ইন্ডিয়ান ওপেন বক্সিংয়ের ৫১ কেজি বিভাগে ফাইনালে গেলেন ছয় বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন মেরি কম। ভারতের হয়ে লন্ডন অলিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ পদকপ্রাপ্ত এই মহিলা বক্সার বৃহস্পতিবার হারালেন তাঁর দেশেরই উঠতি বক্সার নিখাত জ়ারিনকে। ম্যাচের ফল ৪-১। শুক্রবার ফাইনালে মেরির প্রতিপক্ষ মিজোরামের ভানলাল দুয়াতি।

মেরি ফাইনালে গেলেও বাউটের পরে তেলঙ্গানার পরাজিত বক্সার নিখাতকে নিয়ে নিজের ক্ষোভ গোপন করেননি। রিং ছাড়ার আগে ক্ষুব্ধ মেরি বলে যান, ‘‘বিরক্তিপূর্ণ মন্তব্য করার আগে নিখাত আগে রিংয়ে নিজেকে প্রমাণ করুক।’’

২২ বছরের নিখাত অতীতে প্রাক্তন বিশ্ব জুনিয়র বক্সিং প্রতিযোগিতায় জয়ী হয়েছিলেন। চলতি বছরের শুরুতে বুলগেরিয়ায় মেরির কাছে হেরেছিলেন তিনি। মেরির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নামার আগে তিনি বলেছিলেন, ‘‘আমার আদর্শ বক্সারের বিরুদ্ধে নামার আগে খুব উত্তেজনা অনুভব করছি। নিজের মস্তিষ্ক কাজে লাগিয়ে কড়া লড়াই ছুড়ে দিতে চাই বিপক্ষকে।’’ যা পছন্দ হয়নি ভারতীয় মহিলা বক্সিংয়ে কিংবদন্তি মেরির।

এ দিন লড়াই শুরু হওয়ার পরে নিখাতের আক্রমণের সামনে শুরুতে মেরি সাবলীল ছিলেন না। কিন্তু দ্রুত পরিস্থিতি বুঝে নিয়ে রণনীতি পরিবর্তন করেন। তার পরে আর মেরিকে বিব্রত করতে পারেননি নিখাত। ম্যাচ জিতে রিং ছাড়েন মেরি। 

পরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলে যান, ‘‘প্রতিটা বাউট আমার কাছে নতুন অভিজ্ঞতা। আমি এই মেয়েটিকে চিনিই না। রিংয়ে বহু বছর ধরে লড়ছি। খবরের কাগজেই পড়লাম, এই মেয়েটি বলেছে, আমাকে চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছে। স্পষ্ট করে বলে দিতে চাই, আমি এই ধরনের ব্যাপার পছন্দ করি না।’’

মেরি কম আরও বলেন, ‘‘প্রথমে রিংয়ে নেমে নিজেকে প্রমাণ করুক। তার পরে আমার বিরুদ্ধে মন্তব্য করবে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এই মেয়েটি মাত্র একটি পদক পেয়েছে। তাতেই এই মেয়েটির এই ধরনের আচরণ ও ইগো। এরা অল্পেই সন্তুষ্ট। আর তাতেই গর্ব অনুভব করে। এই স্বভাব অত্যন্ত খারাপ।’’ ৩৬ বছরের মেরি সঙ্গে যোগ করেন, ‘‘কত বছর দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করছি? আর কত বার নিজেকে প্রমাণ করতে হবে? মেয়েটি যে কথাগুলো বলেছে, তা সুর নরম করেও তো বলা যেত। এদের ভাগ্য ভাল যে আমার সঙ্গে লড়াই করে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারছে।’’

মেরি বলছেন, নিখাতের মন্তব্য তাঁকে ম্যাচ জিততে নাকি আরও বেশি মনোনিবেশ করিয়েছিল। তাঁর কথায়, ‘‘খবরের কাগজে প্রতিপক্ষ মেয়েটির মন্তব্য পড়ে অবাক হয়ে গিয়েছিলাম। খুব বিরক্তিকর। কী ভাবে এ কথা বলতে পারে! এটা ঠিক, বলার অধিকার প্রত্যেকের রয়েছে। প্রত্যেকেই আমাকে চ্যালেঞ্জ জানাতে পারে। কিন্তু আমিও মানুষ। এই মন্তব্য আমাকে আরও বেশি একাগ্র করেছিল ম্যাচটা জেতার জন্য।’’মেরিকে বলা হয়, নিখাত তাঁকে আদর্শ বলে মানেন। এ কথা শুনে আরও ক্ষুব্ধ হন মেরি। বলেন, ‘‘তা হলে আমাকে চ্যালেঞ্জ করছে কেন? আদর্শের সঙ্গে এ ভাবে কেউ কথা বলে না। শ্রদ্ধা সহকারে কথা বলে।’’৫১ কেজি বিভাগে মেরি ফাইনালে গেলেও প্রতিযোগিতায় দাপটের সঙ্গে লড়াই করছেন ভারতের পুরুষ বক্সাররা। ইন্ডিয়ান ওপেনে সাতটি বিভাগে ফাইনাল হচ্ছে ভারতীয় পুরুষ বক্সারদের নিয়েই। পুরুষদের দশটি বিভাগে ফাইনালে গিয়েছেন মোট ১৭ জন ভারতীয়।