকা স্টাইলে পেনাল্টি থেকে গোল করে বার্সেলোনার গোলের খাতা খুলেছিলেন মেসি। ৩১ মিনিটে ২-০ করেন ফিলিপে কুটিনহো। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে একটি গোল শোধ করে দেন লিয়ঁর লুকা তুসাঁ। তার পরেই ৭৮ থেকে ৮৬ এই আট মিনিটে মেসি-ম্যাজিক। যেখানে নিজে গোল করার পাশাপাশি জেরার পিকে ও উসমান দেম্বেলেকে দিয়ে গোল করান এল এম টেন। যে প্রসঙ্গে পরে মেসি বলেছেন, ‘‘২-১ হয়ে যাওয়ার পরে আমরা আরও ঐক্যবদ্ধ হয়েছিলাম মাঠের মধ্যে। তারই ফল, বড় ব্যবধানে এই জয়।’’