Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

জার্মান আক্রমণের সামনে বড় পরীক্ষা ব্রাজিল রক্ষণের

এই বিশ্বকাপে দু’টো টিম দু’রকম ভাবে এগিয়েছে। ইরানের কাছে কাছে চার গোলে বিপর্যস্ত হয়েছিল জার্মানি। কিন্তু সেখান থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজেদের সামলে

২২ অক্টোবর ২০১৭ ০৪:২১
Save
Something isn't right! Please refresh.
মহড়া: যুবভারতীতে চলছে জার্মানির অনুশীলন। ছবি: সুদীপ্ত ভৌমিক

মহড়া: যুবভারতীতে চলছে জার্মানির অনুশীলন। ছবি: সুদীপ্ত ভৌমিক

Popup Close

এটা সেই স্বপ্নের ম্যাচ যা দেখার জন্য অপেক্ষা করে থাকে ফুটবলপ্রেমীরা। হোক না অনূর্ধ্ব ১৭ বিশ্বকাপ, ব্রাজিল বনাম জার্মানি ম্যাচ তো আর রোজ হয় না। আর যখন হয়, ফুটবল দুনিয়া দমবন্ধ করে থাকে ম্যাচটার জন্য।

এই বিশ্বকাপে দু’টো টিম দু’রকম ভাবে এগিয়েছে। ইরানের কাছে কাছে চার গোলে বিপর্যস্ত হয়েছিল জার্মানি। কিন্তু সেখান থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজেদের সামলে নিয়েছিল ওরা। যেটা যে কোনও বড় দলের একটা লক্ষ্মণ। এই জার্মান টিমের অনেক ছেলেই বুন্দেশলিগায় খেলে। তা ছাড়া এদের মধ্যে অনেকেই যুব দলে আগেই এক সঙ্গে খেলে এসেছে। যেটা জার্মানির পক্ষে গিয়েছে।

অন্য দিকে ব্রাজিল টুর্নামেন্টে মসৃন ভাবে এগিয়েছে। বিশ্বকাপ শুরুর আগে যাবতীয় আলোচনার কেন্দ্রে ছিল ভিনিসিয়াস জুনিয়র। কিন্তু টুর্নামেন্ট যত এগিয়েছে, তত ব্রাজিল বুঝিয়ে দিয়েছে, ওরা ওয়ান ম্যান আর্মি নয়। এক জনের ওপর নির্ভর করে নেই পুরো দল। লিঙ্কন দস স্যান্টোসের দিকে একবার নজর দিলেই ব্যাপারটা বোঝা যাবে। এই টুর্নামেন্টের প্রতিটা ম্যাচেই ওর গোল আছে। সতীর্থদের জন্যও লিঙ্কন অনেক সুযোগ তৈরি করে দিচ্ছে।

Advertisement

ব্রাজিলিয়ান ফুটবলের ইতিহাসের দিকে তাকালে দেখা যাবে, রক্ষণের দিক দিয়ে ওরা কখনওই সে রকম শক্তিশালী ছিল না। কিন্তু ব্রাজিলের এই অনূর্ধ্ব ১৭ দলটা ২৬৫ মিনিট গোল না খেয়ে আছে। তবে জার্মানির অদম্য স্পিরিট আর ওদের তীব্র আক্রমণ ব্রাজিলের এই ডিফেন্সকে কড়া পরীক্ষার মুখে ফেলবে।

আমার মনে হচ্ছে, শুরু থেকেই বিপক্ষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়বে জার্মানরা। প্যারাগুয়ে-কে যে ভাবে ওরা ধ্বংস করেছিল, তার থেকেই ব্যাপারটা পরিষ্কার। প্রতিটা বলের জন্য ঝাঁপাবে জার্মানি, প্রতিপক্ষকে গুছিয়ে নেওয়ার সামান্যতম সুযোগ দেবে না।

এই বিশ্বকাপে ব্রাজিল ভাল কিছু করবে বলেই আমি আশা করি। ওদের টিমে যে গভীরতা আছে, সেটা ওদের দলবদ্ধ ভাবে খেলতে সাহায্য করে। বল পেলে ওরা মাথা ঠান্ডা রেখে খেলতে পারে। আর বিপক্ষকে জায়গা দেয় না। বিশেষ করে মিডফিল্ডে। ভাস্কো দা গামার হয়ে সিনিয়র পর্যায়ে খেলা পাওলিনহো এবং অ্যালান কী রকম খেলে, তার ওপর নির্ভর করে থাকবে ম্যাচের ভাগ্য।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement