ফরাসি ওপেনের আগে চোটের ধাক্কা রজার ফেডেরার এবং মেয়েদের বিশ্বের এক নম্বর নেয়োমি ওসাকার। দু’জনেই শুক্রবার ইটালি ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালে নামার আগে নাম তুলে নেন। ওসাকার হাতে এবং ফেডেরারের ডান পায়ে চোট। ফরাসি ওপেনের সপ্তাহখানেক আগেই এই চোট-আতঙ্কে উদ্বিগ্ন দুই টেনিস তারকারই সমর্থকেরা। 

৩৭ বছর বয়সি ফেডেরার দু’বছর পরে ক্লে-কোর্টে প্রত্যাবর্তনের পরে দারুণ ছন্দে ছিলেন। বৃহস্পতিবার ম্যাচ পয়েন্ট বাঁচিয়ে শেষ আটেও ওঠেন। কিন্তু শেষ আটে গ্রিসের স্তেফানোস চিচিপাসের বিরুদ্ধে নামার আগেই ফেডেরার জানান, ‘‘শারীরিক ভাবে ১০০ শতাংশ সুস্থ নই। আমার দলের সঙ্গে আলোচনার পরে ঠিক হয়েছে, আমি এই ম্যাচে নামছি না।’’ ফলে চিচিপাস সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবেন রাফায়েল নাদালের। স্প্যানিশ তারকা শুক্রবার ফের্নান্দো ভার্দাস্কোকে উড়িয়ে 

দেন ৬-৪, ৬-০। গত দুটি গ্র্যান্ড স্ল্যাম যুক্তরাষ্ট্র ওপেন এবং অস্ট্রেলিয়ান ওপেন চ্যাম্পিয়ন ওসাকা নাম তুলে নিতে গিয়ে বলেছেন, ‘‘সকালে ওঠার পর থেকে দেখছি হাতের বুড়ো আঙুলটা নাড়াতে পারছি না। হাতটাও নড়াচড়া করতে গিয়ে সমস্যা হচ্ছে। তাই বুঝতে পারছি না ম্যাচ খেলতে পারব কিনা। অনুশীলন করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু যখনই কোনও দিকে শট খেলতে যাচ্ছি, সমস্যা হচ্ছে।’’ তবে এই চোটের জন্য ফরাসি ওপেন থেকেও সরে যাওয়ার কথা এখনই ভাবছেন না জাপানি তারকা।

এ ভাবে দুই তারকারই চোটের জন্য সরে যাওয়ার জন্য ভক্তরা দায়ী করছেন রোম মাস্টার্সের আয়োজকদের। বুধবার বৃষ্টির জন্য কোনও ম্যাচ না হওয়ায় ওসাকা এবং ফেডেরার দু’জনকেই বৃহস্পতিবার দুটি করে ম্যাচ খেলতে হয়। এই অতিরিক্ত পরিশ্রমেই চোট লেগেছে তাঁদের মনে করছেন অনেকে। ফেডেরারকে তো প্রায় চার ঘণ্টা থাকতে হয় কোর্টে। প্রথম ম্যাচে স্ট্রেট সেটে জয় পেলেও দ্বিতীয় ম্যাচে তাঁকে তিন সেট লড়াই করতে হয় কোয়ার্টার ফাইনালে উঠতে। ম্যাচের পরেই তিনি বলেছিলেন পায়ে সমস্যা হচ্ছে।