ফের ব্যর্থ সাইনা নেহওয়াল, পি ভি সিন্ধু। টোকিয়ো অলিম্পিক্সে ব্যাডমিন্টনে ভারতের সেরা দুই বাজি এশিয়া চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে কোয়ার্টার ফাইনালে ছিটকে গেলেন। সাইনা তবু চলতি মরসুমে একটি প্রতিযোগিতা জিতেছেন। কিন্তু সিন্ধু এ বছর ছ’টি প্রতিযোগিতায় নামলেও ফাইনালে উঠতে পারেননি কোনওটিতেই। কোথায় সমস্যা হচ্ছে তাঁদের? দু’জনের এই ছন্দ কতটা প্রভাব ফেলতে পারে অলিম্পিক্স যোগ্যতা অর্জনের আগে প্রশ্ন উঠেছে।

প্রাক্তন জাতীয় কোচ বিমল কুমার মনে করেন সিন্ধুর কয়েক দিন বিশ্রাম দরকার। ‘‘ফেব্রুয়ারিতে জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপের পর থেকেই সিন্ধুর খেলা দেখে আমার মনে হচ্ছে এই পরিস্থিতিটা ও উপভোগ করতে পারছে না। কোর্টে ওর মধ্যে কোথাও একটা যেন উৎসাহের অভাব দেখা যাচ্ছে। তাই আমার পরামর্শ, ওর কয়েক দিন বিশ্রাম দরকার। তবে সাইনার ক্ষেত্রে আমার সে রকম মনে হচ্ছে না। আজকের ম্যাচটাও কিন্তু সাইনা জিততে পারত,’’ বলেন সাইনাকে বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে তোলা প্রাক্তন কোচ। দু’জনের এই টানা হার কি অলিম্পিক্স যোগ্যতা অর্জন পর্বে প্রভাব ফেলবে? বিমল বলেছেন, ‘‘আমার তা মনে হয় না। যোগ্যতা অর্জনের অনেক সময় রয়েছে। ওরা ঠিক সময়েই ছন্দে ফিরবে।’’

ন’বারের জাতীয় চ্যাম্পিয়ন অপর্ণা পোপাট আবার সতর্ক করে দিচ্ছেন সাইনা-সিন্ধুকে। মুম্বই থেকে ফোনে তিনি বললেন, ‘‘সমর্থকদের সাইনা, সিন্ধুর মতো খেলোয়াড়দের কাছ থেকে প্রত্যেক প্রতিযোগিতাতেই সাফল্য আশা করাটা অন্যায় নয়। তবে খেলোয়াড়দের দিক থেকে বলতে পারি, এই পর্যায়ে প্রতি প্রতিযোগিতাতেই সাফল্য পেতে গেলে কোর্টে ৯০ শতাংশেরও বেশি দিতে হয়। সেটা টানা করে যাওয়া অবাস্তব ব্যাপার।’’ 

তিনি আরও বলেছেন, ‘‘১ মে থেকে অলিম্পিক্সে যোগ্যতা অর্জন পর্ব শুরু হচ্ছে। টোকিয়ো অলিম্পিক্সে যোগ্যতা পাওয়ার ক্ষেত্রে খেলোয়াড়দের এই ১২ মাসের পারফরম্যান্স অর্থাৎ র‌্যাঙ্কিং বিচার করা হবে। সে দিক থেকে দেখলে আমার মনে হয়, সাইনা, সিন্ধুকে বেছে প্রতিযোগিতা খেলতে হবে। ঠিক কোন প্রতিযোগিতা থেকে চূড়ান্ত ছন্দে ওঠার চেষ্টা করতে হবে সেটা আগেই পরিকল্পনা করে ফেলতে হবে।’’ 

প্রাক্তন জাতীয় চ্যাম্পিয়ন ও জাতীয় মহিলা কোচ হিসেবে সাইনা, সিন্ধুকে খুব কাছ দেখে দেখা মধুমিতা বিস্তও ভারতীয় তারকা ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়দের এই ব্যর্থতায় আশঙ্কার িকছু না দেখলেও, দ্রুত ভুল শুধরে ফেলার পরামর্শ দিচ্ছেন। নয়াদিল্লি থেকে শুক্রবার ফোনে তিনি বললেন, ‘‘সিঙ্গাপুর ওপেনেও সিন্ধুকে সেমিফাইনালে দেখে এক জন কোচ হিসেবে আমার খুব একটা আত্মবিশ্বাসী মনে হয়নি। সেমিফাইনালেই ও হেরে যায়। জানি না চিনের মেয়েটার কাছে ব্যাডমিন্টন এশিয়া চ্যাম্পিনশিপে এ ভাবে সিন্ধু হারল কেন। সাইনা অবশ্য ক’দিন আগেই পেটের সমস্যা সারিয়ে কোর্টে ফিরেছে। সাইনা, সিন্ধুকে কোথায় ভুল হচ্ছে সেটা  দেখতে হবে। প্রথমে সে দিকেই নজর দিতে হবে। দু’জনেই অলিম্পিক্স পদকজয়ী। তাই ওরা জানে ঠিক সময়ে কী ভাবে জ্বলে উঠতে হয়। আমার বিশ্বাস এ বারও ওরা সেটা পারবে।’’