নাচ, গান, উত্সব। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর এমবাপে, পোগবাদের মুখে হাজার ওয়াটের আলো। দেখা গেল ফুটবলাররা শূন্যে ছুড়ে দিচ্ছেন কোচ দিদিয়ের দেশঁকে। যিনি ফুটবলার ও কোচ হিসেবে জিতলেন বিশ্বকাপ।

এর আগে ১৯৯৮ সালে দেশঁই ছিলেন বিশ্বকাপজয়ী ফ্রান্সের অধিনায়ক। সেবার ফাইনালে ব্রাজিলকে হারিয়েছিল ফ্রান্স। এবার কোচ হিসেবে বিশ্বকাপ জিতলেন তিনি। ফাইনালে হারালেন ক্রোয়েশিয়াকে।

বিশ্বকাপের ইতিহাসে এর আগে এমন উদাহরণ দু’বার রয়েছে। ১৯৫৮ ও ১৯৬২ সালে ফুটবলার হিসেবে বিশ্বকাপ জিতেছিলেন ব্রাজিলের মারিও জাগালো। ১৯৭০ বিশ্বকাপ তিনি জেতেন ম্যানেজার হিসেবে। ১৯৯৪ বিশ্বকাপ জয়ী ব্রাজিলের তিনি ছিলেন সহকারী ম্যানেজার।

১৯৭৪ সালে বিশ্বকাপ জয়ের পর জার্মানির ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার

জার্মানির ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার আবার ১৯৭৪ সালে অধিনায়ক হিসেবে জিতেছিলেন বিশ্বকাপ। তারপর ১৯৯০ সালে বিশ্বকাপজয়ী জার্মানির তিনি ছিলেন ম্যানেজার। বেকেনবাওয়ারের মতো দেশঁও বিশ্বজয় করলেন অধিনায়ক ও কোচ হিসেবে।

আরও পড়ুন: গ্রিজম্যান-পোগবা-এমবাপে, ত্রিফলা-র গোলে ফের বিশ্বজয়ী ফ্রান্স

আরও পড়ুন: ফাইনাল ম্যাচেও অঘটন, মাঠে ঢুকে পড়লেন দুই দর্শক, চূড়ান্ত নাটক

ফুটবলাররা শূন্যে ছুড়ে দিচ্ছেন কোচ দিদিয়ের দেশঁকে।

জাগালো, বেকেনবাওয়ারের সঙ্গে এই তালিকায় এবার উঠে এলেন ফ্রান্সের দেশঁও। গড়লেন অসামান্য নজির। স্পর্শ করলেন ইতিহাস। ট্রফি নিয়ে ফুটবলারদের সঙ্গে নেচে উঠলেন তিনিও।