• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বাবা-মায়ের দুঃখে কান্না হোল্ডিংয়ের

Holding
যন্ত্রণা: বর্ণবিদ্বেষ-বিদ্ধ। চোখের জল সামলাতে পারলেন না হোল্ডিং।

সমাজের মজ্জায় মজ্জায় পদ্ধতিগত ভাবে ঢুকে থাকা বর্ণবিদ্বেষ নিয়ে তাঁর কড়া বক্তব্য দুনিয়ার নজর কেড়ে নিয়েছিল। এ বার নিজের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে কেঁদেই ফেললেন মাইকেল হোল্ডিং। সাউদাম্পটনে ইংল্যান্ড বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট ম্যাচের ধারাভাষ্য দিচ্ছেন হোল্ডিং। সেখানেই তাঁর বাবা-মাকে কী ভাবে বর্ণবিদ্বেষের শিকার হতে হয়েছিল, তা জানাতে গিয়ে চোখের জল আটকাতে পারলেন না। 

স্কাই নিউজে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে কিংবদন্তি ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলার বলেন, ‘‘বাবা-মায়ের সেই দুঃসহ অভিজ্ঞতার কথা মনে পড়লে আবেগ সামলাতে পারি না। আমি জানি আমার বাবা-মাকে কী সহ্য করতে হয়েছিল। আমার মায়ের পরিবার ওঁর সঙ্গে কথা বলাই বন্ধ করে দিয়েছিল। কারণ? ওঁর স্বামীর গায়ের রং ছিল বড্ড বেশি কালো।’’ চোখের জল মুছতে মুছতে এর পর ভীষণ আবেগপ্রবণ হয়ে যোগ করেন, ‘‘বাবা-মায়ের সেই অভিজ্ঞতার কথা ভুলতে পারি না। বার বার চোখের সামনে ভেসে ওঠে।’’ বৃহস্পতিবার ছয় উইকেট নিয়ে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে নায়ক হয়ে ওঠা ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন হোল্ডার বলেন, তিনি এই সাক্ষাৎকারটি দেখেছেন এবং ভীষণ ভাবেই প্রভাবিত। ‘‘সাক্ষাৎকারটি আমি দেখেছি। মাইকের কথাগুলো আমার শিরায়-শিরায় অনুভব করছিলাম। খুবই শক্তিশালী বক্তব্য। একদম ঠিক জায়গাটা তুলে ধরেছে।’’ ফুটবলের মতো ক্রিকেটও প্রত্যাবর্তন লগ্নে বর্ণবিদ্বেষের বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছে। ইংল্যান্ড এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটারেরা খেলা শুরুর আগে মাঠের মধ্যে মিলিত ভাবে হাঁটু মুড়ে বসে প্রতিবাদী ছবি তুলে ধরেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শ্বেতাঙ্গ পুলিশ অফিসারের হাঁটু মুড়ে জর্জ ফ্লয়েডের গলার উপর চেপে রেখে দেওয়া এবং তার ফলে শ্বাস আটকে তাঁর মৃত্যুর পরেই এমন প্রতিবাদের ভঙ্গি ছড়িয়ে পড়েছে গোটা বিশ্বে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন