ব্রাজিল সম্পর্কে তাঁর মনে একটা দুর্বলতা আছে। তাঁর প্রিয় বন্ধুর নাম নেমার দা সিলভা স্যান্টোস (জুনিয়র)। আর বিশ্বকাপের সমাপ্তি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে রাশিয়ায় এসে সেই নেমার নিয়েই বিদ্রুপ হজম করতে হল হলিউডের তারকা উইল স্মিথকে।

বিশ্বকাপের সমাপ্তি অনুষ্ঠানে স্মিথের সঙ্গে থাকবেন দুই গায়ক এরা ইসত্রেফি এবং নিকি জ্যাম। শনিবার সাংবাদিক বৈঠকে আসা স্মিথকে প্রশ্ন করা হয়, এই বিশ্বকাপে আপনি কাকে সমর্থন করছেন? স্মিথের জবাব, ‘‘আমি ব্রাজিলে অনেক সময় কাটিয়েছি। এই দলটার প্রতি আমার দুর্বলতা আছে। এই দলটাকে সত্যিই ভালবাসি। আর নেমারের সঙ্গেও আমার বিশেষ সম্পর্ক আছে।’’

নেমার এবং ব্রাজিল দল নিয়ে স্মিথ আরও বলেন, ‘‘আমি যখন ছোট ছিলাম, তখন সব সময় পেলের নাম শুনতাম। তখন থেকেই ব্রাজিলের প্রতি ভালবাসা জন্মে গিয়েছে। আর এখন নেমার আমার অন্যতম প্রিয় খেলোয়াড়।’’ এই বিশ্বকাপে সামান্য ধাক্কা খেলেই বার বার পড়ে গিয়েছেন নেমার। যা নিয়ে তীব্র বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। কাঠগড়ায় তোলা হয়েছে ব্রাজিলীয় তারকাকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্রমাগত ঠাট্টা-বিদ্রুপ করা হয়েছে নেমারকে নিয়ে। এ বার এক ব্রাজিলীয় সাংবাদিক স্মিথকে প্রশ্ন করেন, বিশ্বকাপে নেমারের অভিনয় কেমন লাগল? শুনে স্মিথ বলেন, ‘‘আমি অনেক দিন ধরে এ সব সামলেছি। আপনার প্রশ্নের জবাব পাবেন না আমার কাছ থেকে। শুধু বলব, রাশিয়ায় দারুণ কাজ করেছে নেমার।’’

ব্রাজিলের এক ডিজাইনার ইংরেজি বর্ণমালার ধাঁচে নেমারের পতনের বিভিন্ন মুহূর্তের ছবি তুলে ধরেছেন। যা ছড়িয়ে পড়েছে নেট দুনিয়ায়। স্মিথের মন্তব্য, ‘‘বিশ্ব মঞ্চে কিছু করতে গেলে ভাল, খারাপ দু’রকম পরিস্থিতির মুখেই পড়তে হবে।’’ এর পরে নিজের উদাহরণ দিয়ে হলিউড তারকা বলেন, ‘‘এই ধরুন, অভিনেতা হিসেবে কখনও আমি ‘দ্য পারস্যুট অব হ্যাপিনেস’ করার সুযোগ পেয়েছি, কখনও বা ‘ইন্ডিপেন্ডেন্স ডে’। আর কখনও কদাচিৎ ‘ওয়াইল্ড ওয়াইল্ড ওয়েস্ট’-এর মতো সিনেমাও করতে হয়েছে।’’ স্মিথের কাছে আরও জানতে চাওয়া হয়, কোয়ার্টার ফাইনালে ব্রাজিলের বিদায় নিয়ে কী বলবেন? স্মিথের জবাব, ‘‘ব্রাজিল হয়তো ‘মেন ইন ব্ল্যাক’-এর মতো হিট সিনেমা নয়, আবার ‘ওয়াইল্ড ওয়াইল্ড ওয়েস্ট’-এর মতোও হয়নি। আমি বলব, ব্রাজিলের বিদায় নেওয়ার ঘটনা মাঝামাঝি জায়গায় থাকবে।’’

ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো নিয়েও প্রশ্ন ওঠে। এবং, স্মিথের জবাব, ‘‘আমি ছেলেটাকে খুব ভালবাসি। রোনাল্ডোর সঙ্গে একবার দেখা হয়েছিল। ওর রুচি এবং স্টাইলটা দারুণ।’’