Advertisement
১৯ জুলাই ২০২৪
India

WTC Final: ‘অতি সক্রিয় আম্পায়ারিং’! চটলেন কোহলী, অবাক সহবাগ

সাজঘরে ফেরার সময়ও হাতের ইশারায় সতীর্থ অজিঙ্ক রহাণেকেও বোঝাতে থাকেন যে ব্যাট-বলের মধ্যে কোনও সংযোগই হয়নি।

রিচার্ড ইলিংওয়ার্থের সঙ্গে তর্ক বিরাট কোহলী।

রিচার্ড ইলিংওয়ার্থের সঙ্গে তর্ক বিরাট কোহলী। ছবি - টুইটার

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা শেষ আপডেট: ২০ জুন ২০২১ ০৯:৫৬
Share: Save:

বৃষ্টি বিঘ্নিত বিশ্ব টেস্ট ফাইনালের প্রথম দিন এক অদ্ভুত কাণ্ড ঘটে গেল। প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড ডিআরএস-এর জন্য আবেদন না করলেও তৃতীয় আম্পায়ারের কাছে সাহায্য চেয়ে বসলেন মাঠে থাকা দুই আম্পায়ার। স্বভাবতই পুরো ঘটনায় বেশ ক্ষুব্ধ বিরাট কোহলী। তিনি আম্পায়ারের সঙ্গে তর্কও জুড়ে দেন। শুধু কোহলী নন, আম্পায়ারের এই হাস্যকর সিদ্ধান্তকে মেনে নিতে পারেননি বীরেন্দ্র সহবাগ। তিনিও অবাক।

সাদাম্পটনের রোজ বোল স্টেডিয়ামে তখন ৪১ ওভারের খেলা চলছে। ট্রেন্ট বোল্টের লেগ স্টাম্পের বাইরে থাকা ডেলিভারিকে মারতে গেলে সেটা ব্যাটে না লেগে উইকেটরক্ষক বি জে ওয়াটলিংয়ের দস্তানায় চলে যায়। স্বভাবতই আউটের আবেদন করেন বাঁহাতি জোরে বোলার। যদিও সেটা মৃদু আবেদন ছিল। তাই কেন উইলিয়ামসন ডিআরএস-এর জন্য এগিয়ে আসেননি। ফলে ব্যাপারটা সেখানেই থেমে যেতে পারত। কিন্তু দুই আম্পায়ার রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ ও মাইকেল গফ অতি সক্রিয় হয়ে তৃতীয় আম্পায়ারের কাছে সাহায্য চেয়ে বসেন। শেষে ভিডিয়ো রিপ্লেতে দেখা যায় ব্যাট ও বলের কোনও যোগাযোগই ঘটেনি।

বিষয়টা তৃতীয় আম্পায়ারের কাছে যাওয়ার আগেই কোহলী কিন্তু রিচার্ড ইলিংওয়ার্থের সঙ্গে তর্ক জুড়ে দিয়েছিলেন। পরে সাজঘরে ফেরার সময়ও হাতের ইশারায় সতীর্থ অজিঙ্ক রহাণেকেও বোঝাতে থাকেন যে ব্যাট-বলের মধ্যে কোনও সংযোগই হয়নি।

কোহলীর আউটের আবেদন নিয়ে সেই বিতর্কিত মুহূর্ত।

কোহলীর আউটের আবেদন নিয়ে সেই বিতর্কিত মুহূর্ত।

এ দিকে মাঠের এমন কাণ্ডকারখানা দেখে অবাক বীরু। তিনি টুইটারে লিখেছেন, ‘বিরাটের আউটের আবেদন নিয়ে মজার ঘটনা ঘটে গেল। বিপক্ষ দল ডিআরএস-এর জন্য আবেদন না করলেও আম্পায়ার রিভিউ নিয়ে ফেললেন! অবাক কাণ্ড!’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE