Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৬ জুলাই ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

ফলো অন নয়, বিপাকে স্মিথরা

সাধারণত বোলাররা ক্লান্ত হয়ে পড়লে অধিনায়কেরা ফলো অন করাতে চান না। এ ক্ষেত্রে অবশ্য বোলারদের সঙ্গে কথা না বলেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন স্মিথ।

নিজস্ব প্রতিবেদন
০৫ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৪:০২
Save
Something isn't right! Please refresh.
Popup Close

অ্যাডিলেডে প্রথম দিন-রাতের টেস্টের তৃতীয় দিনে ২১৫ রানে এগিয়ে থেকেও ইংল্যান্ডকে ফলো অন করালেন না অস্ট্রেলীয় অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ। যে সিদ্ধান্ত নিয়ে ক্রিকেট মহলে আলোচনা তুঙ্গে। শেন ওয়ার্ন তো সরাসরি এই সিদ্ধান্তের সমালোচনাও করেছেন।

সাধারণত বোলাররা ক্লান্ত হয়ে পড়লে অধিনায়কেরা ফলো অন করাতে চান না। এ ক্ষেত্রে অবশ্য বোলারদের সঙ্গে কথা না বলেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন স্মিথ। অন্তত সে রকম কথাই সাংবাদিক বৈঠকে এসে বলে গেলেন মিচেল স্টার্ক। তবে ফলো অন না করানো নিয়ে অধিনায়কের পাশেই দাঁড়িয়েছেন স্টার্ক। অস্ট্রেলিয়ার এই বাঁ হাতি ফাস্ট বোলার বলেন, ‘‘ফলো অন করাবে কি না, সেটা সম্পূর্ণ স্মিথের ব্যাপার। তাই ও বোলারদের সঙ্গে কোনও কথা বলেনি। এটা ওরই সিদ্ধান্ত।’’

অস্ট্রেলিয়ার ৪৪২ রানের জবাবে ২২৭ রানেই শেষ ইংল্যান্ডের প্রথম ইনিংস। তৃতীয় দিনে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ৫৩ রানে ৪ উইকেট পড়ে গিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার। স্টার্ক এখন তাকিয়ে আছেন শেষ দু’দিনের দিকে। তিনি বলেন, ‘‘রাত্রে বল বেশি সুইং করে ঠিকই, কিন্তু আমাদের হাতে এখনও দু’টি রাত রয়েছে। সময় মোটেও নষ্ট হয়নি।’’

Advertisement

আরও পড়ুন: শেষ বেলায় বোলাররা ফেরালেন জয়ের আশা

তবে স্মিথের সিদ্ধান্তে হতাশ ওয়ার্ন। ইংল্যান্ডকে ফের ব্যাট করতে পাঠালে তৃতীয় দিনের শেষটা অন্য রকম হতে পারত বলেই মনে করছেন এই কিংবদন্তি স্পিনার। তিনি বলেন, ‘‘ইংল্যান্ড ব্যাট করলে ওদেরও পঞ্চাশ রানে তিন অথবা চার উইকেট পড়তেই পারত। তখন অস্ট্রেলিয়ার কাছে ম্যাচটা আরও সহজ হয়ে যেত। আমি অধিনায়ক হলে গোলাপি বলে কখনওই রাতে ব্যাট করতাম না।’’

সোমবার অ্যাডিলেডে আলোচনার কেন্দ্রে আরও উঠে এসেছে দু’টো ক্যাচ। দু’টোই কট অ্যান্ড বোল্ড। একটি নিয়েছেন নাথান লায়ন। অন্যটি স্টার্ক। লায়নের বলে স্পিনের বিরুদ্ধে লং অনের দিকে ঠেলে খুচরো রান নিতে চেয়েছিলেন বাঁ-হাতি মইন আলি। ঠিক তখনই ‘সুপারম্যান’-এর মতো বাঁ-দিকে ঝাঁপিয়ে বলকে তালুবন্দি করলেন অস্ট্রেলীয় এই অফস্পিনার। অস্ট্রেলিয়া দলে লায়ন ‘গ্যারি দ্য গোট’ বলেই পরিচিত। ‘গোট’ কথাটির অর্থ, ‘গ্রেটেস্ট অব অল টাইম’। এর আগে এ রকম দুর্দান্ত ক্যাচ লায়ন আরও বেশ কয়েকটি ধরেছেন। যার জন্য সতীর্থরা তাঁর এই নামকরণ করেছেন।

লায়নের ক্যাচের ঠিক পাঁচ ওভার পরেই স্টার্কের বল সোজা ঠেলতে গিয়ে আউট হলেন জনি বেয়ারস্টো। দ্রুত গতিতে আসা বলটি ধরে অ্যাডিলেডকে আরও একটি বিস্ময়কর ক্যাচ উপহার দিলেন স্টার্ক।

দিনের শেষে যদিও ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুটকে কিছুটা স্বস্তি দিলেন জেমস অ্যান্ডারসন ও ক্রিস ওকস। দু’টি করে উইকেট নিয়ে রাতের আবহাওয়াকে পুরোপুরি কাজে লাগালেন দুই ইংরেজ পেসার। দিনের শেষে ২৬৮ রানে এগিয়ে অস্ট্রেলিয়া। পিটার হ্যান্ডসকম্ব ও নাইটওয়াচম্যান লায়ন দু’জনেই ব্যক্তিগত তিন রানে অপরাজিত।

খেলার খবরে সব সময় আপডেটেড থাকতে চোখ রাখুন আনন্দবাজারে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement