ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যাওয়ার আগে বিরাট কোহালি বলে গিয়েছিলেন, ভারতীয় দলের কোচ হিসেবে রবি শাস্ত্রীই তাঁর পছন্দ। ভারত অধিনায়কের যে বক্তব্যের পরে অনেকে মনে করছেন, এর ফলে পরবর্তী কোচ হওয়ার দৌড়ে অনেকটাই এগিয়ে আছেন শাস্ত্রী। 

এই কথা অবশ্য মানতে চাইছেন না কোচ নির্বাচনের জন্য গঠিত অ্যাড হক প্যানেলের অন্যতম সদস্য অংশুমান গায়কোয়াড়। তিনি পরিষ্কার বলে দিয়েছেন, কোহালির বক্তব্য কোনও নির্দেশিকা নয়। বুধবার সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে গায়কোয়াড় বলেছেন, ‘‘কোহালি কী বলল বা অন্য কে কী বলছে, এই ব্যাপারটা আমরা মাথায় রাখছি না। আমরা সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ অবস্থায় কোচ নির্বাচন করতে বসব।’’

গত বছর কপিল দেব, গায়কোয়াড় এবং শান্তা রঙ্গস্বামীদের এই কমিটিই মেয়েদের ক্রিকেটে কোচ হিসেবে ডব্লিউ ভি রামনকে বেছে নিয়েছিল। সে সময়েও অনেক বিতর্ক হয়েছিল। গায়কোয়াড় মনে করিয়ে দিচ্ছেন, তাঁদের কমিটি সেই সময়ও কারও মন্তব্য বা পরামর্শ শোনেনি। তিনি বলছেন, ‘‘আপনাদের মনে আছে কি না, জানি না। মেয়েদের কোচ বাছাইয়ের সময়ও অনেক বিতর্ক হয়েছিল। কিন্তু আমরা কারও মতামত নিইনি।’’

ভারত অধিনায়ক যে মন্তব্য করেছেন, তা নিয়ে গায়কোয়াড় বলেছেন, ‘‘দেখুন, কোহালি বা শাস্ত্রী যা-ই বলুক না কেন, আমাদের তো ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের নিয়ম মেনেই চলতে হবে। সাংবাদিক বৈঠকে কোহালিকে ওর পছন্দ নিয়ে প্রশ্ন করা হয়েছিল। কোহালি ওর পছন্দ হিসেবে শাস্ত্রীর নাম করে। এর সঙ্গে আমাদের কোনও সম্পর্ক নেই। আমরা খোলা মনে এবং সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ অবস্থায় বৈঠকে যাব।’’

গায়কোয়াড় জানাচ্ছেন, তাঁরা এখন ভারতীয় বোর্ডের নির্দেশিকা পাওয়ার অপেক্ষায় আছেন। নিজেদের মধ্যে প্যানেলের সদস্যরা এখনও কথা বলেননি বলে জানিয়েছেন গায়কোয়াড়। ‘‘আমরা বোর্ডের গাইডলাইন মেনেই এগোব। তবে আমি আর কপিল, দু’জনেই অতীতে ভারতের কোচ ছিলাম। আমার মনে হয়, এ ক্ষেত্রে কোচের ম্যান ম্যানেজমেন্ট, টেকনিক্যাল দক্ষতা এবং পরিকল্পনা তৈরি করার ক্ষমতা থাকতে হবে। কোচ হিসেবে সাফল্য পেতে গেলে এই তিনটি গুণ অবশ্যই থাকা দরকার।’’

গায়কোয়াড় নিজেও দিন কয়েক আগে শাস্ত্রী সম্পর্কে বলেছিলেন, কোচ হিসেবে খুব ভাল কাজ করেছেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার। যা নিয়ে গায়কোয়াড় এখন বলছেন, ‘‘সবাই তো ভারতের পারফরম্যান্স দেখেছে। বিশ্বকাপে কেমন খেলেছে, তাও জানে। এখন আমি কোচ বাছাই প্যানেলের সদস্য। তাই ওদের পারফরম্যান্স নিয়ে কথা বলে আর বিতর্ক বাড়াতে চাই না।’’