বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার আগে থেকে ব্যাটিং অর্ডারের চার নম্বর নিয়ে ছিল সংশয়। যে প্রশ্নের জবাব হয়তো ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে এই সিরিজেই পেয়ে যাবে ভারত। 

টি-টোয়েন্টি সিরিজে ঋষভ পন্থকে নামানো হয়েছিল চার নম্বরে। ওয়ান ডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচেও (প্রথম ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেস্তে যায়) চারে নামলেন ঋষভ। একটা সময় শ্রেয়স আইয়ারের নামও নাকি চার নম্বরের জন্য ভেসে উঠেছিল। কিন্তু দেখা যাচ্ছে শ্রেয়সকে পাঁচ নম্বরেই পছন্দ করছে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট। রবিবারও তিনি পাঁচে নেমেই সফল। করলেন ৬৮ বলে ৭১। 

মুম্বইয়ের তরুণ ব্যাটসম্যান শনিবারই সাংবাদিক বৈঠকে জানিয়েছিলেন, যে কোনও জায়গার তিনি ব্যাট করতে তৈরি। নিজেকে সে ভাবেই তৈরি করেছেন। রবিবার সেটাই প্রমাণ করে দেখালেন। ম্যাচের আগে শ্রেয়স বলেছিলেন, ‘‘চার নম্বরে কাকে নামানো হবে, তা নিয়ে আমার কোনও ধারণাই নেই। আমি তো টিম ম্যানেজমেন্টকে গিয়ে আর বলতে পারি না যে, চার নম্বরে ব্যাট করতে দিন। আর তারা সেটা শুনবেই বা কেন।’’

শ্রেয়সের বিশ্বাস, দলের কাছে চার নম্বর ব্যাটসম্যান বেছে নেওয়ার সময় রয়েছে। উপযুক্ত ক্রিকেটারেরা অবশ্যই সুযোগ পাবেন। ‘‘বিশ্বকাপ শেষ হলেও চার নম্বর এখনও ঠিক হয়নি। বেছে নেওয়ার সুযোগ রয়েছে। অনেকেই হয়তো সেই জায়গায় সুযোগ পেয়েছে। ভবিষ্যতে আরও পাবে। তাদের মধ্য থেকেই এক জনকে বেছে নেবে দল।’’ শ্রেয়স যদিও ব্যাটিং অর্ডারের যে কোনও জায়গায় নামতে প্রস্তুত। বলছিলেন, ‘‘শুধুমাত্র চার নম্বর কেন! যেখানে সুযোগ দেওয়া হবে, সেখানেই নিজের সেরাটা দিতে চেষ্টা করব। সুযোগ পাওয়াই আসল। কোন জায়গায় পেলাম সেটা বড় কথা নয়।’’

ভারতের হয়ে পাঁচটি ওয়ান ডে ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা তাঁর। দু’টি হাফসেঞ্চুরিও রয়েছে। কিন্তু শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন প্রায় এক বছর আগে। সিনিয়র দলের হয়ে ওয়ান ডে সিরিজ খেলতে আসার আগেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ ‘এ’ দলের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজ খেলে গিয়েছেন শ্রেয়স। চার ইনিংসে ১৮৭ রান করেন তিনি। সেটাই তাঁকে আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সাহায্য করছে। কিন্তু বৃষ্টির আতঙ্ক ভুলে থাকতে পারছেন না। বলছিলেন, ‘‘ভারত ‘এ’ দলের হয়ে খেলার অভিজ্ঞতা অবশ্যই কাজে লাগবে। তবে বৃষ্টিতে সেই সুযোগ ভেস্তে গেলে কিছু করার থাকবে না। আমি মনে করি, এখনও দু’টি ম্যাচ আমার হাতে রয়েছে। তার মধ্যেই পারফর্ম করে দেখাতে হবে।’’