অস্ট্রেলিয়ার জার্সিতে শেষ ১৩টি ম্যাচে একটি সেঞ্চুরি আর তিনটি হাফ সেঞ্চুরি। গড় প্রায় ৪৪। স্ট্রাইক রেট ৯৯। এর পরেও বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার জর্সিতে খেলা হচ্ছে না পিটার হ্যান্ডসকম্বের।

তবে তিনি ছিটকে গেলেও অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ দলে জায়গা পেয়েছেন স্টিভ স্মিথ আর ডেভিড ওয়ার্নার। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে এই দুই তারকা ফেরায় কি হ্যান্ডসকম্বকে ছেঁটে ফেলা হল? এমন প্রশ্নও উঠতে শুরু করেছে। আইপিএলে স্বপ্নের ফর্মে ব্যাট করছেন ওয়ার্নার। আগ্রাসী ব্যাটিং করতে দেখা যাচ্ছে তাঁকে। স্মিথও ছন্দে ফিরছেন।

হ্যান্ডসকম্বের মতোই বিশ্বকাপ দলে জায়গা পাননি ফাস্ট বোলার জশ হ্যাজেলউড। জানুয়ারি থেকে পিঠের চোটে ভুগছেন হ্যাজলউড। তিনি যে দলে ডাক পাবেন না, তা আগে থেকেই যেন স্পষ্ট ছিল। অস্ট্রেলিয়ার পেস আক্রমণ সামলাতে দেখা যাবে মিচেল স্টার্ক, জাই রিচার্ডসন, প্যাট কামিন্স, জেসন বেহেরেনডর্ফ ও নাথান কুল্টার-নাইলকে। দলে জায়গা দেওয়া হয়নি ভারতের বিরুদ্ধে টি টোয়েন্টি সিরিজে ঝড় তোলা ব্যাটসম্যান অ্যাশটন টার্নারকেও।

আরও পড়ুন: রাগে অগ্নিশর্মা ধোনি, দেখুন মেজাজ হারানোর সেই মুহূর্ত

আরও পড়ুন: ধোনিকে ব্যান করা উচিত ছিল, তীব্র আক্রমণ সহবাগের

অস্ট্রেলিয়া দলে একমাত্র উইকেটরক্ষক অ্যালেক্স ক্যারে। স্মিথ-ওয়ার্নার ফিরলেও বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া দলকে নেতৃত্ব দেবেন অ্যারন ফিঞ্চ। এক বছর ধরে তিনিই অধিনায়ক হিসেবে কাজ চালাচ্ছেন। বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ম্যাচ ১ জুন। অজিদের প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান।

অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ দল: অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), স্টিভেন স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার, উসমান খওয়াজা, শন মার্শ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, মার্কাস স্টোইনিস, অ্যালেক্স ক্যারে (উইকেটরক্ষক), অ্যাডাম জাম্পা, নাথান লায়ন, জেসন বেহেরেনডর্ফ, নাথান কুল্টার-নাইল, প্যাট কামিন্স, মিচেল স্টার্ক, জাই রিচার্ডসন।