স্বপ্নভঙ্গের যন্ত্রণা নিয়ে দেশে ফিরলেন ব্রাজিলের ফুটবলারেরা। রবিবার সকালে রিয়ো দে জেনেইরোতে নামেন তিতে, ফিলিপে কুটিনহো, কার্লোস কাজিমিরো-রা। কিন্তু নেমার দা সিলভা স্যান্টোস (জুনিয়র)-কে দেখা যায়নি দলের সঙ্গে বিমানবন্দর থেকে বেরোতে।

বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে হেরে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে ব্রাজিল ছিটকে গেলেও নেমারদের স্বাগত জানাতে রবিবার সকালে বিমানবন্দরের ভিড় করেছিলেন ফুটবলপ্রেমীরা। থমথমে মুখে একে একে বেরিয়ে এলেন ফুটবলারেরা। কিন্তু নেমার কোথায় গেলেন? প্যারিস সাঁ জারমাঁ তারকা কি তা হলে মাদ্রিদে থেকে গিয়েছেন? ব্রাজিলের সংবাদমাধ্যমে জল্পনা তুঙ্গে। কেউ কেউ আবার দাবি করছেন, রাশিয়াতেই থেকে গিয়েছেন তিনি। গ্যাব্রিয়েল জেসুসকে নিয়ে ব্যক্তিগত বিমানে নাকি ব্রাজিল ফিরবেন তিনি।  অথচ রবিবার নেমারকে দেখার জন্যই বিমানবন্দরে ভিড় করেছিলেন ফুটবলপ্রেমীরা। প্রিয় নায়ককে দেখতে না পেয়ে তিতের সঙ্গে নিজস্বী তুলেই হতাশা দূর করলেন তাঁরা। সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিদেরও হতাশ করেননি ব্রাজিল কোচ। তিতে বলেছেন, ‘‘ব্রাজিলের কোচ হিসেবে সর্বস্তর থেকে যে সম্মান আমি পেয়েছি, তাতে গর্বিত।’’

ফুটবলারদের মধ্যে একমাত্র কাজিমিরো কথা বলেন সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিদের সঙ্গে। বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেওয়ার পরে নেমারের সুস্থতা নিয়েও প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। জাতীয় দলের ডাক্তার রদ্রিগো লাসমার রিয়ো ফিরে জানিয়ে দিয়েছেন, একশো শতাংশ সুস্থ ছিলেন নেমার।

আরও পড়ুন:  জিতে অঁরিকে জবাব দিতে চান জিহুরা

শেষ ষোলোর ম্যাচে মেক্সিকোর বিরুদ্ধে হলুদ কার্ড দেখায় কোয়ার্টার ফাইনাল খেলতে পারেননি কাজিমিরো। তাঁর জায়গায় খেলেন ফের্নান্দিনহো লুইস রোসা। বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে হারের জন্য ফের্নান্দিনহোর ব্যর্থতাকেই দায়ী করা হচ্ছে। কাজিমিরো কিন্তু সতীর্থের পাশেই দাঁড়িয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘‘বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে হারের জন্য কাউকে একা কাঠগড়ায় তোলা উচিত নয়। জয়ের ক্ষেত্রে যেমন সবার অবদান থাকে, তেমনই ব্যর্থতার দায় কারও একার নয়। ফের্নান্দিনহো দুর্দান্ত ফুটবলার। ওর প্রতি আমাদের সবার আস্থা রয়েছে।’’