শেষ হল তৃতীয় দিনের খেলা। দিনের শেষে দক্ষিণ আফ্রিকা ৮.৩ ওভারে ১৭/১। ৪ রানে মহম্মদ শামির বলে প্যাভিলিয়নে ফেরেন প্রোটিয়া ওপেনার মার্করাম। অপরাজিত আছেন ডিন এলগার(১১) এবং হাসিম আমলা(২)। জয়ের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার প্রয়োজন এখনও ২২৪ রান।

দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে ২৪০ রানের লক্ষ্য রাখল বিরাট কোহালির টিম ইন্ডিয়া। জোহানেসবার্গে ২৪৭ রানে শেষ হল ভারতের দ্বিতীয় ইনিংস। ভারতের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৮ রান করেন অজিঙ্ক রাহানে। রাহানে ছাড়াও ম্যাচে ভারতের ভীত শক্ত করেন টেলেন্ডাররা। ৩৩ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন ভুবনেশ্বর কুমার। ভুবি ছাড়াও ব্যাট হাতে ২৭ রানের ইনিংস খেলেন মহম্মদ শামি।

অন্য দিকে, দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে ৩টি করে উইকেট নেন কাগিসো রাবাডা, মর্নি মর্কেল এবং ভার্নন ফিল্যান্ডার। একটি শিকার লুঙ্গি এনগিডির।

 

টি ব্রেক

টি ব্রেক পর্যন্ত ভারতের রান ৬৫ ওভারে ১৯৯/৬। এই ইনিংসে দু'উইকেট হারায় ভারত। ৪১  রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন অধিনায়ক বিরাট কোহালি। বিরাটের উইকেট নিয়ে ভারতীয় ব্যাটিংলাইন আপকে কিছুটা বিপদে ফেলেন কাগিসো রাবাডা। বিরাটের পাশাপাশি ৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন হার্দিক পাণ্ড্য। তবে দু'উইকেট হারালেও ভারতীয় ব্যাটিং লাইনআপকে চাপে পড়তে দেননি অজিঙ্ক রাহানে এবং ভুবনেশ্বর কুমার। ৪৬ রানে ক্রিজে অপরাজিত আছেন রাহানে। ২৩ রান করে রাহানেকে যোগ্য সঙ্গত দিচ্ছেন ভুবনেশ্বর কুমার। 

লাঞ্চ ব্রেক

ওয়ান্ডারার্সের পিচ নিয়ে প্রথম দিন থেকেই অসন্তুষ্ট প্রাক্তনরা। টুইট করে পিচ নিয়ে নিজের ক্ষোভও প্রকাশ করেছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের মতো প্রাক্তন তারকা। সেই পিচই তৃতীয় দিনে বারবার রং বদলাল। অসমান বাউন্সে বারবার নাজেহাল ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। মুরলী বিজয় বিজয় এবং চেতেশ্বর পূজারার পর পিচের চরিত্রের ফেরে চোট পেতে হয় বিরাট কোহালিকেও।

তৃতীয় দিনে পর পর উইকেট হারিয়ে কিছুটা ব্যাকফুটে রয়েছে বিরাট কোহালির ভারত। এ দিন প্রথম প্যাভিলিয়নে ফেরেন লোকেশ রাহুল। ভার্নন ফিল্যান্ডারের বলে দু’প্লেসির হাতে ক্যাচ দিয়ে ১৬ রানে আউট হন তিনি। রান পাননি চেতেশ্বর পূজারাও। মাত্র ১ রান করে মর্নি মর্কেলের বলে আউট হন পূজারা। ২৫ রানে প্যাভিলিয়নে ফেরেন ওপেনার মুরলী বিজয়।

লাঞ্চ পর্যন্ত ভারতের রান ৪০.৫ ওভারে ১০০/৪।