এক জার্মানকে হারালেন উইম্বলডন সেমিফাইনালে। এ বার ফাইনালে আর এক জার্মান টেনিস তারকা অপেক্ষা করছেন সেরিনা উইলিয়ামসের সামনে।

বৃহস্পতিবার স্ট্রেট সেটে জার্মানির ইউলিয়া গর্গেসকে হারান সেরিনা। ম্যাচের ফল ৬-২, ৬-৪। অন্য দিকে, অপর সেমিফাইনালে ইয়েলিনা অস্তাপেঙ্কোকে ৬-৩, ৬-৩ হারিয়েছেন জার্মানির অ্যাঞ্জেলিক কের্বের। ফলে এ বার উইম্বলডনে মহিলাদের ফাইনালে দ্বৈরথ সেরিনা বনাম কের্বের-এর। শনিবারের যে ফাইনালকে ইতিমধ্যেই টেনিস বিশেষজ্ঞরা বলতে শুরু করে দিয়েছেন, ২০১৬ সালের উইম্বলডন ফাইনালের রিপ্লে। সে বার বর্তমান বিশ্বের ১০ নম্বর মহিলা টেনিস তারকা কের্বেরকে হারিয়েছিলেন সেরিনা। এ বার মা হওয়ার পরে ফের টেনিস কোর্টে নেমে মার্কিন এই টেনিস তারকা আগের ফলই বজায় রাখতে পারেন কি না, সেটাই দেখার। কের্বের-এর বিরুদ্ধে মুখোমুখি সাক্ষাতে যদিও এগিয়ে রয়েছেন সেরিনা। দু’জনের দ্বৈরথে সেরিনা এগিয়ে ৬-২। কেরিয়ারে এটি ৩০তম গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফাইনাল সেরিনার।

এ দিন জয়ের ফলে টেনিসের ওপেন যুগে সেরিনা হলেন তৃতীয় খেলোয়াড়, যিনি সবচেয়ে বেশি বয়সে কোনও গ্র্যান্ড স্ল্যাম প্রতিযোগিতার ফাইনালে গেলেন। এই মুহূর্তে মার্কিন এই টেনিস তারকার বয়স ৩৬ বছর ২৯১ দিন।

সফল: অস্তাপেঙ্কোকে হারিয়ে উচ্ছ্বসিত কের্বের।  ছবি: এএফপি

অতীতে উইম্বলডনের সেন্টার কোর্টে দেখা গিয়েছে বিপক্ষকে আগ্রাসী টেনিস খেলে ‘পাওয়ার-হিটিং’-এ ছিটকে দিয়েছেন সেরিনা। সেখানে এ দিন সেমিফাইনালে বিশ্বের ১৩ নম্বর ইউলিয়া গর্গেসকে হারাতে সেরিনা সময় নেন ৭০ মিনিট। যে সময়ের মধ্যে ১৬ টি উইনার এবং পাঁচটি ‘এস’ মেরে খেলা শেষ করে দেন তিনি। গত সেপ্টেম্বরে কন্যা অলিম্পিয়ার জন্ম হওয়ার পরে ফের কোর্টে নেমে এটি সেরিনার চতুর্থ টুর্নামেন্ট।

আরও পড়ুন:  মদ্রিচদের এই অদম্য মনের জোরই ফারাক গড়ে দিয়েছে  

উইম্বলডনের ফাইনালে উঠে সেরিনা বলছেন, ‘‘দারুণ আনন্দ হচ্ছে। যা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব নয়। চতুর্থ টুর্নামেন্টেই যে পাইনালে চলে যাব, তা আশা করিনি। সন্তানের জন্মের সময় বড়সড় অস্ত্রোপচার করতে হয়েছিল। ফলে ফের নিজস্ব ছন্দে টেনিস খেলতে পারব কি না তা নিয়ে এক সময় মনে সংশয়ও এসেছিল।’’ ফাইনালে কের্বেরকে হারালেই মার্গারেট কোর্টের ২৪ টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের রেকর্ড স্পর্শ করবেন সেরিনা। পাশাপাশি পিছনে ফেলবেন স্টেফি গ্রাফের সাতটি উইম্বলডনের নজিরকেও। সেক্ষেত্রে অষ্টম উইম্বলডন জিতলে সেরিনার সামনে থাকবেন কিংবদন্তি মার্টিনা নাভ্রাতিলোভা। যিনি তাঁর খেলোয়াড় জীবনে নয় বার উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন।