অতীতের ব্যর্থতা মুছে এ বার টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট বিশ্বকাপে কিছু করতে মরিয়া ভারতের মেয়েরা। আজ, শুক্রবার গায়ানায় নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচ দিয়ে তাঁদের বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করছেন হরমনপ্রীত কৌররা। তার আগে অবশ্য যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী দেখাচ্ছে ভারতীয় দলকে।

এর আগে পাঁচ বার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলেও ফাইনালে পৌঁছতে পারেনি ভারত। গত বার ৫০ ওভারের বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠে সাড়া জাগিয়েছিলেন মিতালি রাজরা। কিন্তু ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম ফর্ম্যাটে ভারতের পারফরম্যান্স সে রকম কিছু নয়। ভারতের সেরা পারফরম্যান্স ২০০৯ এবং ২০১০ সালে সেমিফাইনালে পৌঁছনো। এর আগে ছেলেদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পাশাপাশি হত মেয়েদের বিশ্বকাপ। এ বারই প্রথম আলাদা ভাবে হচ্ছে। সেখানে কতটা কী আশা করা যায় হরমনপ্রীতদের কাছ থেকে?

দলের সহ-অধিনায়ক স্মৃতি মন্ধানা মনে করছেন, ভাল ফল করার জন্য ভারতীয় ক্রিকেটারেরা তৈরি। তিনি মনে করছেন, জুনে টি-টোয়েন্টি এশিয়া কাপ ফাইনালে বাংলাদেশের কাছে হেরে যাওয়াটা এক দিক দিয়ে শাপে বর হবে। ‘‘এশিয়া কাপে ধাক্কা খাওয়ার পরে আমরা সবাই নতুন করে নিজেদের তৈরি করা শুরু করি। পরিশ্রম করি। সবার লক্ষ্য ছিল, নিজেকে আন্তর্জাতিক মানের করে তোলা। সবাই এখন নিজেদের সেরাটা দেওয়ার জন্য তৈরি,’’ বলেছেন সহ-অধিনায়ক মন্ধানা।

আরও পড়ুন: সচিনের সঙ্গে মতান্তরের কথা লিখলেন ওয়ার্ন​

ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে শুক্রবার থেকে প্রতিযোগিতা শুরু হওয়ার আগে ভারতের আত্মবিশ্বাস বাড়াচ্ছে প্রস্তুতি ম্যাচে শক্তিশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে জয়। তার আগে শ্রীলঙ্কা সফরেও জয় পেয়েছিল ভারত। যা নিয়ে ভারতীয় ওপেনার মন্ধানা বলছেন, ‘‘শ্রীলঙ্কা সিরিজটা দলের জন্য খুব ভাল গিয়েছে। ব্যক্তিগত ভাবে আমি হয়তো সে রকম রান পাইনি, কিন্তু দলের সাফল্যে আমরা খুশি। একটা ম্যাচে তো আমি আর হরমনপ্রীত একটা রানও করিনি, কিন্তু তাতেও আমরা ১৭০ রান তুলে দিয়েছিলাম। যেটা দারুণ ব্যাপার।’’ যে কারণে ভারত এখানে অন্যতম ফেভারিটও। ভারত স্বপ্ন দেখছে তাদের প্রথম তিন ব্যাটসম্যানকে ঘিরে। মন্ধানা, মিতালি রাজ এবং হরমনপ্রীত। মিডল অর্ডারে ভারতীয় দলের নতুন তারকা জেমাইমা রদ্রিগেজের ফর্মও গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে এই বিশ্বকাপে। 

আরও পড়ুন: গোটা কেরিয়ারে একটাও ওয়াইড করেননি এই বিখ্যাত বোলাররা!​

প্রথম ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে খেলার পরে ১১ নভেম্বর ভারতের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান। ১৫ নভেম্বর মিতালিরা খেলবেন আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে। আর ১৭ নভেম্বর লড়াই তিন বারের চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে। কোচ পওয়ারের আশা, এ বার ভাল ফলই করবে ভারত। প্রাক্তন অফস্পিনার বলেন, ‘‘ওরা বুঝেছে, নিজেরা উন্নতি করলে দলেরও উন্নতি হবে। এই ধরনের প্রতিযোগিতায় রেকর্ড ভাঙলে, সাফল্য পেলে সারা বিশ্বের নজরে পড়া যায়। আশা করব, মেয়েরা এই ব্যাপারটা মাথায় রেখেই খেলতে নামবে।’’ 

মন্ধানা আশাবাদী দলের বোলারদের নিয়েও। তিনি বলেন, ‘‘গত তিন মাসে আমাদের বোলাররা দারুণ উন্নতি করেছে। ব্যাটসম্যানদের বিরুদ্ধে কী পরিকল্পনা করা হবে, কোন ছকে বল করা হবে, সে ব্যাপারে বোলারদের স্পষ্ট ধারণা আছে।’’ ভারতীয় বোলিং অবশ্য তাকিয়ে থাকবে তাদের স্পিনারদের দিকেই। ঝুলন গোস্বামী অবসর নেওয়ার পরে ভারতীয় পেস আক্রমণ এখন অভিজ্ঞতার অভাবে ভুগছে।