তিন ম্যাচের মধ্যে মিতালি রাজ-রা ২-০ এগিয়ে থাকায় সিরিজ ভারতের হাতে এসে গিয়েছিল আগেই। আশা করা গিয়েছিল, নেলসন ম্যান্ডেলার দেশে একদিনের সিরিজ ৩-০ জিতে হোয়াইটওয়াশ করবেন ঝুলন গোস্বামীরা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই আশা পূর্ণ হল না ভারতীয় মহিলা ক্রিকেট দলের।

শনিবার পচেস্ট্রুম-এ বেদা কৃষ্ণমূর্তি-রা দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে হারলেন সাত উইকেটে। ফলে সিরিজ ভারতের পক্ষে শেষ হল ২-১।  ১১১ বলে অপরাজিত ৯০ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলে দক্ষিণ আফ্রিকার জয়ের নায়ক মিগনন ডুপ্রিজ। জয়ের জন্য শেষ পাঁচ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার দরকার ছিল ৪২ রান। এই পরিস্থিতিতেই ব্যাটে ঝড় তোলেন ডুপ্রিজ। চার বল বাকি থাকতেই জয় ছিনিয়ে আনেন ভারতের থেকে। প্রথমে ব্যাট করে ভারতীয়রা অলআউট হয়ে গিয়েছিল ২৪০ রানে। জবাবে ৪৯.২ ওভারেই তিন উইকেট হারিয়ে জয়ের রান তুলে নেয় দক্ষিণ আফ্রিকা।  টসে জিতে এ দিন ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ভারতীয় অধিনায়ক মিতালি রাজ। সিরিজ জিতে থাকায় এ দিন বিশ্রাম দেওয়া হয়েছিল ঝুলন গোস্বামীকে। ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় ভারত। চলতি সফরে ফর্মে থাকা ভারতীয় ওপেনার স্মৃতি মানধানা প্রথম ওভারের তৃতীয় বলেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন কোনও রান না করেই। তাঁকে ফিরিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকানদের হয়ে পাল্টা লড়াইয়ের বার্তাটা ভারতীয় শিবিরে পৌঁছে দেন তাদের বাঁ হাতি পেসার শবনিম ইসমাইল। নয় ওভার বল করে ৩০ রানে চার উইকেট নিয়ে ভারতীয় ইনিংসকে আয়ত্বের বাইরে চলে যেতে দেননি তিনি। স্মৃতি মানধানা (০) ছাড়াও এ দিন তাঁর বাকি তিন শিকার ভারতীয় উইকেটকিপার সুষমা বর্মা (১৭), একতা বিস্ত (১) এবং এ দিনের ম্যাচেই একদিনের আন্তর্জাতিক অভিষেক হওয়া পূজা বস্ত্রকার। এক সময় ১৮ ওভারের মধ্যে ৫৭ রানে তিন উইকেট চলে যাওয়ায় সমস্যায় পড়ে ভারত।

ভারতীয়দের মধ্যে এ দিন ব্যাট হাতে সফল ওপেনার দীপ্তি শর্মা (৭৯)। ঘরোয়া ক্রিকেটে যিনি বাংলার হয়ে খেলেন। এবং মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান বেদা কৃষ্ণমূর্তি (৫৬)। পুনম রাউতের বদলে এ দিন ব্যাটিং অর্ডারে তুলে আনা হয়েছিল দীপ্তিকে। যে দায়িত্ব তিনি পালন করেন সফল ভাবেই। তাড়াহুড়ো না করলে এ দিন শতরান প্রায় বাধা ছিল দীপ্তির। চতুর্থ উইকেটে বেদা ও দীপ্তির ৮৩ রানের জুটি এ দিন ২৪০ রানে পৌঁছাতে সাহায্য করে ভারতকে।

জবাবে শুরুতে ১০ রানের মাথায় ওপেনার লিজেল লি-র উইকেট হারিয়ে শুরুতে ব্যাটিং বিপর্যের মুখে পড়েছিল ভারত। কিন্তু সেই জায়গা থেকে দক্ষিণ আফ্রিকানদের জয়ে পৌঁছে দেন লরা উলভার্ট (৫৯) ও মিগনন ডুপ্রিজ। শেষের দিকে নেমে ৩০ বলে অপরাজিত ৪১ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন ডেন ফান নাইকার্ক।