• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

১৮ বছরের জন্মদিনে ফিরল দেহ

Jerry
রাহুল মাড্ডি

১৮ বছরে এ দিনই পা দিয়েছেন ছেলে। ইচ্ছে ছিল, সে উপলক্ষে গরিব পড়ুয়াদের খাওয়ানো হবে। আয়োজনও করে ফেলেছিলেন বাবা-মা। কিন্তু শিবের মাথায় ঢালার জন্য দামোদর নদ থেকে জল আনতে গিয়ে অন্য তিন বন্ধুর সঙ্গে সোমবার তলিয়ে যান পশ্চিম বর্ধমানের দুর্গাপুরের রাহুল মাড্ডি। মঙ্গলবার জন্মদিনেই বাড়ি ফিরল তাঁর দেহ। বিডিও (অণ্ডাল) ঋত্বিক হাজরা বলেন, ‘‘মঙ্গলবার সকাল ৭টায় সিঙ্গারণ ও দামোদরের সংযোগস্থলের কাছে রাহুলের দেহ ভেসে ওঠে। দেহ উদ্ধার করে দুর্গাপুর থানার পুলিশ। অন্য তিন জনের দেহ সোমবারই উদ্ধার হয়েছে।’’

পুলিশের সূত্রে সকালেই পাড়ায়-বাড়িতে পৌঁছয় দ্বাদশ শ্রেণির পড়ুয়া রাহুল ওরফে ‘জেরি’র মৃত্যু-সংবাদ। বিকেলে দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালে ময়না-তদন্তের পরে দেহ যখন মেজেডিহি এলাকার বাড়িতে পৌঁছয়, ততক্ষণে ভিড় জমেছে। দেহ দেখে জ্ঞান হারান মা কমলাদেবী। বাবা, পেশায় ডিএসপি কর্মী নারায়ণ মাড্ডি বলেন, ‘‘ছেলের ইচ্ছে ছিল, জন্মদিনে দুঃস্থ পড়ুয়াদের দুপুরের খাওয়াবে। সে জন্য একটি প্রাথমিক স্কুলের ৫০-৬০ জন পড়ুয়াকে খাওয়ানো, শিক্ষাসামগ্রী ও ‘মাস্ক’ বিলির পরিকল্পনা করেছিলাম।’’ এ দিন পড়েই থাকল সেই চাল, ডাল, মশলা, জলের বোতল। ‘‘জেরি নেই, বিশ্বাস হচ্ছে না’’, বলেন পড়শি সঞ্জয় গড়াই-সহ অনেকে। স্থানীয় শ্রীরামপুর পঞ্চায়েতের উপপ্রধান শঙ্কর ঘোষ জানান, বর্ষায় যাঁরা সাঁতার জানেন না, তাঁদের বৈধ ঘাটে দামোদরের পাড়ে বসে স্নান করার পরামর্শ এবং যেখানে-সেখানে নেমে স্নান না করার বিষয়ে প্রচার চালানো হবে। 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন