বিশ্বকাপ শুরু হতে আর এক মাসও বাকি নেই। আর তিনি— নেমার দ্য সিলভা স্যান্টোস (জুনিয়র) এখনও লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন সুস্থ হওয়ার। পাশাপাশি নেমার স্বীকার করেছেন, প্রত্যাশার চাপটা কী, তা তিনি এখন বুঝতে পারছেন।

ব্রাজিলের এক টিভি চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে নেমার বলেছেন, ‘‘আমি এখন খুব শঙ্কিত। এখন যে রকম ভয়ে ভয়ে আছি, সম্ভবত সে রকম অবস্থায় কেউ কখনও পড়েনি।’’ প্যারিস সাঁ জারমাঁ স্ট্রাইকার সেই ফেব্রুয়ারি থেকে মাঠে নামেননি। কিন্তু ভালই জানেন, গোটা ব্রাজিল স্বপ্ন দেখছে, তিনি সুস্থ হয়ে মাঠে নামবেন এবং দেশকে বিশ্বকাপ এনে দেবেন। নেমার বলেছেন, ‘‘আমি জানি, সবাই খুব উদ্বেগে আছে। তবে এটা বলতে পারি, আমার চেয়ে বেশি উদ্বেগে কেউ নেই। মাঠে ফেরা নিয়ে আমার চেয়ে দুশ্চিন্তায় আর কেউ নেই। আমার মতো ভয়ও কেউ পাচ্ছে না।’’

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি মার্সেইয়ের বিরুদ্ধে খেলতে গিয়ে চোট পান নেমার। এর পর ব্রাজিলে তাঁর পায়ে অস্ত্রোপচারও হয়েছে। মাঠে ফেরার প্রস্তুতিও নিতে শুরু করেছেন তিনি। বলে দিয়েছেন, বিশ্বকাপ ছাড়া আর কিছু নিয়ে ভাবতে চান না এখন। কিন্তু সেই ‘মিশন বিশ্বকাপ’ শুরুর আগে রীতিমতো আতঙ্কে রয়েছেন ব্রাজিল তারকা। নেমার বলেছেন, ‘‘আমার সামনে খুব কঠিন সময় যাচ্ছে বলে আপনারা ভাবছেন তো? ঠিকই ভাবছেন। জীবনের সব চেয়ে কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। আমি একটা স্বপ্নের খুব কাছে এসে দাঁড়িয়েছি আবার। সেই স্বপ্নটা হল বিশ্বকাপ। জানি না, এ বার কী হবে।’’ 

নেমারের অবশ্য আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়া খুব স্বাভাবিক। চার বছর আগে চোট তাঁকে ছিটকে দিয়েছিল বিশ্বকাপ থেকে। মাঠের বাইরে বসে দেখতে হয়েছিল, জার্মানির কাছে কী ভাবে বিধ্বস্ত হতে হয়েছিল ব্রাজিলকে। সেই দুঃসহ স্মৃতি এখনও যন্ত্রণা দেয় নেমারকে। যে স্মৃতি মুছে ফেলতে চান তিনি। তাই তো নেমার বলছেন, ‘‘ঈশ্বরকে ধন্যবাদ, আমি আবার একটা সুযোগের সামনে এসে দাঁড়িয়েছি।’’     

নেমার জানাচ্ছেন, ছোটবেলা থেকে একটা স্বপ্ন দেখে এসেছেন তিনি। দেশের জার্সিতে বিশ্বকাপ হাতে তোলা। বলছেন, ‘‘দেশের হয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার একটা সুযোগ এসেছে আমাদের সামনে। বিশ্বকাপ জেতার স্বপ্ন আমি সেই ছোটবেলা থেকে দেখে এসেছি। আশা করব, এই বিশ্বকাপটা আমার হবে।’’ দিন কয়েক আগে ব্রাজিলের কিংবদন্তি ফুটবলার জিকোর সঙ্গে দেখা হয়েছিল নেমারের। সেখানে তিনি জিকোকে বলেছিলেন, ‘‘যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ভয় দূরে সরিয়ে বিশ্বকাপের জন্য তৈরি হতে হবে।’’ 

সেই লক্ষ্যেই যে নিজেকে তৈরি করছেন নেমার, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই।