• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বিজয়োৎসবের মধ্যে স্টোকস হারানোর ধাক্কা ইংল্যান্ডের

England
জুটি: পাকিস্তানকে হারানোর দুই কান্ডারি ওক্‌স ও বাটলার। ছবি: টুইটার। (ডান দিকে) শেষ দুই টেস্টে ইংল্যান্ড পাচ্ছে না স্টোকসকে। ফাইল চিত্র

অবিশ্বাস্য টেস্ট জয়ের পরের দিনই ইংল্যান্ড শিবিরে দুঃসংবাদ। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সিরিজ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেন বেন স্টোকস। পারিবারিক কারণে তাঁকে উড়ে যেতে হবে নিউজ়িল্যান্ডে। যেখানে থাকেন তাঁর বাবা-মা। কিন্তু কেন যাচ্ছেন স্টোকস, তা পরিষ্কার করে জানায়নি ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড।

বেন স্টোকসের বাবা জেড স্টোকস দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ। গত বছর দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে বক্সিং ডে টেস্টের আগে হাসপাতালে ভর্তি হন জেড। প্রায় ৩৭ দিন চিকিৎসা হওয়ার পরে ছাড়া পান তিনি। জেডের সুস্থ হয়ে ওঠার খবর স্টোকস নিজেই জানান সোশ্যাল মিডিয়ায়। ইংল্যান্ড সংবাদমাধ্যমের একটা অংশের ইঙ্গিত, হয়তো বা জেড আবার অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এই নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে। 

স্টোকস নিয়ে এই জল্পনার মাঝে টেস্ট জয়ের দুই নায়ককে নিয়ে মেতে উঠেছে ইংল্যান্ড। জস বাটলার এবং ক্রিস ওক্‌স। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রথম ইনিংসে খলনায়ক হয়ে উঠেছিলেন উইকেটকিপার বাটলার। পাক ওপেনার শান মাসুদের ক্যাচ ফস্কান। এর পরে শানের ৪৫ রানের মাথায় একটি স্টাম্পিংও হাতছাড়া করেন বাটলার। ১৫৬ রান করে ইংল্যান্ডকে চাপে ফেলে দেন সেই শান।

যার পরে ইংল্যান্ড উইকেটকিপার ভেবেছিলেন, এটাই হয়তো তাঁর শেষ টেস্ট। চতুর্থ ইনিংসে চাপের মধ্যে ২৭৭ রান তাড়া করার সুযোগ আসে বাটলারের সামনে। যে সুযোগ হাতছাড়া করেননি তিনি। ৭৫ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলে প্রথম টেস্ট জিতিয়ে দুঃস্বপ্ন মুক্ত হন বাটলার। ৮৪ রানে অপরাজিত থাকেন সঙ্গী ক্রিস ওক্‌স।

ম্যাচ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে ভিডিয়ো কনফারেন্সে বাটলার জানান, দেশকে জিতিয়ে কতটা স্বস্তি পেয়েছেন। বলেছেন, ‘‘এ রকম একটি ইনিংস খেলে দেশকে জেতাতে পেরে গর্ববোধ করছি। যদি আগে দু’টো ক্যাচ নিয়ে নিতাম, তা হলে হয়তো দুই ঘণ্টা আগে জিতে যেতাম এই ম্যাচ।’’ 

তিনি যে নিজের মান অনুযায়ী কিপিং করেননি, তা স্বীকার করেন বাটলার। তাঁর কথায়, ‘‘আমি যে ভাল কিপিং করতে পারিনি, তা অবশ্যই উপলব্ধি করতে পেরেছি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোনও ভাবেই এ ধরনের ভুল করা যায় না। তাই তখন মনে হয়েছিল, হয়তো শেষ টেস্ট খেলে ফেললাম।’’

ওক্‌সের সঙ্গে জুটি গড়ার সময় কী পরিকল্পনা ছিল? বাটলারের উত্তর, ‘‘আমরা ঠিক করেছিলাম, অতিরিক্ত সাবধানি ক্রিকেট খেলব না। ওভার প্রতি চার রানের গড় রাখব। যাতে দ্বিতীয় নতুন বলের মোকাবিলা
করতে না হয়।’’

ম্যাচের সেরা ওক্‌স ভাবতেই পারেননি এ ভাবে তিনি জিতিয়ে দেবেন। বললেন, ‘‘বাটলারের সঙ্গে ব্যাট করার সময় ভাবিনি এই ম্যাচ বেরিয়ে যাবে। শুধুমাত্র ব্যাটিং উপভোগ করার জন্য খেলছিলাম। দেশকে জেতাতে পেরে ভাল লাগছে।’’

অন্য দিকে, পাক শিবিরে হতাশার সুর। অধিনায়ক আজ়হার আলির সমালোচনা করলেন কিংবদন্তি পেসার ওয়াসিম আক্রম। তিনি বলেছেন, ‘‘আ‌জ়হার সুযোগ নষ্ট করল। ওক্‌স ক্রিজে আসার পরে বোলারদের নির্দেশ দেওয়া উচিত ছিল ওর শরীর লক্ষ্য করে বল করার। আমাদের কাছে ১৭ বছরের নাসিম শাহ আছে। ২২ বছরের শাহিন শাহ আফ্রিদি আছে। ওদের আরও বেশি করে ব্যবহার করা উচিত ছিল।’’ যোগ করেন, ‘‘বাটলার, ওক্‌সকে আমরাই থিতু হওয়ার সুযোগ দিয়েছি আক্রমণ না করে।’’

আজ়হার বলেছেন, ‘‘দ্বিতীয় ইনিংসে বড় রান করে ম্যাচ জেতার সুযোগ পেয়েছিলাম। কিন্তু সেই সুযোগ নষ্ট করেছি। টেস্টে আমাদের ব্যাটসম্যানেরা রান-আউট হয়েছে। যা বড় অপরাধের সমান।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন