ফিসফাসটা বেশ কিছুদিন ধরেই চলছিল। অবশেষে সেটা খোলাখুলি স্বীকারও করে নিয়েছেন সেরেনা উইলিয়ামস। কোচ প্যাট্রিক মৌরাতগ্লুর সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের কথা। কোচ আর প্রেমিকের সঙ্গে জুটিতে তাই এ বারের ফরাসি ওপেনে ২০ নম্বর গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়টা নিশ্চিত করে ফেলতে চান সেরেনা।
মেয়েদের টেনিসে বিশ্বের প্রায় সব খেতাবই সেরেনার দখলে। ফরাসি ওপেনে তাই একটা স্বপ্নকে আঁকড়ে রেখে এগোচ্ছেন তিনি। সেটা মেয়েদের টেনিসে সর্বোচ্চ গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিকারিদের তালিকায় আরও উঠে আসা। যে তালিকায় মার্গারেট কোর্ট (২৪) আর স্টেফি গ্রাফের (২২) পর সেরেনা আছেন যুগ্ম ভাবে তিন নম্বরে (১৯)।
প্যাট্রিক কোচ হওয়ার পর থেকে উইম্বলডন, অলিম্পিকে সোনা, তিনটে য়ুক্তরাষ্ট্র ওপেন, রোলাঁ গারো আর অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জিতেছেন সেরেনা। তাঁকে আবার মেয়েদের টেনিসে যে ভাবে শীর্ষে তুলে এনেছেন প্যাট্রিক, সেটা আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে ফরাসি ওপেনের জন্য বড় পরিকল্পনা ছকে রাখা আছে। আর সম্পর্কটা যখন প্রকাশ্যে চলে এসেছে, তখন আর নিজেদের পরিকল্পনা জানানোয় কোনও সমস্যা নেই সেরেনাদের।

বিশ্বের এক নম্বর যে রকম ফর্মে আছেন তাতে কুড়ি নম্বর সিঙ্গলস গ্র্যান্ড স্ল্যাম জেতাটা অসম্ভব নয়। কিন্তু একটা সমস্যা কিন্তু থাকছে। সেটা হল সেরেনার প্রস্তুতি। ব্রিটিশ মিডিয়ায় সেরেনা বলেছেন, ‘‘আমি এখনও ক্লে কোর্টের জন্য প্রস্তুত নই। ভেবেছিলাম আমি একেবারে প্রস্তুত। কিন্তু সেটা নয়। তাই আমায় প্রস্তুত হতে প্রচুর পরিশ্রম করতে হবে। তার জন্য দিনে যদি আমায় এক হাজার শট মারা প্র্যাকটিস করতেও হয়, সেটাও করব।’’

তবে মারিয়া শারাপোভার সোমবারের ম্যাচ দেখে সেরেনা কিছুটা স্বস্তি পেতে পারেন। মার্কিন তারকার ট্রফি জয়ের পথে সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে ওঠার সম্ভাবনা যাঁর। গত বারের চ্যাম্পিয়ন এ দিন প্রথম ম্যাচেই হোঁচট খেলেন। সেলর শার্ট আর ম্যাচিং নীল স্কার্টে প্যারিসের মেঘলা আকাশেও ফিলিপ শতিয়ের কোর্টে যেন আগুন ঝরাচ্ছিলেন মাশা। গ্ল্যামারের মতো র‌্যাকেট হাতে অবশ্য দাপটটা সে ভাবে দেখা যায়নি।

প্রথম রাউন্ডে রাশিয়ান মহাতারকা মুখোমুখি হয়েছিলেন এস্তোনিয়ার কাইয়া কানেপির। বিশ্বের দুই নম্বর বনাম তাঁর থেকে আটচল্লিশ ধাপ পিছিয়ে থাকা প্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যে লড়াইটা যেমন হওয়ার কথা তেমনই হয়েছে। শারাপোভার পক্ষে ৬-২, ৬-৪ ফল দেখলে সেটাই মনে হবে। কিন্তু যেটা বোঝা যাবে না সেটা হল, যতটা সহজে জেতার মতো জায়গায় চলে এসেছিলেন শারাপোভা তত সহজে জিততে পারেননি।

প্রথম সেটে টানা তিনটে গেম জিতে এক সময় ৪-০ এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল তাঁর। কিন্তু সেটা হয়নি। কানেপি উল্টে সার্ভিস ব্রেক করে গেম দখল করে নেন। সেটা সামলে দ্বিতীয় সেটে ফের শারাপোভার সার্ভিস ভেঙে গেম ছিনিয়ে নেন কানেপি। তার সঙ্গে মাশার একগাদা আনফোর্সড এররের (সব মিলিয়ে ২১টা) সমস্যা তো ছিলই। একটা ম্যাচ পয়েন্টও ফস্কান মাশা। এ সব দেখে সেরেনার ভক্তরা উল্লসিত হতেই পারেন।

এর মধ্যে আবার সোমবার এগোলেন অ্যান্ডি মারে। প্রথম রাউন্ডে স্ট্রেট সেটে জিতলেন তিনি। তারকাপতনও হল। এক সময় বিশ্বের দু’নম্বর ও উইম্বলডন ফাইনালিস্ট অ্যাগনিয়েস্কা রাদওয়ানস্কা প্রথম রাউন্ডেই ছিটকে গেলেন। পুরুষদের সিঙ্গলসে বিদায় নিলেন বিশ্বের ১১ নম্বর ফেলিসিয়ানো লোপেজও।