গল টেস্টে নামার আগে অনিল কুম্বলের ছায়া যে ভারতীয় দল থেকে অদৃশ্য, তা সোমবার জানিয়ে দিয়ে গেলেন আর. অশ্বিন।

বুধবার থেকে গলে শুরু হচ্ছে ভারত-শ্রীলঙ্কা সিরিজের প্রথম টেস্ট। তার আগে অশ্বিন পরিষ্কার বলে দিলেন, ‘‘আমাদের কাছে এখন অনিল কুম্বলের ঘটনাটা অতীত। যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার, তা তো নেওয়াই হয়ে গিয়েছে। আর সত্যি বলতে কী, এই নিয়ে মন্তব্য করার কোনও জায়গায় আমি নেই।’’

কুম্বলে-ঘটনা নিয়ে মুখ না খুলতে চাইলেও রবি শাস্ত্রী নিয়ে কথা বলতে আপত্তি করেননি ভারতের অফস্পিনার। অশ্বিনের কথায়, ‘‘রবি ভাই দারুণ লোক। ওঁর মতো কাউকে ড্রেসিংরুমে পাওয়াটা খুব ভাল ব্যাপার।’’ গত শ্রীলঙ্কা সফরের অভিজ্ঞতা টেনে এনে অশ্বিন বলেছেন, ‘‘গত বার আমরা গল টেস্টে হেরে ভেঙে পড়েছিলাম। সেখান থেকে রবি ভাই আমাদের টেনে তোলে। ড্রেসিংরুমে একটা ইতিবাচক পরিবেশ সৃষ্টি করতে রবি ভাইয়ের জুড়ি নেই। ওঁর সঙ্গে মিলে আমরা এ বার একটা দারুণ ফল করতে চাই এই সফরে।’’

গল টেস্ট ব্যক্তিগত ভাবে অশ্বিনের কাছে এক মাইলফলকও হয়ে থাকবে। গলে নিজের ৫০তম টেস্ট খেলতে নামবেন অশ্বিন। তিনি নিজে অবশ্য যে ব্যাপরটা নিয়ে খুব একটা মাথা ঘামাতে চান না। বলেছেন, ‘‘৫০ নম্বরটা আমার কাছে একটা সংখ্যা মাত্র। কী ভাবে এখানে পৌঁছলাম, তা আমি মনে করতে পারব না। আমি পিছনে নয়, সামনে তাকাতে চাই।’’ অশ্বিন এও বুঝিয়ে দিয়েছেন, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অত্যন্ত কঠিন জায়গা। নিজের রেকর্ডের দিকে তাকিয়ে বসে থাকলে যেখানে মূল্য চোকাতে হয়। ‘‘হ্যাঁ, আপনি হয়তো এক দিন কফির কাপে চুমুক দিতে দিতে ভাবলেন, কী করেছি এত দিন। ব্যস, ওই পর্যন্ত। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অনেক কঠিন জায়গা। এখানে আপনি অতীত নিয়ে পড়ে থাকলে পিছিয়ে যাবেন লড়াই থেকে।’’

দু’বছর আগের শ্রীলঙ্কা সফর এখনও ভুলতে পারেননি অশ্বিন। তাঁর কাছে ভারতীয় ক্রিকেটের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত ওই সিরিজ জয়। ‘‘ওই সময় আমরা অধিনায়ক পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলাম। অস্ট্রেলিায় বিরাট তখন সবে নেতৃত্ব পেয়েছে। তার পরে বাংলাদেশে একটা টেস্ট খেলে আমরা এখানে টেস্ট সিরিজ খেলতে আসি। আমরা তখন নিজেদের জন্য নানা লক্ষ্য স্থির করেছিলাম। এখন বলতে ভাল লাগছে যে, গ্রুপ হিসেবে আমরা সে সব লক্ষ্য পূরণ করেছি। আমরা অনেক ভাল ক্রিকেটার তুলে এনেছি। অনেক তরুণ ক্রিকেটারও উঠে এসেছে,’’ বলেছেন অশ্বিন।

আরও পড়ুন:নেতিবাচক প্রশ্নগুলো বন্ধ করে দিল ঝুলন-মিতালিরা

ওই সফরের কথা বলতে গিয়ে তিন জন ক্রিকেটারের নাম করছেন অশ্বিন, ‘‘আমি তিন জনের কথা বলব। রবীন্দ্র জাডেজা, চেতেশ্বর পূজারা এবং আমি। তিন জনের জন্যই সিরিজটা ভাল ছিল। প্রথম টেস্টে বাইরে থাকার পরে শেষ টেস্টে পূজারা ফিরে এসে খুব ভাল ইনিংস খেলেছিল।’’

৪৯ টেস্টে ২৭৫ উইকেটের মালিক কি মনে করতে পারেন তাঁর দু’একটা শিকারকে? অশ্বিন বলছেন, ‘‘দু’বছর আগে এখানে দ্বিতীয় টেস্টে কুমার সঙ্গকারাকে আউট করাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। ওই ২০১৫ সালে নাগপুরে এ বি ডিভিলিয়ার্সকে আউট করাটাও ভুলব না। উইকেট স্পিনারদের সাহায্য করেছিল ঠিকই, কিন্তু আমরা ওকে ফাঁদে ফেলেছিলাম।’’ এ ছাড়া আরও দু’জনের নাম করেছেন অশ্বিন। শন মার্শ (সিডনি, ২০১৪) এবং ডেভিড ওয়ার্নার (২০১৭)। এ বারের শ্রীলঙ্কা সফরে সেই তালিকায় আর কোন নাম যুক্ত হয়, সেটাই দেখার।