বজরং পুনিয়া রাশিয়ায়। তাঁর পাখির চোখ, বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের পদকে। যে কারণে বিদেশে প্রস্তুতি নিচ্ছেন। বৃহস্পতিবার তাই উপস্থিত থাকতে পারলেন না রাষ্ট্রপতি ভবনে। এশিয়ান গেমসে সোনাজয়ী ভারতীয় কুস্তিগির রাজীব গাঁধী খেলরত্ন প্রাপক। অবশ্য যুগ্ম ভাবে দীপা মালিকের সঙ্গে। বজরং না থাকায়, খেলায় কৃতিত্বের পুরস্কার দেওয়ার অনুষ্ঠান উজ্জ্বল হয়ে উঠল প্যারালিম্পিক্সে রুপোজয়ী দীপাকে ঘিরেই।

দীপার মতো এত বয়সে (৪৯ বছর) আগে এই সম্মান কেউ পাননি।

রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের হাত থেকে স্মারক নিয়ে দীপা বললেন, ‘‘অনেকটা পথ হাঁটতে হয়েছে। এই যাত্রা শারীরিক সীমাবদ্ধতার প্রতি মানুষের মানসিকতা পাল্টাতে এবং সুপ্ত প্রতিভা চিনিয়ে দিতে।’’ আরও বললেন, ‘‘মনে হয় এই সম্মান আমার মতো অবস্থায় থাকা মহিলা অ্যাথলিটদের অনুপ্রাণিত করবে।’’ বি সাই প্রণীত থেকে গুরপ্রীত সিংহ সাঁধু।

সম্মান: অর্জুন পুরস্কার নিয়ে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে স্বপ্না বর্মণ।  বৃহস্পতিবার। পিটিআই

রাষ্ট্রপতি ভবনে বসেছিল আক্ষরিক ভারতীয় খেলাধুলোর চাঁদের হাট। এত ভিড়ে দুই তারকা কিন্তু বাংলারও। এশিয়ান গেমসে সোনাজয়ী অ্যাথলিট স্বপ্না বর্মণ এবং টেবল টেনিস কোচ অরূপ বসাক। স্বপ্না হলেন অর্জুন। অরূপ পেলেন ধ্যানচাঁদ পুরস্কার।