দোল খেলার পরে স্নান করতে নেমে জলে ডুবে মারা গেলেন দু’জন। দুটি ঘটনার একটি কলকাতার কলকাতার উত্তর বন্দর থানা এবং অন্যটি বালির নিশ্চিন্দাপুর থানা এলাকার।

উত্তর বন্দর থানার পুলিশ জানায়, বুধবার বিকেলে গঙ্গায় স্নান করতে নেমে জলে ডুবে মারা যান অজিত সাহু (১৭) নামে এক তরুণ। তাঁর বাড়ি মানিকতলা মেন রোডে। পুলিশ জানায়, রং খেলার পরে সাত-আট জন তরুণের একটি দল উত্তর বন্দর থানা এলাকার টেগর ঘাটে স্নান করতে নেমেছিল। সাঁতার না জানায় অজিত ডুবে যায়। অজিতকে ডুবতে দেখে সেই সময় গঙ্গার পাড়ে উপস্থিত লোকজন ও পুলিশ তাঁকে বাঁচানোর চেষ্টা করে। কিন্তু তাঁরা সফল হননি। খানিক্ষণের চেষ্টায় জলের তলা থেকে তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার হয়।

অন্যদিকে, বালির নিশ্চিন্দাপুর থানা এলাকার রামচন্দ্রপুরে পুকুরে ডুবে মারা যান  দিলীপ মল্লিক (৫২) নামে এক প্রৌঢ়। পুলিশ জানিয়েছে, দোল খেলার পরে পাড়ার পুকুরেই স্নান করতে নেমে ডুবে যান দিলীপবাবু। এদিন দুপুরে ওই ঘটনা ঘটে। কিছক্ষণ খোঁজাখুঁজি করে  পাড়ার লোকজনই পুকুর থেকে তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার করেন।

 বিকেলে উত্তর বন্দর থানা এলাকারই চাঁপাতলা ঘাটে জলে ডুবে যান কৃষ্ণেন্দু রায় চৌধুরী (২৯) নামে এক যুবক। বটতলা থানা এলাকার বাসিন্দা ওই যুবককে অবশ্য জল থেকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করেন বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর লোকজন। পুলিশ জানায়, সেই সময় বাহিনী আর পুলিশের লঞ্চ গঙ্গায় টহল দিচ্ছিল। কৃষ্ণেন্দুকে ডুবতে দেখেই গৌরাঙ্গ মণ্ডল নামে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর এক কর্মী লঞ্চ থেকে জলে ঝাঁপ দেন। তিনিই  কৃষ্ণেন্দুকে জল থেকে উদ্ধার করেন।